• রবিবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬  |   ২১ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

সেনাবাহিনীর সমালোচনা করে মিয়ানমারের চলচ্চিত্র নির্মাতা অভিযুক্ত

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক

১৯ জুলাই ২০১৯, ১৫:০৬
মিয়ানমারের চলচ্চিত্র নির্মাতা
মিয়ানমারের চলচ্চিত্র নির্মাতা মিন হতিন কো কো গেয়ি। (ছবিসূত্র : রয়টার্স)

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে মিয়ানমার সেনাবাহিনীকে নিয়ে সমালোচনা সূচক পোস্ট দেওয়ায় মিন হতিন কো কো গেয়ি নামে এক চলচ্চিত্র নির্মাতাকে অভিযুক্ত করেছে আদালত। বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) ক্যানসার আক্রান্ত এ ব্যক্তির শারীরিক অবস্থা ও মানবাধিকার সংগঠনগুলোর ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া উপেক্ষা করে ইয়াঙ্গুনের ইনসেইন টাউন শিপ আদালতের বিচারক তাকে অভিযুক্ত করেন।

পরিচালক মিন হতিন আন্তর্জাতিক মানবাধিকার বিষয়ক একটি চলচ্চিত্র উৎসব পরিচালনা করেন। সম্প্রতি এক সেনা কর্মকর্তার করা অভিযোগের ভিত্তিতে গত তিন মাস আগে তাকে গ্রেফতার করা হয়। সেই সেনা কর্মকর্তা তার অভিযোগের পক্ষে প্রমাণ হিসেবে হতিনের দেওয়া মোট ১০টি ফেসবুক পোস্টকে উপস্থাপন করেন। 

যেখানে দেখা যায়, হতিন দেশের রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে সেনা সদস্যদের হস্তক্ষেপ এবং ২০০৮ সালে মিয়ানমারে প্রণীত সংবিধান নিয়ে সমালোচনা করেছেন। সেনাবাহিনী প্রণীত সেই সংবিধান বর্তমানে সংশোধনের জোর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন দেশটির রাষ্ট্রীয় উপদেষ্টা ও শান্তিতে নোবেল জয়ী নেত্রী অং সান সু চি।

এ দিকে মিয়ানমারের পেনাল কোডের ৫০৫ (এ) ধারা অনুযায়ী পরিচালক হতিনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করা হয়েছে। আইনের এই ধারাটিতে বলা আছে, কোনো ব্যক্তি বা গোষ্ঠীর বক্তব্য যদি দেশের সেনাবাহিনী অথবা অন্য সরকারি কর্মকর্তাদের বিদ্রোহে প্ররোচিত কিংবা হেয় প্রতিপন্ন করে অথবা তাকে কর্তব্য পালনে বাধা দেয় তাহলে ওই মন্তব্যকারীকে সর্বোচ্চ দুই বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হবে। 

যদিও পরিচালক হতিন তার বিরুদ্ধে আনীত সকল অভিযোগ এরই মধ্যে নাকচ করে নিজেকে নির্দোষ বলে দাবি করেছেন। তবে গত বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) প্রাথমিক শুনানিতে ইনসেইন টাউন শিপ আদালতের বিচারক বলেছেন, 'হতিনের পোস্টগুলোর বেশিরভাগই দেশের সেনা সদস্যদের জন্য সম্মান হানিকর।'

পরবর্তীতে সেই ফেসবুক পোস্টগুলোর জন্য চলচ্চিত্র নির্মাতা হতিনের বিরুদ্ধে দেশের টেলিযোগাযোগ আইনের আওতায় আলাদা একটি মানহানির মামলা দায়ের করা হয়। যদিও গত বৃহস্পতিবারের রুলের পর সাংবাদিকদের কাছে এ চলচ্চিত্র নির্মাতা নিজের পক্ষে কিছু যুক্তি তুলে ধরেন।

আরও পড়ুন :- মালয়েশিয়া ছাড়তে অবৈধ অভিবাসীদের করা হচ্ছে সাধারণ ক্ষমা

যেখানে তিনি বলেন, 'সেনাবাহিনীর ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ করা বা তাদেরকে অসম্মান করার মতো কোনো ইচ্ছাই আমার ছিল না।'

ওডি/কেএইচআর

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন সজীব 

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড