• মঙ্গলবার, ২০ আগস্ট ২০১৯, ৫ ভাদ্র ১৪২৬  |   ২৯ °সে
  • বেটা ভার্সন

লিবিয়ায় গাড়িবোমা হামলায় জাতিসংঘের ২ কর্মকর্তার মৃত্যু

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক

১১ আগস্ট ২০১৯, ১২:২৭
লিবিয়ায় গাড়ি বোমা হামলা
লিবিয়ায় বোমা হামলায় বিধ্বস্ত গাড়ির ধ্বংসাবশেষ। (ছবিসূত্র : দ্য গার্ডিয়ান)

আফ্রিকার উত্তরাঞ্চলীয় দেশ লিবিয়ার বেনগাজি শহরে শক্তিশালী এক গাড়ি বোমা বিস্ফোরণে শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত জাতিসংঘের অন্তত দুই কর্মকর্তার মৃত্যু হয়েছে। দেশটির সরকারি সূত্রের বরাতে মর্মান্তিক এ হামলার তথ্য নিশ্চিত করেছে ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা 'রয়টার্স'। 

কর্তৃপক্ষের দাবি, শনিবার (১০ আগস্ট) স্থানীয় সময় দুপুরে পরিকল্পিতভাবে হামলাটি চালানো হয়। জাতিসংঘ দীর্ঘদিন যাবত দেশটিতে চলমান গৃহযুদ্ধের অবসানের লক্ষ্যে চূড়ান্ত একটি শান্তি চুক্তি স্বাক্ষরের জন্য মধ্যস্থতার চেষ্টা করে যাচ্ছে।

বিশ্লেষকদের মতে, জীবন যাত্রার মানের দিকে থেকে তেল সমৃদ্ধ এই দেশটি এক সময় গোটা আফ্রিকার মধ্যে শীর্ষ স্থানে ছিল। তাছাড়া স্বাস্থ্য ও শিক্ষা ছিল রাষ্ট্রটির প্রধান স্তম্ভ। তবে যে রাজনৈতিক ও সামাজিক স্থিতিশীলতা ঐ সকল ঐশ্বর্যকে নিশ্চিত করেছিল, সেটি সম্পূর্ণভাবে নষ্ট হয়ে যায় ২০১১ সালে যখন পশ্চিমা সমর্থিত বিদ্রোহীদের হাতে কর্নেল মুয়াম্মার গাদ্দাফির পতনের মাধ্যমে। 

মূলত এরপর থেকে লিবিয়ায় শুরু হয় এক সীমাহীন সংঘাত। গাদ্দাফিকে ক্ষমতাচ্যুতের পর তাকে হত্যা করে বিদ্রোহীরা। যে কারণে পরবর্তীতে দেশটিতে শান্তি নিশ্চিত করতে রাজধানী ত্রিপোলিতে গঠন করা হয় জাতিসংঘ সমর্থিত একটি সরকার। ক্ষমতায় থাকা সেই কর্তৃপক্ষকে বর্তমানে জাতীয় ঐকমত্যের সরকার বা জিএনএ নামে অভিহিত করা হয়। 

যদিও দেশটির বেশিরভাগ অঞ্চলের নিয়ন্ত্রণ এখনো বিভিন্ন বিদ্রোহী গোষ্ঠীগুলোর হাতেই রয়ে গেছে। গোটা পশ্চিমাঞ্চলে জিনএনএ বাহিনীর কর্তৃত্ব থাকলেও পূর্ব ও দক্ষিণাঞ্চলের বেশিরভাগ এলাকা হাফতার বাহিনী (এলএনএ) দখল করে রেখেছে। এসবের প্রেক্ষিতে গত এপ্রিল থেকে বিদ্রোহী এ বাহিনীটি লিবিয়ায় আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত সরকারের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করে।

যার অংশ হিসেবে গত শনিবার (১০ আগস্ট) বেনগাজি শহরে একটি ব্যাংক ও শপিং মলের সামনে এই হামলার ঘটনা ঘটে। বিস্ফোরণের সময়ই গাড়িতে পুরে জাতিসংঘের এক কর্মীর মৃত্যু হয়। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের বরাতে বার্তা সংস্থা 'রয়টার্সে'র এক প্রতিবেদক বলেন, 'বেনগাজির একটি সরকারি হাসপাতালে থাকা ওই দুই মরদেহ পরিদর্শনের পর নিশ্চিত হওয়া গেছে যে, তারা লিবিয়ায় জাতিসংঘ মিশনের সদস্য। যাদের মধ্যে একজন বিদেশি নাগরিক আছেন।'

এ দিকে হামলার সময়ই পবিত্র ঈদুল আজহাকে সামনে রেখে সব ধরনের সামরিক অভিযান স্থগিতের ঘোষণা দিয়েছিলেন এলএনএ কমান্ডার খলিফা হাফতার। যা আগামী মঙ্গলবার (১৩ আগস্ট) পর্যন্ত কার্যকর থাকবে বলেও ঘোষণায় জানানো হয়।

আরও পড়ুন :- সৌদির বিমানবন্দরে হুথিদের ড্রোন হামলা

অপর দিকে লিবিয়ায় থাকা জাতিসংঘ মিশনের মুখপাত্র জিন এল আলম বলেন, 'আমরা সকল তথ্য সংগ্রহের প্রক্রিয়ায় রয়েছি। হামলাটি ছিল পরিকল্পিত; যদিও শহরে এখন যুদ্ধ বিরতি অবস্থা চলছে। তবে তারা তা মানেনি।'

ওডি/কেএইচআর

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মোঃ তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮-২০১৯

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড