• মঙ্গলবার, ২৪ মে ২০২২, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯  |   ৩৪ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

বীরদের গল্প দিয়ে বিজয়ের মাসে শেষ হলো 'স্টোরিজ অফ হিরো' ক্যাম্পেইন

  অধিকার ডেস্ক

০১ জানুয়ারি ২০২২, ১৪:২৬
'স্টোরিজ অফ হিরো' ক্যাম্পেইন
'স্টোরিজ অফ হিরো' ক্যাম্পেইন (ছবি : সংগৃহীত)

শেষ হচ্ছে বিজয়ের মাস ডিসেম্বর। এর সাথে শেষ হলো ‘স্টোরিজ অব হিরো’ ক্যাম্পেইন। গত ১২ ডিসেম্বর মুক্তিযুদ্ধসহ জাতীয় জীবনে বিভিন্ন ক্ষেত্রে অবদান রাখা বাস্তবের নায়কদের খোঁজে এ ক্যাম্পেইন শুরু করে অপো ও বুরো বাংলাদেশ। এই তালিকায় রয়েছে মুক্তিযোদ্ধা, নারী উদ্যোক্তা, সংগ্রামী মা, সুবিধাবঞ্চিত শিশু, ছাত্র-ছাত্রী, কৃষক শ্রমিক ও মেহনতী মানুষের গল্পকথা। যারা নিজেদের জীবন-সংগ্রামের মাধ্যমে জাতীয় জীবনে অবদান রাখছেন নিরন্তর।

অপো গ্যালারির জন্য আয়োজিত 'স্টোরিজ অফ হিরোইক পিপল' ক্যাম্পেইনের মাধ্যমে মুক্তিযুদ্ধ ও মুক্তিযুদ্ধ পরবর্তী এই দুই সময়ের বীরদের এক ফ্রেমে ধরে রাখতে যাচ্ছে প্রযুক্তি পণ্য নির্মাতা প্রতিষ্ঠানটি। উদ্দেশ্য ছবির মাধ্যমে মাধ্যমে যুগ যুগ ধরে নতুন প্রজন্মকে তাদের সংগ্রামের গল্প জানানো। কারণ অ্যালবামের একেকটি ছবি এক একটি যুদ্ধ জয়ের গল্প।

‘স্টোরিজ অফ হিরো’ ক্যাম্পেইন শুরুর পর অনলাইন, অফলাইন ও ডিজিটাল প্রায় সব মাধ্যমে এ উপলক্ষে প্রচারণা চালায় অপো।

শুরুতেই মুক্তিযোদ্ধাদের গল্প দিয়ে শুরু করা যাক। প্রথম ধাপে নির্বাচিত তিন মুক্তিযোদ্ধা হলেন জহির উদ্দিন জালাল, মোহাম্মদ আবদুল কুদ্দুস ও লুবনা মরিয়ম। জহির উদ্দিন জালাল ও মোহাম্মদ আবদুল কুদ্দুস মৃত্যু নিশ্চিত জেনেও পাকিস্তানিদের বিরুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলেন। শত্রুপক্ষকে আঘাতে আঘাতে পর্যদুস্ত করে ফেলেন। পাকিস্তানিদের অমানুষিক নির্যাতনেও দমে যাননি তারা। সম্মুখ যুদ্ধে অংশ নিয়ে দেশকে স্বাধীনতা উপহার দেন। পরবর্তীতে তাদের বীরত্ব গাঁথা চারদিকে ছড়িয়ে পড়ে। সরাসরি অস্ত্র হাতে যুদ্ধ না করলেও সাংস্কৃতিক কর্মকা-ের মাধ্যমে মুুক্তিযুদ্ধে অংশ নেন লুবনা মরিয়ম। এমনকি তিনি যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধাদের চিকিৎসায় দিনরাত পরিশ্রম গেছেন। সেই ঘটনার পঞ্চাশ বছর পরও আজ তিনি মনে করেন মুক্তিযুদ্ধ পরবর্তী বাংলাদেশের জন্য সাংস্কৃতিক আন্দোলন অনেক বড় ভূমিকা রেখেছে।

এবার আসবো বর্তমানের আধুনিক বাংলাদেশ বিনির্মাণে যারা কাজ করে যাচ্ছেন তাদের দিকে। প্রকৃতপক্ষে একাত্তরের মুক্তিযোদ্ধাদের জীবন থেকে উৎসাহিত হয়েই তারা বর্তমান বাংলাদেশ গঠনে কাজ করে যাচ্ছেন তারা। বর্তমানের তিন হিরো হলেন, দুলাল স্যার, রবীন্দ্রনাথ বিশ্বাস ও সাজেদুল ইসলাম।

৬৫ বছর বয়সী দুলাল স্যার নিজ এলাকায় শিক্ষার আলো ছড়িয়ে দিচ্ছেন। সবার জন্য শিক্ষা নিশ্চিতকরণে বেশ কিছু শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও মসজিদ নির্মাণ করেন। অনির্বাণ বিদ্যালয়ে তিনি নিজেও শিক্ষার্থীদের পড়ান। আর ৭০ বছর বয়সী মুক্তিযোদ্ধা ও গ্রাম্য ডাক্তার রবীন্দ্রনাথ বিশ্বাসের বাড়ি খুলনার বটিয়াঘাটা উপজেলায়। তিনি একাত্তরে যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধাদের চিকিৎসা দিতেন। সেই থেকে আজ অবদি তিনি মানব চিকিৎসায় আত্মনিয়োগ করে যাচ্ছেন। দরিদ্র অসহায় মানুষের জন্য বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা দিয়ে যাচ্ছেন।

অন্যদিকে সাজেদুল ইসলাম স্বেচ্ছাসেবক হিসেবে নিজেকে বিভিন্ন সামাজিক কর্মকাণ্ডে যুক্ত রেখেছেন। তিনি নিজে রক্ত দেন ও অন্যদের রক্ত দিতে উৎসাহিত করেন। করোনাকালীন সময়ে তিনি গোপালগঞ্জ বন্ধু মহলের সঙ্গে একত্রিত হয়ে মুমূর্ষু রোগীদের বিনামূল্যে অক্সিজেন সিলিন্ডার সরবরাহ করে সর্বমহলে প্রশংসা কুঁড়ান।

অপো জানায়, এসব বাস্তবের বীরদের গল্প ভার্চুয়াল অনলাইন আর্ট কালেকশন অপো গ্যালারিতে সংরক্ষণ করা হবে। আর্থিক সাহায্যের পাশাপাশি তাদেরকে সম্মানিত করবে অপো ও বুরো বাংলাদেশ। আর যাদের ক্যামেরায় (রুবাবাতুল জান্নাত, সীমান্ত মন্ডল ও নিপা বেপারী) তিনটি গল্প উঠে তাদেরকে সর্বশেষ মডেলে স্মার্টফোন রেনো ৬ ও আইওটি ডিভাইস দেওয়া হবে।

ওডি

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

সহযোগী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড