• সোমবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১ আশ্বিন ১৪২৬  |   ২৮ °সে
  • বেটা ভার্সন

সর্বশেষ :

নিজ দেশে ফিরে যেতে রোহিঙ্গাদের দুই শর্ত||এ পি জে আব্দুল কালামের স্মৃতিতে ভূষিত প্রধানমন্ত্রী  ||উদ্বেগ থাকলেও ভারতের ওপর বিশ্বাস রাখতে চাই : পররাষ্ট্রমন্ত্রী ||ছাত্রলীগের চাঁদাবাজি ঢাকতেই ছাত্রদলের কাউন্সিল বন্ধ : রিজভী ||কাশ্মীরে জঙ্গি অনুপ্রবেশের অভিযোগে সীমান্তে‌ হাই অ্যালার্ট||ভারতের পর এবার বিশ্বকে পরমাণু যুদ্ধের হুঁশিয়ারি পাকিস্তানের||সোমবার আনুষ্ঠানিক দায়িত্ব নেবেন ভারপ্রাপ্ত সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক||মেক্সিকোয় কুয়া থেকে ৪৪ মরদেহ উদ্ধার করল বিজ্ঞানীরা||অন্যায় করলে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না : কাদের    ||সৌদির তেল স্থাপনাতে হামলায় ইরানকে দায়ী করল যুক্তরাষ্ট্র

আখাউড়া মুক্ত দিবসে ছাত্রলীগের ফুলেল শ্রদ্ধা

  ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি

০৬ ডিসেম্বর ২০১৮, ২২:৩৪
আখাউড়া
আখাউড়া মুক্ত দিবস উপলক্ষে মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি ফুলেল শ্রদ্ধা ছাত্রলীগের (ছবি : দৈনিক অধিকার)

ব্রাহ্মণবাড়িয়া আখাউড়া মুক্ত দিবস উপলক্ষে শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি ফুলেল শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন আখাউড়া উপজেলা ছাত্রলীগ। বৃহস্পতিবার (৬ ডিসেম্বর) সকালে আখাউড়া উপজেলা চত্বরে উপজেলা কেন্দ্রীয় স্মৃতিসৌধে ফুলেল শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়। 

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, আখাউড়া উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি শাহাবউদ্দিন বেগ শাপলু, সহ সভাপতি আশিকুর রহমান নাঈম, সৈয়দ তানভীর শাহ মন, সৈয়দ যুবরাজ শাহ রাসেল, তানভীর আহম্মদ, সাধারণ সম্পাদক সাখাওয়াত হোসেন নয়ন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শেখ তজিবুর রহমান, সুম্ময় খান, সাংগঠনিক সম্পাদক সালাহ্উদ্দিন মিয়া, মেহদী হাসান মাহীসহ প্রমুখ।
 
উল্লেখ্য, ১৯৭১ সালে ৭ মার্চ  বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ভাষণের পর থেকে আখাউড়া উপজেলায় গঠন করা হয় সংগ্রাম পরিষদ। আর সেই পরিষদের নেতৃত্বে দেন কাজী ওয়াহেদুর রহমান লিলু মিয়া। ৩০ নভেম্বর ও ১ ডিসেম্বর আখাউড়া উত্তরে সীমান্তবর্তী আজমপুর, রাজাপুর, সিঙ্গারবিল, মিরাশানি এলাকায় আধুনিক অস্ত্রেসস্ত্রে পাক বাহিনীর সঙ্গে মুক্তি বাহিনীর যুদ্ধ হয়। এ যুদ্ধে অন্তত ৩৫ পাক সেনা নিহত হয়। বন্দী করা হয় ৫ জনকে। আর শহীদ হন মুক্তি বাহিনীর নায়েক সুবেদার আশরাফ আলী খান। আহত হয় অনেক মুক্তিযোদ্ধা। 
 
অন্যদিকে ৩ ডিসেম্বর রাতে মুক্তিবাহিনীরা আজমপুরে অবস্থান নিলে সেখানেও যুদ্ধ হয়। ওই যুদ্ধে পাক হানাদার বাহিনীর ১১জন সৈন্য নিতহ হয়। মুক্তিবাহিনীর ২ সিপাহী ও ১ নায়েক সুবেদার শহীদ হন। ৪ এবং ৫ ডিসেম্বর যুদ্ধে পাক হানাদার বাহিনীর প্রায় ১৭০ জন সৈন্য নিতহ হয়। তখন পুরও আখাউড়া এলাকা মুক্তিবাহিনীর দখলে চলে আসে। যুদ্ধের পর ৬ ডিসেম্বর আখাউড়া পুরোপুরি হানাদার মুক্ত হয়। সেই থেকে প্রতি বছর এই দিনে আখাউড়া মুক্ত দিবস পালন করা হয়।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মো: তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড