• শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১  |   ২৯ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

মহেশখালী থেকে উঠে আসা নঈমের ফটোগ্রাফার হয়ে উঠার গল্প

  ইউনুস রিয়াজ

২০ মার্চ ২০২৩, ১৩:০৯
মহেশখালী থেকে উঠে আসা নঈমের ফটোগ্রাফার হয়ে উঠার গল্প

কক্সবাজারের মুহাম্মদ নঈম উদ্দীন থেকে ফটোগ্রাফার নঈম। কক্সবাজার জেলাস্থ বাংলাদেশের একমাত্র পাহাড়ি দ্বীপ মহেশখালীতে জন্মগ্রহণ করেন। ব্যবসায়ী বাবা ও গৃহিণী মায়ের চার সন্তানের চতুর্থ নঈমের শৈশব কাটে অপরূপ সৌন্দর্যের লীলাভূমি মহেশখালীতেই সে-সুবাদে তিনি ছোটবেলা থেকেই ছবি তোলায় বেশপটু।

ছবি যেন তার রন্ধ্রে রন্ধ্রে মিশে আছে, শুধু দরকার ছিল একটু সুযোগের। ২০১৬ সালের শুরুর দিকে শখের বসে হয় আলোকচিত্রের ব্যাকরনীক হাতেকড়ি। আমি ইউনুস রিয়াজ গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের (গবি) শিক্ষার্থী ও সংবাদকর্মী বলছি গবির কৃতি শিক্ষার্থী সম্ভাবনাময় ফটোগ্রাফার নইম উদ্দীনের কথা।

মহামারি করোনা ভাইরাসের ভয়াল সংক্রমণের পর বিশ্ববিদ্যালয় সচল হলে তিনি গণ বিশ্ববিদ্যালয় ফটোগ্রাফিক সোসাইটির (জিবিপিএস) সাথে যুক্ত হন। বিশ্ববিদ্যালয়ের মুক্ত চিন্তার গণ্ডিতে এসে নিজেকে আবিষ্কার করে নতুন ভাবে। ছবিই যেন হয়ে উঠে তার কথা বলার ভাষা। গবির আইন বিভাগে অধ্যয়নের পাশাপাশি তিনি জিবিপিএসের কার্যকরী পরিষদের (২০২১-২০২২) সাধারণ সম্পাদক এবং বর্তমানে তিনি উক্ত সংগঠনের লিড মেন্টর হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন।

তার চোখে ক্যাম্পাসকে নতুন করে দেখতে শুরু করেছে অনেকেই। ব্যতিক্রমধর্মী এই বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যতিক্রমী কিছু চরিত্র হল তৃতীয় লিঙ্গের নিরাপত্তাকর্মী যা বাংলাদেশে গণ বিশ্ববিদ্যালয়েই ১ম দৃষ্টান্ত স্থাপন করেন তাদের চাকুরী দানের মাধ্যমে। লোকচক্ষুর আড়ালে থাকা তৃতীয় লিঙ্গের এসব নিরাপত্তাকর্মীদের তার সৃজনশীলতার মাধ্যমে তুলে আনেন যা তাদের প্রতি সাধারণ মানুষের দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তনেও ভূমিকা পালন করছে । এই অবহেলার দুনিয়ায় 'তৃতীয় চোখে অন্য জীবন' তাদের নতুন করে বাঁচতে শেখায়, নতুন পরিচয়ে তারা উপলব্ধি করতে পারেন তারাও অন্য দশজন স্বাভাবিক মানুষের মতো এই বিশ্ববিদ্যালয়েরই অংশ।

নঈম জানায় ইতোমধ্যেই গণ বিশ্ববিদ্যালয়, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র ও জাতীয় স্মৃতিসৌধে জিবিপিএস এর সার্বিক সহযোগিতায় তার এই প্রদর্শনী করা হয় সামনে আরও বেশ কিছু জায়গায় এই প্রদর্শনী করার ইচ্ছে আছে। তার এই প্রদর্শনীর মাধ্যমে তৃতীয় লিঙ্গের কর্মচারীদের গল্প তুলে ধরতে চান সব খানে, এতে করে দু-ধরনের কাজ হবে বলে তিনি আশা করেন।

প্রথমত, অন্যান্য ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান তাদের নিজ নিজ অবস্থান থেকে তৃতীয় লিঙ্গের মানুষের জন্য কাজের সুযোগ করে দিবে, ফলে তৃতীয় লিঙ্গের মানুষদের নতুন কর্মসংস্থান তৈরি হবে।

দ্বিতীয়ত, তৃতীয় লিঙ্গের অন্যান্য যারা বিভিন্ন যায়গায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে তাদেরও কর্মমুখী হতে উৎসাহ যোগাবে, আগ্রহী করবে। তিনি বিশ্বাস করেন ফটোগ্রাফি একটি শিল্প এবং প্রতিটি শিল্পের নিজস্ব শক্তি আছে। তিনি এই শক্তির জোরে, ফটোগ্রাফির মাধ্যমে সমাজকে ইতিবাচক পরিবর্তন করতে চান এবং দেশকে এগিয়ে নিতে ভূমিকা রাখতে চান।

জিবিপিএসের বর্তমান কার্যকরী পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মো. রোমন হোসেন 'তৃতীয় চোখে অন্য জীবন' সম্পর্কে জানায় পরবর্তী প্রদর্শনীর গন্তব্য গণস্বাস্থ্য নগর হাসপাতাল ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি। এই প্রদর্শনীর মাধ্যমে সবার মনে তাদের নিয়ে যে ভ্রান্ত ধারণা সেইটা দূর হবে এবং তাদের বিভিন্ন কর্মসংস্থানে চাকরির সুযোগ তৈরি করে দেওয়া সম্ভব। তাদের উদ্দেশ্য এটি সর্বস্তরের জনগণের মধ্যে ছড়িয়ে দেয়া যে ৩য় লিঙ্গের যারা আছেন তারা এই সমাজেরই অংশ এবং মানুষের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধি লক্ষ্য নিয়ে তারা সামনে এগিয়ে যাচ্ছে।

ক্যাম্পাসের বাইরেও তার বেশকিছু প্রশংসনীয় কাজ রয়েছে যার মধ্যে "মহেশখালী মোহনীয় দ্বীপ" উল্লেখযোগ্য। উপজেলা প্রশাসন মহেশখালী এর উদ্যোগে তৈরি এ ম্যাগাজিনে তার ক্যামেরার লেন্সে মহেশখালীর অপার সৌন্দর্য ফুটিয়ে তুলেছে নিখুঁতভাবে। এছাড়াও গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র ও গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন আয়োজনে ফটোগ্রাফার হিসেবে কাজ করেন এবং বর্তমানে তিনি একজন ফ্রিল্যান্স আলোকচিত্রী হিসেবে কাজ করছেন।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড