• বৃহস্পতিবার, ২২ আগস্ট ২০১৯, ৭ ভাদ্র ১৪২৬  |   ২৮ °সে
  • বেটা ভার্সন

'যুক্তরাষ্ট্র এক অত্যন্ত 'বিপজ্জনক' খেলা শুরু করেছে'

'তেহরানকে শ্রদ্ধা না করলে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে কোনো আলোচনা নয়'

'যদি ইরান যুদ্ধ করতে চায়, এটি হবে ইরানের আনুষ্ঠানিক সমাপ্তি'

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক

২১ মে ২০১৯, ১৯:৩৬
ইরান-যুক্তরাষ্ট্র দ্বন্দ্ব
ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মদ জাওয়াদ জারিফ; ছবি : সিএনএন

বিতর্কিত পারমাণবিক চুক্তির অঙ্গীকারের আওতায় মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প যদি তেহরানের প্রতি যথাযথ 'শ্রদ্ধা' প্রদর্শন না করে তাহলে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে কোনো ধরনের আলোচনায় বসতে রাজি নয় ইরান। মার্কিন বার্তা সংস্থা 'সিএনএন' এর কাছে দেয়া এক বিশেষ সাক্ষাৎকারে ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মদ জাওয়াদ জারিফ যুক্তরাষ্ট্রকে সতর্ক করে বলেন, এই অঞ্চলে সামরিক উপস্থিতি বাড়ানোর মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্র এক 'অত্যন্ত বিপজ্জনক খেলা' আরম্ভ করেছে।

জারিফ মার্কিন উপসাগরীয় অঞ্চলে মার্কিন রণতরী আব্রাহাম লিঙ্কন ক্যারিয়ার স্ট্রাইক গ্রুপ এবং একটি বোমারু টাস্ক ফোর্স পাঠানোর সমালোচনা করেন। জারিফ বলেন, 'এমন এক ক্ষুদ্র এলাকায় এসব সামরিক অস্ত্র দুর্ঘটনার প্রবণতাকেই ত্বরান্বিত করছে, এখানে অত্যন্ত প্রজ্ঞার প্রয়োজন এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র একটি খুব, খুবই বিপজ্জনক খেলা খেলছে।'

ইরানের ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়ার শর্তে ইরানের পারমাণবিক লক্ষ্যে করা যৌথ পরিকল্পনা বা জেসিপিওএ এর ২০১৫ সালের চুক্তিটি থেকে প্রথম যুক্তরাষ্ট্রের নাম প্রত্যাহার করার দায়ে জারিফ ওয়াশিংটনকেই দোষারোপ করছে। জারিফ এই চুক্তির বিষয়ে বলেন, 'আমরা দৃঢ় বিশ্বাসে কাজ করেছি যা ছিল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ইরান, ব্রিটেন, চীন, ফ্রান্স, জার্মানি এবং রাশিয়া দ্বারা স্বাক্ষরিত একটি চুক্তি। আমরা তাদের প্রতিশ্রুতি ভঙ্গকারীদের সঙ্গে কথা বলতে ইচ্ছুক নই।'

চলতি মাসের শুরুতে ট্রাম্প বলেন, ইরানের উচিত 'আমাকে আহ্বান করা'। কিন্তু রবিবার (১৯ মে) রাষ্ট্রপতির বক্তব্য পরিস্থিতি কঠোরতর করে তুলেছিল। এক টুইটে ট্রাম্প বলেন, 'যদি ইরান যুদ্ধ করতে চায়, এটি হবে ইরানের আনুষ্ঠানিক সমাপ্তি। আর কখনোই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে হুমকি দিও না!'

ইরান এমন হুমকিতে মাথা নত করবে না বলে জানিয়ে জারিফ বলে, 'ইরান কখনো জবরদস্তি করে আপোষ করে না। আপনি ইরানিদের হুমকি দিয়ে তাদের সাথে যুক্ত হওয়ার আশা করবেন না। শ্রদ্ধার মাধ্যমে এটি করতে হবে, হুমকির মাধ্যমে নয়।'

সোমবার (২০ মে) ন্যাটানজ পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের একজন কর্মকর্তাকে উদ্ধৃত করে 'তাসনিম নিউজ এজেন্সি' জানায়, ইরান কম সক্ষমতার ইউরেনিয়াম উৎপাদনের হার দ্বিগুণ করেছে। আর এর পরেই জারিফের এমন মন্তব্য আসে।

উৎপাদনের মাত্রা বাড়ানোর মাধ্যমে শিগগিরই ইরান ৩০০ কিলোগ্রামের থ্রেশহোল্ড নির্মাণ করতে পারে যা ২০১৫ সালে করা পারমাণবিক চুক্তির শর্ত অতিক্রম করতে পারে। দেশটির বর্তমান স্টকপাইলের বিস্তারিত না জেনে এ ব্যাপারে নিশ্চিত কিছু জানা সম্ভব নয়। এমনকি এসব তথ্যের পরিপ্রেক্ষিতে ঠিক কখন থ্রেশহোল্ড চুক্তি লঙ্ঘন করা হবে তার ভবিষ্যদ্বাণী করা কঠিন।

চুক্তির আওতায় ইরান কেবলমাত্র ৩ দশমিক ৬৭ শতাংশ ইউরেনিয়াম বৃদ্ধি করতে পারবে যা একটি পাওয়ার প্ল্যান্টের জন্য উপযুক্ত। অস্ত্র নির্মাণের জন্য যা ৯০ শতাংশের চেয়েও কম। যুক্তরাষ্ট্র পিছু হটার পর ইরান এই মাসের শুরুতে ঘোষণা করে যে, তারাও আংশিকভাবে চুক্তি থেকে নিজেদের নাম প্রত্যাহার করছে। 'সিএনএন'

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মোঃ তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮-২০১৯

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড