• মঙ্গলবার, ২৭ জুলাই ২০২১, ১২ শ্রাবণ ১৪২৮  |   ৩৩ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

আফগান নির্বাচনি সহিংসতায় নিহত ৮৫, দাবি জাতিসংঘের

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক

১৬ অক্টোবর ২০১৯, ১০:২৬
আফগান নির্বাচনি সহিংসতা
হামলায় আহত বেসামরিককে হাসপাতালে নেওয়া হচ্ছে। (ছবিসূত্র : খালিজ টাইমস)

এশিয়ার যুদ্ধবিধ্বস্ত রাষ্ট্র আফগানিস্তানে সদ্য সমাপ্ত নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সৃষ্ট সহিংসতায় এখন পর্যন্ত নারী ও শিশুসহ অন্তত ৮৫ বেসামরিকের প্রাণহানি হয়েছে। এতে গুরুতর আহত হয়েছেন আরও কমপক্ষে ৩৮০ জনেরও অধিক লোক।

গত মঙ্গলবার (১৫ অক্টোবর) জাতিসংঘের প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে উঠে এসেছে চাঞ্চল্যকর এসব তথ্য। যেখানে বেশিরভাগ হতাহতের জন্যই সশস্ত্র বিদ্রোহী গোষ্ঠী তালিবানকেই দায়ী করা হয়।

ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা ‘রয়টার্স’ জানায়, গত ২৮ সেপ্টেম্বর যুদ্ধবিধ্বস্ত এই দেশটিতে অনুষ্ঠিত হয় প্রেসিডেন্ট নির্বাচন। এবারের নির্বাচনে ৩ কোটি ৫০ লাখ আফগান নাগরিকের মধ্যে ৯৬ লাখ ভোটার ছিলেন। যাদের মধ্যে মাত্র ২০ লাখের মতো লোক নিজেদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পেরেছিলেন।

পরিচয় গোপন রাখার শর্তে আফগান নির্বাচন কমিশনের এক কর্মকর্তা জানান, সদ্য সমাপ্ত এই নির্বাচনে দেশের প্রতি ৫ জন ভোটারের মধ্যে মাত্র একজন ব্যালট বাক্সে তার ভোট প্রদান করেছেন।

দেশটিতে নিযুক্ত জাতিসংঘ মহাসচিবের বিশেষ প্রতিনিধি তাদামিচি ইয়ামামোতো এক বিবৃতিতে বলেছিলেন, ‘এবারের নির্বাচনে ভোটার, নির্বাচন কর্মকর্তা, অংশগ্রহণকারী এবং ভোটকেন্দ্রগুলোকে লক্ষ্য করে একের পর এক হামলা চালানো হয়েছে। যা কোনোভাবেই মেনে নেওয়া সম্ভব নয়। ভয়াবহ এসব হামলায় হতাহত বেসামরিকদের মধ্যে প্রায় এক তৃতীয়াংশই ছিল শিশু।

নির্বাচনের পরদিন গত ২৯ সেপ্টেম্বর ভোট কমিশনের সংশ্লিষ্ট ১৩ কর্মকর্তাকে অপহরণ করা হয়। এমনকি ভোটকেন্দ্রে চালানো হামলায় আহত হন আরও ১১ জন।

সংস্থাটির প্রতিবেদনে আফগান প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের দিন সংগঠিত হামলাগুলোর জন্য সশস্ত্র সংগঠন তালিবানকেই দায়ী করা হয়। যদিও বিদ্রোহী এই গোষ্ঠীটির পক্ষ থেকে এখন পর্যন্ত যথাযথ কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি।

আরও পড়ুন :- পাক সেনাদের গুলিতে এবার প্রাণ গেল ভারতীয় নারীর

জাতিসংঘ মহাসচিবের বিশেষ প্রতিনিধি আরও বলেন, ‘আফগান বেসামরিকদের ওপর কাঠামোবদ্ধ এসব হামলাকে খুব শিগগিরই একটি মানবতাবিরোধী অপরাধ হিসেবে বিবেচনা করা হবে। জাতিসংঘ এর তীব্র নিন্দা এবং যথাযথ তদন্তের আহ্বান জানায়।’

ওডি/কেএইচআর

jachai
niet
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
niet