• শুক্রবার, ২২ নভেম্বর ২০১৯, ৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৬  |   ২২ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

স্বাদে তিতকুটে, গুণে মিষ্টি

  লাইফস্টাইল ডেস্ক

০৯ নভেম্বর ২০১৯, ১৬:২২
করলা
ছবি : করলা

আমরা অনেকেই কিছু শাক-সবজি খাওয়া থেকে দূরে থাকি এর তিতকুটে স্বাদের জন্য। কিন্তু এ সকল তিতকুটে সবজিতেই রয়েছে অনেক পুষ্টিগুণ, যা- হৃদরোগ, ক্যান্সার, ডায়াবেটিসসহ লিভার ও চোখকে সুস্থ রাখতে সাহায্য করে। সেই সঙ্গে ত্বক ও চুলের যত্নেও এর তুলনা নেই। চলুন এমন কিছু তিতকুটে খাবার সম্পর্কে জেনে নিই, যা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে আমাদের আরও অনেক উপকার করে।  

করলা- 

তিতা স্বাদের সবজির মধ্যে করলার নাম প্রথমে না বললেই নয়। এতে রয়েছে কার্বোহাইড্রেট, প্রোটিন, ফ্যাট, খাদ্য আঁশ, নায়াসিন, প্যান্টোথেনিক এসিড, ভিটামিন এ, ভিটামিন সি, সোডিয়াম, পটাশিয়াম, ক্যালসিয়াম, কপার, আয়রন, ম্যাগনেসিয়াম, ম্যাঙ্গানিজ ও জিংক। গবেষণা বলছে, প্রতিদিন ২ হাজার মিলিগ্রাম শুকনো, গুঁড়া, সিদ্ধ, রস কিংবা রান্না করা করলা খেলে রক্তে শর্করার পরিমাণ নিয়ন্ত্রিত থাকবে, যা ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য অনেক উপকারী। এছাড়া করলা অ্যালার্জি প্রতিরোধসহ কৃমিনাশক, কফনাশক ও পিত্তনাশক। 

মেথি- 

মেথি দানাকে মশলা হিসেবে এবং এর পাতাকে শাক হিসেবে খাওয়া হয়। দুটোই তিতা স্বাদযুক্ত। তবে এতে থাকা খনিজ কোলেস্টরল ও রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখার পাশাপাশি শরীরে অম্লের ভাব কমাতেও ভূমিকা রাখে। কেউ যদি প্রতিদিন সকালে খালি পেটে মেথি চিবিয়ে খায় অথবা আগের রাতে মেথি ভেজানো পানি পান করে, তবে তার রক্তে চিনির মাত্রা কমে যায় ও শরীরের রোগ-জীবাণু যেমন-কৃমি মরে যায়। 

নিমপাতা-  

যুগ যুগ ধরে নিমপাতা নানা রকম অসুখ দূর করতে ও জীবাণুনাশক হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। ক্ষুদ্রান্ত্রে ব্যাক্টেরিয়ার আক্রমণ প্রতিরোধ, স্নায়ুবিক সমস্যা রোধ, ওজন কমাতে, জন্ডিস, খুশকি ও উকুন বিনাশে, দাঁতের রোগ, চুলকানি, অ্যালার্জি, ম্যালেরিয়া, বাত, রক্ত পরিষ্কারসহ নানা সমস্যায় নিমপাতার ঔষধি গুণ রয়েছে।   

সজনে-

সজনে গাছের ডাটা, ফুল ও পাতা তিনটিরই উপকারিতা রয়েছে। সজনে পেটের অসুখ, বাত, শ্লেষ্মা, গোদ ও গলগণ্ড রোগ নিরাময়, পেটে গ্যাস উৎপন্নে বাধাসহ ব্যথা, কাশি, নাক ও মুখ থেকে রক্ত পড়া বা রক্তপিত্ত সারায় এবং শরীরের অনাকাঙ্ক্ষিত দাগ দূর করে। এছাড়া সজনে ফুলে থাকা ইউরিনারি ট্র্যাক্ট ইনফেকশন, সর্দি ও জ্বরের উপশমে খুবই কার্যকরী ভূমিকা রাখে এবং এতে থাকা ক্যালসিয়াম ও পটাশিয়াম প্রসূতি মায়ের জন্যও খুব উপকারী। যদি কারো শরীরের কোনো জায়গা বাতের কারণে ফুলে যায়, সেক্ষেত্রে সজনে বেসনের সাথে খড়খড়ে করে রান্না করে খেলে উপকার পাবে। 

এমনকি উচ্চ রক্তচাপের জন্যও সজনে পাতা বিশেষ ভূমিকা পালন করে। এ ক্ষেত্রে সামান্য পানি দিয়ে সজনে পাতা বেঁটে রস বের করে সকাল-বিকেল দুই চামচ করে খেলে উপকার পাওয়া যাবে। 

ওডি/এওয়াইআর

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মো: তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড