• রবিবার, ১৬ জুন ২০১৯, ২ আষাঢ় ১৪২৬  |   ৩৪ °সে
  • বেটা ভার্সন

বিজ্ঞানের ভাষায় হাসির সংজ্ঞা

  রাকিব রওনক ০৮ জানুয়ারি ২০১৯, ১৩:২৬

হাসির সংজ্ঞা
ছবি : প্রতীকী

আমরা সবাই হাসতে ভালোবাসি এবং হাসি শরীর ও মন দুইয়ের জন্যই ভালো। চলুন দেখি এ নিয়ে বিজ্ঞান কী বলে। হাসি বিশেষজ্ঞদের (Gelotologist) মতে, হাসি বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই সামাজিক বন্ধন তৈরির ভিত্তি হিসেবে কাজ করে। হাসি আমাদের একজনকে আরেকজনের কাছে আনতে সাহায্য করে। মানসিক দুশ্চিন্তা কিংবা কাজের চাপ কমাতেও হাসি গুরুত্বপূর্ণ।

পরীক্ষায় দেখা যায়, হাসি স্ট্রেস হরমোন নিঃসরণে বাধা দেয়। এটি রক্তচাপ কমায় এবং অক্সিজেন পরিবহন বাড়ায়। এমনকি এটি T-Cell & B-Cell এর সংখ্যাও বাড়ায় যা দেহের রোগ প্রতিরোধে সাহায্য করে। কিন্তু আমরা কেনই বা হাসি।

বিশেষজ্ঞরা হাসির কারণ হিসেবে কয়েকটি থিওরির কথা বলেছেন, যেমন :

১) Incongruity Theory :

প্রতিদিন আমরা যা দেখি ব্রেইন এসবকে বোরিং মনে করে। এই প্রাত্যহিক নিয়মের যদি কোনো আকস্মিক পরিবর্তন হয় তখন তা হাসির কারণ হতে পারে। যেমন ধরুন, আপনি একজনকে প্রত্যেকদিন কফি নিয়ে হাঁটতে দেখেন। হঠাৎ একদিন দেখলেন তার হাত থেকে সেই কফি কারো গায়ে পড়ে গেল। এই ব্যতিক্রমটি আপনার হাসি সৃষ্টি করতে পারে। বেশিরভাগ সময় শিশুদের এভাবে হাসে।

২) Relief Theory :

হাসিকে বলা হয় ব্রেইনের কাজের ব্রেক। আমাদের ব্রেইন প্রতিনিয়ত বিভিন্ন কাজ করে যাচ্ছে। আর এই বিভিন্ন কাজ করতে করতে উদ্বিগ্নতার (Stressfulness) সৃষ্টি হয়। আর তা থেকে পরিত্রাণ পেতেই হাসির দরকার। হাসির মাধ্যমে সামাজিক বন্ধন তৈরি এই থিওরি সমর্থন করে।

৩) SuperiorityTheory :

অনেক মানুষ আছে যারা অপরিচিত কারও দুর্ভাগ্য দেখেও আনন্দ পায়। তারা নিজেদের অতি উঁচু মনে করে। এটিও একপ্রকার সামাজিক বন্ধনের সৃষ্টি করে। সাধারণত অনেককেই কৈশোর বয়সেই এই থিওরি অনুসরণ করতে দেখা যায়। উপরোক্ত কোনো থিওরি আপনার জন্য প্রযোজ্য? মজার বিষয় হচ্ছে ১০০ বার হাসার ফলে যে পরিমাণ শক্তি খরচ হয় তা ১৫ মিনিট বাইক চালানোর সমান।

কাজেই হাসাহাসি করা যদিও ভালো, কিছু ক্ষেত্রে অতিমাত্রায় হাসি কিংবা অতি কান্না যেটি নিয়ন্ত্রণ করা যায় না তা Gelastic Seizure তথা ব্রেইন টিউমারের সংকেত দেয়। কাজেই খুব বেশি হাসতে যাবেন না। সীমিত পরিমাণ হাসুন আর ভালো থাকুন। তবে বন্ধু কিংবা পরিবারের সঙ্গে থাকলে প্রাণ খুলে হাসুন।

লেখক : শিক্ষার্থী, ঢাকা মেডিকেল কলেজ

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মোঃ তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮-২০১৯

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড