• শনিবার, ২৫ মে ২০১৯, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬  |   ২৬ °সে
  • বেটা ভার্সন

নারী মুসলিম ডেমোক্র্যাটদের হত্যার হুমকিদাতা গ্রেফতার

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক ২০ এপ্রিল ২০১৯, ১৩:৩৭

যুক্তরাষ্ট্রের মুসলিম আইন প্রণেতা
হত্যার হুমকি পাওয়া যুক্তরাষ্ট্রের মুসলিমসহ ডেমোক্র্যাট আইন প্রণেতারা। (ছবিসূত্র : দ্য ওয়াশিংটন টাইমস)

মার্কিন কংগ্রেসের বেশ কয়েকজন ডেমোক্র্যাট আইন প্রণেতাকে ভয়েস মেইলে হত্যার হুমকিসহ বিভিন্ন ইসলামফোবিক বার্তা ছড়িয়ে দেওয়ার অভিযোগে একজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। শুক্রবার (১৯ এপ্রিল) দক্ষিণ পূর্বাঞ্চলের রাজ্য ফ্লোরিডা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম ‘আল-জাজিরা’ জানায়, জন ক্যালিস নামে ৪৯ বছর বয়সী সেই অভিযুক্ত বিভিন্ন সময় ক্যালিফোর্নিয়ার আইন প্রণেতা এরিচ সোয়ালওয়াল, ডেট্রয়েটের প্রথম নারী মুসলিম কংগ্রেস ম্যান রাশিদা তালিব এবং নিউ জার্সি সিনেটর কোরি বুকারের ভয়েস মেইলে হত্যার হুমকি দিয়েছিলেন। তাছাড়া তিনি অপর এক বার্তায় আরেক মুসলিম নারী কংগ্রেস সদস্য ইলাহান ওমরকেও হুমকি দিয়েছেন।

তালিব এবং ওমর কংগ্রেসের প্রথম দুই মুসলিম নারী। তাছাড়া নিউ জার্সি সিনেটর বুকার একজন আফ্রিকান আমেরিকান। তিনি বর্তমানে সোয়েলওয়েল ডেমোক্র্যাটিক পার্টি থেকে আগামী ২০২০ সালের মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে মনোনয়ন লাভের জন্য দৌড়েছেন।

ক্যালিস তার বর্ণবাদী বার্তাটিতে বুকারকে বলেছিলেন যে, ‘আপনি একজন সরকারি কর্মকর্তা। যে কারণে আপনাকে সেই কবরগুলোর ভেতরে থাকতে হবে। যেখানে আপনি... অন্তর্গত।’

এদিকে মার্কিন গণমাধ্যমের দাবি, অভিযুক্ত ক্যালিস ২০১৭ সালের আগস্ট মাসে দেশটির গণজাগরণ মঞ্চের এক দলকে তার গাড়িতে হামলা চালানোর জন্য অভিহিত করেছিলেন। তখন যদিও ৩২ বছর বয়সী হিথার হিয়ারকে হত্যা করা হয়েছিল।

অপরদিকে ক্যালিস তার সেই বার্তায় সম্প্রতি দেশটিতে চলমান বিতর্কের কথা উল্লেখ করে সাবেক শরণার্থী ওমরকেও জাতিগতভাবে অপব্যবহার করা হচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন। যা ক্ষমতাসীন দল মার্কিন ডেমোক্র্যাটসহ ওমর এবং তার সমর্থকরা পুরোপুরি অস্বীকার করেছেন। তবে স্থানীয় সংবাদমাধ্যমের মতে, ক্যালিস এক বার্তায় বলেছিলেন যে; ‘আমি ওমরকে এম্পায়ার স্টেট বিল্ডিংয়ে বন্ধ করে রাখতে চাই।’

ফ্লোরিডা পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয়, ক্যালিস সেই ব্যক্তি যিনি তার এই বার্তাগুলোতে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রতিরক্ষা করতে চেয়েছিলেন। একইসঙ্গে অচিরেই প্রেসিডেন্টের বিরুদ্ধে সমালোচনা বন্ধ করার জন্য মার্কিন রাজনীতিবিদদের সতর্ক করেছিলেন। যে কারণে তার বিরুদ্ধে হত্যার হুমকিসহ নানা অভিযোগ আরও করা হচ্ছে।

যুক্তরাষ্ট্রের অনেক বিশ্লেষকই মার্কিন প্রেসিডেন্টের উষ্ণ তাত্ত্বিক প্রসঙ্গ সম্পর্কে সমালোচনা করেছেন। তাদের মতে, বিষাক্ত বায়ুমণ্ডলের অনুঘটক হিসাবে ট্রাম্প তার এই আচরণকে উৎসাহিত করছেন। যদিও হোয়াইট হাউস এই এসব অভিযোগকে পুরোপুরি প্রত্যাখ্যান করেছে।

এর আগে গত বছর এন্টি-ডেফ্যামেশন লিগ বলেছিল, অপরাধীরা অন্তত ৫০টির বেশি হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে। বর্তমানে তাদের সনাক্তের মাধ্যমে আইনের আওতায় আনার প্রক্রিয়া চলছে। তবে ওয়াচডগের মতে, ১৯৯৫ সাল থেকে এ পর্যন্ত মোট জনসংখ্যার বড় একটা অংশ নিহত হয়েছে।

সম্প্রতি প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ওমরের একটি ভিডিও টুইট করেছেন। যেখানে ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারের ফুটেজকে তার মন্তব্যের সাথে যুক্ত করা হয়েছে। ৯/১১ হামলার গ্লিব হিসাবে তার দৃষ্টিভঙ্গিকে চিত্রিত করার প্রসঙ্গ তুলে ধরা হয়েছে।

এসবের প্রেক্ষিতে ওমর বলেন, ‘প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ভিডিওটি শেয়ার করার পর থেকে আমাকে হত্যার হুমকিগুলোর সংখ্যা ক্রমশ বৃদ্ধি পাচ্ছে।’

আরও পড়ুন :- যুক্তরাজ্যে দাঙ্গায় নারী সাংবাদিকের মৃত্যু

যদিও মার্কিন প্রসিকিউটরদের দাবি, ক্যালিস তার পাঠানো বার্তায় সোয়ওয়ালকে হোমোফোবিক শ্লোগান ব্যবহার করেছিলেন। যিনি একই লিঙ্গের বিয়ে অধিকার এবং বন্দুক নিয়ন্ত্রণকে সমর্থন করেন।

ক্যালিস বলেছিলেন, ‘যে দিন তুমি আমার বন্দুকের সামনে আসবে... সে দিন তুমি মারা যাবে।’

ওডি/কেএইচআর

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মোঃ তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮-২০১৯

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড