• রবিবার, ১৬ জুন ২০১৯, ২ আষাঢ় ১৪২৬  |   ৩০ °সে
  • বেটা ভার্সন

নিউজিল্যান্ডের পার্লামেন্টে যৌন নির্যাতন

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক ২২ মে ২০১৯, ২০:৩৫

নিউজিল্যান্ড
নিউজিল্যান্ডের পার্লামেন্ট; (ছবি ; সংগৃহীত)

নিউজিল্যান্ডের পার্লামেন্টে কর্মরত নারী কর্মীরা বিভিন্নভাবে যৌন লাঞ্ছনার শিকার হচ্ছেন। পার্লামেন্টের এক স্বাধীন অনুসন্ধানী প্রতিবেদনে এমন চাঞ্চল্যকর তথ্য উঠে এসেছে। এই প্রতিবেদনে নাম না প্রকাশের শর্তে ৫৪ জন এই অভিযোগ করেছেন। বুধবার (২২ মে) এই তথ্য নিশ্চিত করে এক সাক্ষাৎকারে পার্লামেন্টের স্পিকার ত্রিভোর মাল্লার্ড বলেন, এমন অবস্থা সত্যিই 'অসহনীয়'। 'বিবিসি নিউজ'

১২০ পৃষ্ঠার ওই প্রতিবেদনে পার্লামেন্টে কর্মরত ৫৪ জন তাদের অভিযোগ দায়ের করেন যাদের মধ্যে ৫০ জনই বলেছেন তারা বহুবার বিভিন্নভাবে অনাকাঙ্ক্ষিত স্পর্শের শিকার হয়েছেন। এদের মধ্যে ১৪ জন আরও অভিযোগ তুলে বলেন, তারা সরাসরি যৌন নির্যাতনের শিকার হয়েছেন।

এমন অভিযোগের প্রেক্ষিতে গত ৫ মাস ধরে পার্লামেন্টের কর্মস্থলে তদন্ত ও নজরদারি করা দিব্বেই ফ্রানসিস বলেন, লাঞ্ছনা, নির্যাতন, তর্জন ও আগ্রাসী ব্যবহারের ঘটনা পার্লামেন্টে সত্যি ঘটে থাকে যা অনাকাঙ্ক্ষিত। 

এ সকল অভিযোগের মধ্যে ৩ জনের অভিযোগের মাত্রা আরও তীব্র ছিল এবং এদের প্রত্যেকের অভিযোগ ছিল পার্লামেন্টের নির্দিষ্ট এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার প্রতি। এই অভিযোগের বিষয়ে দেশটির এক রেডিও সাক্ষাৎকারে মি. মাল্লার্ড বলেন, আমরা একটি মারাত্মক যৌন লাঞ্ছনার ব্যাপারের কথা বলছি এবং প্রতিবেদনে উল্লিখিত ঘটনাগুলো আমার কাছে ধর্ষণের সমপর্যায়ের মনে হয়েছে। এই প্রতিবেদনটি পড়ে আমার কাছে মনে হয়েছে অভিযুক্ত ওই ব্যক্তি এখনো পার্লামেন্টে কর্মরত আছেন।

যৌন নির্যাতনের এই প্রতিবেদনের বিষয় নিয়ে ইতোমধ্যেই স্পিকার মি. মাল্লার্ড এবং অন্যান্য দলীয় নেতাদের সাথে আলোচনা করেছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ডা আর্ডার্ন। জেসিন্ডা আর্ডার্ন বলেন, পার্লামেন্ট হওয়া উচিত এমন একটি নিরাপদ জায়গা যেখানে সম্মান ও আত্মমর্যাদার সাথে মানুষের সাথে আচরণ করা হবে। তবে, সর্বপ্রথমে আমাদের উচিত লাঞ্ছনার শিকার হওয়া কর্মকর্তাদের প্রয়োজনীয় সকল সহযোগিতা প্রদান করা।

বুধবার (২২ মে) নিউজিল্যান্ডের পার্লামেন্টারি সার্ভিস থেকে এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, যৌন নির্যাতনের অভিযোগ এবং এর প্রমাণ সাপেক্ষে আগেও এক কর্মকর্তাকে বরখাস্ত করা হয়েছিল। এমন অভিযোগের তদন্ত আগেও করা হয়েছে। তবে নতুন করে আবার অভিযোগ আসায় এই তদন্ত প্রতিবেদন করা হয়েছে।

ওডি/কেএম 

     

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মোঃ তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮-২০১৯

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড