• শুক্রবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৫ আশ্বিন ১৪২৬  |   ৩৩ °সে
  • বেটা ভার্সন

আলিমদের বিভিন্ন পেশায় যুক্ত হওয়ার আহ্বান দেওবন্দ প্রধান মুহাদ্দিসের

  ধর্ম ও জীবন ডেস্ক

১২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১৩:৪১
Dewband_odhikar
ছবি : দারুল উলুম দেওবন্দ, ভারত।

বর্তমানে রোজগারের জন্য শিক্ষকতা কিংবা ইমামতির পাশাপাশি কোনো ব্যবসা-বাণিজ্যে জড়ানো অনেকেই খারাপ মনে করে থাকেন। ভাবেন, আলেম মানেই শুধু মাদরাসা, মসজিদ, খানকা নিয়েই পড়ে থাকা। সাধারণের পাশাপাশি আলেমরাও এখন এমন ধারণা পোষণ করে বসেছেন। অথচ নিজ হাতে জীবিকা উপার্জন করা একটা উত্তম কাজ। এটা তাকওয়া, পরহেজগারিতার বিপরীত কোনো বিষয় নয়। বুখারির ২৭৮ নম্বর পৃষ্ঠায় এ সম্পর্কে একটি স্বতন্ত্র অধ্যায়ও রয়েছে।

তাছাড়া নবি-রাসুল, সাহাবা আজমাইন ও পূর্ববর্তী মহা-মনীষিদের প্রায় প্রত্যেকেই ধর্মীয় কাজের পাশাপাশি সংসার পরিচালনার জন্য কোনো একটি পেশা বা কাজ বেছে নিয়েছিলেন। দাউদ (আ.) রাষ্ট্র পরিচালনার পাশাপাশি লৌহবর্ম তৈরি করতেন। সুলাইমান (আ.) ঝুড়ি বানাতেন। রাসুল (সা.) ও তার সাহাবাগণ অনেকেই বিভিন্ন ধরনের ব্যবসা-বাণিজ্যে জড়িত ছিলেন।

এই তো কয়েক শতাব্দী আগেও বাদশাহ আওরঙ্গজেব নিজ হাতে কুরআন শরিফ লিপিবদ্ধ করে বিক্রি করতেন। আজও দারুল উলুম দেওবন্দের কুতুবখানায় তার হাতে লেখা কুরআনে কারিমের সেই কপি বিদ্যমান।

দারুল উলুম দেওবন্দ প্রতিষ্ঠার আগে শাইখুল ইসলাম মাওলানা কাসেম নানুতুবি রহ. মিরাঠের একটি ছাপাখানায় প্রুফ রিডিংয়ের কাজ করতেন। দেওবন্দ প্রতিষ্ঠার পর তা ছেড়ে দেওয়ার তাগাদা দিয়ে চিঠি দেওয়া হলো। তিনি আরজ করলেন, ‘সব ছেড়ে দিলে আমার পরিবারের খরচ বহন করব কী করে!’ তাহলে কি তার মাঝে কোনো তাকওয়া, পরহেজগারিতা ছিল না? অবশ্যই ছিল। অধিক তাকওয়ার ফলেই দারুল উলুম দেওবন্দ থেকে তিনি কোনো দিনও বেতন গ্রহণ করতেন না।

বর্তমানে আমাদের পথপ্রদর্শক দারুল উলুম দেওবন্দের আসাতিজায়ে কেরাম অধ্যাপনার পাশাপাশি কোনো না কোনো ব্যবসার সঙ্গে জড়িয়ে আছেন। আমি নিজেও বহুদিন কুতুবখানায় কাজ করেছি। ছাপানো, বাইন্ডিং সব নিজ হাতে করেছি। কারো সহযোগিতা নেইনি কখনো। দারুল উলুম দেওবন্দ থেকে ভাতা গ্রহণ করে আবার লিল্লাহ ফান্ডে ওয়াকফ করে দিই আজ অবধি।

আলেমরা মাদরাসা-মসজিদ, মক্তব, খানকা সবই দেখবেন। পাশাপাশি প্রয়োজনমাফিক জীবিকা উপার্জনের জন্য যেকোনো একটি কাজে লেগে যাবেন। তবে খেয়াল রাখতে হবে, যেন ধর্মীয় কাজে কোনো ব্যাঘাত না ঘটে। আর মাদরাসা ও মসজিদ থেকে যা পাবে, তাকে গনিমত মনে করা চাই। পড়া, পড়ানো, খাওয়া, ঘুম ছাড়া আমাদের হাতে যথেষ্ট সময় থাকে। সে সময়টা অযথা নষ্ট না করে উপার্জনের উদ্দেশ্যে কোনো না কোনো কাজে ব্যয় করা উচিত।

কাগজ কিনে লেখালেখি করা বা সেলাই মেশিন কিনে ঘরে বসে কাজ করা চাই। এতটুকু শ্রমও সংসার পরিচালনার জন্য যথেষ্ট। প্রথম তো আসবাব গ্রহণ করতে হবে আমায়। তারপর না হয় তাওয়াক্কুলের পর্ব। তিরমিযি শরিফের একটি হাদিসে রয়েছে, এক সাহাবি রাসুল সা.-কে জিজ্ঞেস করলেন, ‘ইয়া রাসুলাল্লাহ! আমরা কি উটের রশি ছেড়ে দিয়ে তার ওপর ভরসা করব?’ রাসুল (সা.) বললেন, ‘আগে উটের রশি শক্ত করে বাঁধো, তারপর ভরসা করো।’ 

এ কারণে প্রথমে আসবাব এখতিয়ার করা দোষণীয় নয়, বরং আমরা আমাদের আকাবিরদের থেকেও এ শিক্ষাই পাই। এজন্য জীবিকার উদ্দেশ্যে শুধু মাদরাসায় পড়ানো বা মসজিদে ইমামতি করার ওপর ভরসা করা উচিত নয়। এতে কোনো বুজুর্গি নেই; বরং নিজ হাতে উপার্জন করে বৈধপন্থায় সম্মানের সঙ্গে জীবন যাপন করাই মুমিনের উত্তম কাজ।

সম্প্রতি নবীন আলিমদের এক অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মো: তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড