• শনিবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৬ আশ্বিন ১৪২৬  |   ৩০ °সে
  • বেটা ভার্সন

ওমান সাগরে তেলবাহী ট্যাঙ্কারে বিস্ফোরণ : ৫ম নৌবহর

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক

১৩ জুন ২০১৯, ১৪:০৯
তেলবাহী  ট্যাঙ্কার
ছবি : সংগৃহীত

ওমান সাগরের উপকূলীয় অঞ্চলে 'দুর্ঘটনায়' দুটি তেলবাহী ট্যাঙ্কার ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছে মার্কিন ৫ম নৌবহর। সন্দেহভাজন হামলার শিকার হতে পারে বলে দুর্ঘটনা কবলিত একটি জাহাজের কর্মীরা জানায়। এই ঘটনায় 'তদন্ত' শুরু হয়েছে বলে যুক্তরাজ্য নিশ্চিত করেছে। 

উপসাগরীয় এলাকা থেকে অপরিশোধিত দুটি তেল ট্যাঙ্কারকে ওমান সাগরে লক্ষ্যবস্তু করা হয়েছে বলে প্রাথমিক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে। সকালের দিকে প্রকাশিত ইরানি ও লেবাননের সংবাদপত্রের প্রাথমিক খবরে বলা হয়, ট্যাঙ্কারের বাহিরে থেকে দুটি বিস্ফোরণের শব্দ শোনা যায়। ওমান, পাকিস্তান ও সংযুক্ত আরব আমিরাতে বন্দরগুলো থেকে সাহায্যের আহ্বান জানানো হয়েছে।

মার্কিন নৌবাহিনীর পঞ্চম বহরটি নিশ্চিত করেছে যে, ওমান উপসাগরে 'দুর্ঘটনায়' দুটি তেল ট্যাঙ্কার ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এই বিষয়ে তারা এখনো বিস্তারিত তথ্য সরবরাহ করতে পারেনি। যুক্তরাজ্যের সামুদ্রিক দল ওমান উপসাগরে শুধু একটি অনিশ্চিত ঘটনার 'তদন্ত' করছিল বলেই জানায়।

দুর্ঘটনা কবলিত ট্যাঙ্কারদের একটি 'ফ্রন্ট আলটিয়ার' যা মার্শাল দ্বীপপুঞ্জের পতাকাঙ্কিত জাহাজ, এটি সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে তাইওয়ানের উদ্দেশে যাচ্ছিল। আরেকটি প্যানম্যানিয়ান-পতাকাঙ্কিত 'কোকুক কারেজিয়াস' নামের জাহাজ, যেটি সৌদি আরব থেকে সিঙ্গাপুর যাওয়ার কথা।

বার্তা সংস্থা 'রয়টার্স'র একটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে যে, দুটি ট্যাঙ্কার আগুনে পুড়ে গেছে এবং উভয় জাহাজের কর্মীদের উদ্ধার করা হয়েছে এবং তারা এখন নিরাপদ রয়েছে। ইরান ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে চরম উত্তেজনাপূর্ণ অবস্থার মধ্যেই এই দুর্ঘটনা ঘটল। গত মাসেও উপসাগরীয় দুইটি তেলবাহী জাহাজে হামলার ঘটনা ঘটে, যেখানে ইয়েমেনের ইরান সমর্থিত হুথি বিদ্রোহীরা হামলার দায় স্বীকার করেছিল।

গত মাসে সংযুক্ত আরব আমিরাতের উপকূলের নিকটবর্তী এলাকায় ৪টি তেলবাহী জাহাজে একটি 'গুপ্ত হামলা' হয়। হামলার শিকার জাহাজের দুটি ছিল সৌদি আরবের মালিকানাধীন। এই হামলার জন্যে ইরানকে দোষারোপ করা হয়েছে, যদিও ইরানের পক্ষ থেকে অভিযোগ অস্বীকার করা হয়েছে।

ঠিক এর একদিন পরেই, ইয়েমেনের ইরান সমর্থিত হুথি বিদ্রোহীরা দুটি সৌদি তেল সহায়তা কেন্দ্রস্থলকে  লক্ষ্য করে একটি ড্রোন হামলা চালায়।

২০১৮ সালের মে মাসে ২০১৫ সালে করা পারমাণবিক চুক্তি থেকে যুক্তরাষ্ট্র সরে যাওয়ার পর থেকেই ইরানের সঙ্গে তীব্র বিরোধিতা সৃষ্টি হয়েছে। ট্রাম্প প্রশাসনের পক্ষ থেকে ইরানের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়।
 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মো: তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড