• বৃহস্পতিবার, ২১ নভেম্বর ২০১৯, ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬  |   ২০ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

মোদীকে আশ্বাস দিয়ে ইমরানের সামনে ভোল পাল্টালেন ট্রাম্প

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক

২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১০:১২
মোদী, ট্রাম্প ও ইমরান
পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান, মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। (ছবিসূত্র : দ্য কুইন্ট)

সংবিধান সংশোধনের মাধ্যমে ভূস্বর্গ খ্যাত জম্মু ও কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিল করায় অঞ্চলটিতে ইতোমধ্যে এক থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে। যা নিয়ে পরবর্তীতে সৃষ্ট উত্তেজনাকর পরিস্থিতির মধ্যে এবার যুক্তরাষ্ট্র সফররত ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে ‘পাশে থাকার’ আশ্বাস দিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। 

যদিও এর কিছু সময় পর পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের সঙ্গে অনুষ্ঠিত বৈঠকে নিজের অবস্থান পরিবর্তন করে আগের কথাই পুনর্ব্যক্ত করেছেন তিনি।

গত রবিবার (২২ সেপ্টেম্বর) মেক্সিকো সীমান্ত সংলগ্ন টেক্সাস অঙ্গরাজ্যের হিউস্টন শহরে আয়োজিত ‘হাউডি মোদী’ অনুষ্ঠানে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের সঙ্গে মোদীর এক বিরাট সখ্যতা দেখে আশায় বুক বেঁধেছিল গোটা ভারত। দেশটি ভেবেছিল, পাকিস্তান এখন যুক্তরাষ্ট্রের কাছে আর কোনো পাত্তাই পাবে না। যদিও বাস্তবে ঘটল এর উল্টোটা।

পরদিন সোমবারের (২৩ সেপ্টেম্বর) বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানকে 'কৌশলী' ট্রাম্প বলেছেন, 'আমি সব সময়ই পাকিস্তানের ওপরে ভরসা করি। কেননা আমিও আপনাদের মতো চাই কাশ্মীরে সবাই ভালো থাকুন। প্রধানমন্ত্রী মোদী ও আপনার সঙ্গে আমার সম্পর্ক ভালো। আপনারা দুজনে যদি বলেন যে, আমাদের একটা সমস্যা দূর করার আছে; তাহলে আমি অবশ্যই সেটা করতে পারব।'

বৈঠকে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের দাবি, 'আমি খুবই ভালো একজন মধ্যস্থতাকারী। তাই চলমান কাশ্মীর সংকট নিরসনে আমার কোনো বিকল্প নেই।'

বিশ্লেষকদের মতে, গত কিছু দিন আগে পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরানের পাশে দাঁড়িয়ে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প একটি সংবাদ সম্মেলন করেছিলেন। যেখানে তিনি বলেছিলেন, 'কাশ্মীর ইস্যুতে প্রধানমন্ত্রী মোদী আমাকে মধ্যস্থতা করার জন্য অনুরোধ জানিয়েছেন। আমি তার এই অনুরোধ ভেবে দেখার আশ্বাস দিয়েছি।'

যদিও পরবর্তীতে ভারত সেই কথার তীব্র প্রতিবাদ জানায়। তখন নয়াদিল্লি দাবি করে, কাশ্মীর মূলত একটি দ্বিপাক্ষিক সমস্যা। এখানে বাহিরের কেউ সমাধান করতে পারবে না। যে কারণে ট্রাম্পকে কখনোই এমন কোনো কথা বলা হয়নি।

এর আগে গত ৫ আগস্ট ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ ধারা রদের মাধ্যমে জম্মু ও কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিল করেছিল ক্ষমতাসীন মোদী সরকার। যার প্রেক্ষিতে পরবর্তীতে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল হিসেবে বিতর্কিত লাদাখ ও জম্মু ও কাশ্মীর সৃষ্টির প্রস্তাবেও সমর্থন জানানো হয়।

আরও পড়ুন :- কাশ্মীর ইস্যুতে ইমরান-মোদীর সঙ্গে বৈঠকে বসছেন ট্রাম্প

এসবের মধ্যেই চলমান কাশ্মীর ইস্যুতে পাক-ভারত মধ্যকার সম্পর্কে নতুন করে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়েছে। এরই মধ্যে একে একে ভারত সরকারের সঙ্গে বাণিজ্য, যোগাযোগসহ সব ধরনের সম্পর্ক ছিন্নের ঘোষণা দিয়েছে প্রতিবেশী পাকিস্তান। যদিও এমন সংকটময় পরিস্থিতিতে ভারত পাশে পেয়েছে রাশিয়াকে এবং পাক সরকারের পাশে এসে দাঁড়িয়েছে মধ্যপ্রাচ্যের তেলসমৃদ্ধ দেশ ইরান।

ওডি/কেএইচআর

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মো: তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড