• শুক্রবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৯, ১ অগ্রহায়ণ ১৪২৬  |   ৩০ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

প্রবাসীদের নাগরিকত্ব লাভের সুযোগ দিচ্ছে সৌদি

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক

২৪ জুন ২০১৯, ১৬:১৭
যুবরাজ সালমান
সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান। (ছবিসূত্র : সৌদি গেজেট)

তেল রপ্তানির ওপর সম্পূর্ণ নির্ভরতা কমিয়ে ভিন্ন খাতে অর্থনৈতিক অগ্রগতি বৃদ্ধির জন্য বিভিন্ন ধরনের সামাজিক ও অর্থনৈতিক সংস্কারে কাজ করছে মধ্যপ্রাচ্যের অন্যতম কট্টরপন্থী দেশ খ্যাত সৌদি আরব। যার অংশ হিসেবে যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের নেতৃত্বে 'ভিশন-২০৩০' নামে একটি সংস্কার কাজ চালাচ্ছে সরকার।

মূলত দেশের অর্থনৈতিক চাকা সচলের জন্য এবার বিশ্বের ধনাঢ্য ও সম্পদশালী প্রবাসীদের টানতে এক বিশেষ প্রকল্প চালু করেছে সৌদি। গত রবিবার (২৩ জুন) থেকে চালু হওয়া এই আবাসন প্রকল্পকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের গ্রিন কার্ডের একটি অনুরূপ হিসেবে দেখা হচ্ছে। যার মাধ্যমে সৌদি আরবের নাগরিকত্ব পাবেন বিশ্বের বিভিন্ন ধনী প্রবাসীরা।

কর্তৃপক্ষের বরাতে বার্তা সংস্থা 'এএফপি' জানায়, আবাসন প্রকল্পের অংশ হিসেবে এরই মধ্যে অনলাইনে আবেদন ফরম বিতরণ শুরু করেছে কর্তৃপক্ষ। যেখানে বলা হয়, সৌদি আরবে স্থায়ী নাগরিকত্ব পাওয়ার জন্য কেউ যদি আগ্রহী হন; তাহলে আবেদনকারীকে অবশ্যই একবারে ৮ লাখ সৌদি রিয়াল (বাংলাদেশি এক কোটি ৭৮ লাখ ৭৫ হাজার ৬৬ টাকা) ফি পরিশোধ করতে হবে। তাছাড়া এক বছরের জন্য নবায়ন যোগ্য আবাসিকতার ক্ষেত্রে আবেদনকারীকে দেওয়া লাগবে মোট এক লাখ রিয়াল (বাংলাদেশি ২২ লাখ ৬৫ হাজার ৮৫৩ টাকা)।

এ দিকে সৌদির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে বলা হয়, সরকারের এই আবাসন প্রকল্পের আওতায় প্রবাসীরা চাইলে কোনো ধরনের স্পন্সর ছাড়াই দেশটিতে ব্যবসা-বাণিজ্য পরিচালনা, সম্পত্তি ক্রয় ও স্বজনদের জন্য স্পন্সর ভিসা সংগ্রহ করতে পারবেন।

বিশ্লেষকদের দাবি, প্রকল্পটির মাধ্যমে সম্পদশালী আরব বংশোদ্ভূত ও দেশটির বহুজাতিক কোম্পানিগুলো ব্যাপকভাবে লাভবান হবে। তবে এর মাধ্যমে কেবল তারাই সবচেয়ে বেশি লাভবান হবেন যারা স্থায়ী আবাসন ছাড়াই বছরের পর বছর যাবত সৌদিতে বসবাসের মাধ্যমে দীর্ঘ মেয়াদে ব্যবসা পরিচালনা করতে চান।

মধ্যপ্রাচ্যের তেল সমৃদ্ধ রক্ষণশীল এই দেশটিতে বর্তমানে প্রায় এক কোটির মতো প্রবাসী শ্রমিকের অবস্থান। সৌদির মানবাধিকার কর্মীদের মতে, দেশটিতে এখনও বিভিন্ন ধরনের নিয়ম-নীতির বেড়াজালের মধ্যেই এসব শ্রমিকরা বসবাস করছেন। বাংলাদেশসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে যাওয়া শ্রমিকরা সাধারণত দেশটিকে সৌদি আরবের একজন নিয়োগকর্তার স্পন্সরে কাজ করেন। যে কারণে তাদের দেশ ত্যাগ এবং সৌদিতে ফেরার জন্য ভিসা পেতেও সেই স্পন্সরের অনুমতি প্রয়োজন।

আরও পড়ুন :- ধর্ষণ বন্ধে ভারতে গরু পূজা!

যদিও জীবন যাপনের জন্য ভয়াবহভাবে খরচ বাড়ায় সাম্প্রতিক বছরগুলোতে বিদেশি শ্রমিকদের সৌদি ত্যাগের ঢল ক্রমশ বৃদ্ধি পাচ্ছে। মূলত প্রবাসী শ্রমিকদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি খাত নির্দিষ্টের মাধ্যমে কর্মক্ষেত্র সীমিত করায় ও অতিরিক্ত ফি আরোপের ফলে দেশত্যাগীদের এই ঢল শুরু হয়। তাছাড়া সৌদি সরকার দেশটিতে বসবাসরত অবৈধ শ্রমিকদের আটকে কঠোর অভিযান পরিচালনা করছে; যে কারণে গত দুই বছরে প্রায় কয়েক লাখের মতো অবৈধ শ্রমিককে স্বেচ্ছায় নিজ দেশে ফিরে গিয়েছে।

ওডি/কেএইচআর

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মো: তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড