• মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯, ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬  |   ২৯ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

মেক্সিকোতে বন্দুকধারীদের গুলিতে ১৪ পুলিশ নিহত

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক

১৫ অক্টোবর ২০১৯, ১০:৪১
মেক্সিকোতে বন্দুক হামলা
অগ্নিকাণ্ডের শিকার পুলিশের গাড়ি। (ছবিসূত্র : রয়টার্স)

উত্তর আমেরিকার দেশ মেক্সিকোতে বন্দুকধারীদের অতর্কিত হামলায় শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত অন্তত ১৪ পুলিশ নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আরও কমপক্ষে তিনজন গুরুতর আহত হন। সোমবার (১৪ অক্টোবর) স্থানীয় সময় বিকালে দেশটির মিশোকান প্রদেশের এল আগুয়াজে এলাকায় মর্মান্তিক এ হামলাটি ঘটে। 

সূত্রের বরাতে মার্কিন গণমাধ্যম ‘দ্য ওয়াশিংটন পোস্ট’ জানায়, ঘটনার দিন আদালতের একটি রায় নিয়ে থানায় ফেরার সময় পুলিশের ওপর সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা হামলাটি চালায়। তখন বন্দুকধারীদের বেশ কয়েকটি পিকআপ নিয়ে পুলিশের গাড়িকে চারিদিক থেকে ঘিরে ফেলে। মূলত এর পরপরই ভারী অস্ত্র দিয়ে এলোপাতাড়ি গুলি চালাতে শুরু করে তারা। 

এক পর্যায়ে গাড়িগুলোতে অগ্নিকাণ্ড ঘটিয়ে হামলাকারীরা দ্রুত ঘটনাস্থল ত্যাগ করে। পরবর্তীতে পুলিশের অন্তত ১৪ সদস্যকে মৃত এবং আরও কমপক্ষে তিনজনকে গুরুতর জখম অবস্থায় উদ্ধার করা হয়।

পুলিশের দাবি, মর্মান্তিক এ হামলার সঙ্গে জালিস্কো নুয়েভা জেনারেসন কারটেল (সিজেএনজি) নামে একটি শক্তিশালী মাফিয়া গ্রুপ জড়িত। কেননা ঘটনাস্থলে ফেলে যাওয়া একটি চিরকুট থেকে ঘটনায় তাদের জড়িত থাকার বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া যায়।

এ দিকে মেক্সিকান প্রেসিডেন্ট আন্দ্রেস ম্যানুয়েল লোপেজ এরই মধ্যে মর্মান্তিক এ হামলার ঘটনার তীব্র নিন্দা প্রকাশ করেছেন। একই সঙ্গে তিনি জানিয়ে সাধারণকে শান্ত থাকার আহ্বানও জানিয়েছেন। লোপেজ বলেন, ‘আপনারা কখনোই আগুন দিয়ে আগুন নেভাতে পারবেন না। সহিংসতার বিরুদ্ধে লড়াই কোনোদিন সহিংসতা দিয়ে সম্ভব নয়।’ 

মেক্সিকান প্রেসিডেন্টের ভাষায়, ‘শয়তানের বিরুদ্ধে লড়াই শয়তান দিয়ে হয় না; আপনি যদি শয়তানের বিরুদ্ধে লড়তে চান তাহলে সৃষ্টিকর্তার নির্দেশনা মোতাবেক লড়াই করুন।’

অপর দিকে বিশ্লেষকদের মতে, এল আগুয়াজে এলাকাটি মূলত মাদক কারবারি এবং মাফিয়াদের কাছে স্বর্গভূমি। সেখানে সিজেএনজি এবং লস ভিয়াগ্রাস নামে বড় দুটি গ্রুপের মধ্যে প্রায়শই এমন সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

আরও পড়ুন :- কুর্দিরা আইএস বন্দিদের মুক্তি দিচ্ছে, দাবি ট্রাম্পের

এর আগে চলতি বছরের আগস্টে মিশোকানের একটি ব্রিজে একসঙ্গে নয়টি মরদেহ ঝুলন্ত অবস্থায় পাওয়া যায়। আর তখন সড়কে পাওয়া যায় আরও সাতটি মৃতদেহ।

 

ওডি/কেএইচআর

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মো: তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড