• বুধবার, ১৭ জুলাই ২০১৯, ২ শ্রাবণ ১৪২৬  |   ৩০ °সে
  • বেটা ভার্সন

ইসলাম বিদ্বেষীদের বিরুদ্ধে তুর্কি প্রেসিডেন্টের যুদ্ধের ডাক

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক

২৩ মার্চ ২০১৯, ১৬:১৩
এরদোগান
তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোগান। (ছবিসূত্র : রয়টার্স)

গোটা বিশ্বে ক্রমবর্ধমান ইসলাম বিদ্বেষের বিরুদ্ধে এবার লড়াইয়ের ডাক দিয়েছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোগান। নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চ হামলায় হতাহতের প্রেক্ষিতে এ ঘোষণা দিলেন তিনি।

শুক্রবার (২২ মার্চ) তুরস্কের ইস্তাম্বুলে ইসলামী সম্মেলন সংস্থার (ওআইসি) বৈঠকে প্রেসিডেন্ট এরদোগানের দেওয়া বক্তব্যের বরাতে করা প্রতিবেদনে এ তথ্য নিশ্চিত করেছে কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরা।

ওআইসির এক জরুরি বৈঠকে তুর্কি প্রেসিডেন্ট বলেন, ‘হলোকাস্ট গণহত্যার পর মানবতার জন্য ইহুদী বিদ্বেষীদের বিরুদ্ধে যেভাবে লড়াই করা হয়েছে, ঠিক সেভাবে বিশ্বে ক্রমবর্ধমান ইসলাম বিদ্বেষের বিরুদ্ধে আমাদের লড়াই করা উচিত।’

ইস্তাম্বুলে ওআইসির সদস্যভূক্ত দেশগুলোর পররাষ্ট্র মন্ত্রীদের সঙ্গে তুর্কি প্রেসিডেন্ট এরদোগান এক আনুষ্ঠানিক বৈঠকে অংশ নেন। সেখানে তিনি মসজিদে হামলার পর নিউজিল্যান্ড সরকার ও দেশটির প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ডা আরডার্নের ভূমিকায় ব্যাপক প্রশংসা করেন। 

এরদোগান বলেন, ‘মুসলিমদের জন্য আরডার্ন যে সহানুভূতি ও সংহতি দেখিয়েছেন সেটা বিশ্ব নেতাদের জন্য উদাহরণ হওয়া উচিত। আমি তার এই কর্মকাণ্ডের প্রশংসা করছি।’

তখন সম্মেলনে উপস্থিত নিউজিল্যান্ডের পররাষ্ট্রমন্ত্রী উইনস্টন পিটারস ভয়াবহ এ হামলার পরও তাদের দেশে মুসলিমদের বসবাস নিরাপদ ও নিশ্চিন্ত রাখার নিশ্চয়তা প্রদান করেন। যদিও মসজিদে হামলার প্রেক্ষিতে তুর্কি প্রেসিডেন্ট এরদোগান নিউজিল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়ার ব্যাপক সমালোচনা করেছিলেন।

নিউজিল্যান্ডের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘প্রত্যেকটা মসজিদে মুসল্লিরা যাতে শান্তিতে নামাজ আদায় করতে পারেন তা নিশ্চিতে পুলিশকে এই নিরাপত্তার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। একইসঙ্গে গোটা দেশের নিরাপত্তা বৃদ্ধি করা হয়েছে।’ 

উইনস্টন পিটারস আরও বলেন, ‘আমরা দেশের বন্দুক নীতিতে পরিবর্তন আনছি। তাছাড়া সামাজিক মাধ্যমে আমাদের সম্পর্কে যে ঘৃণা ছড়ানো হয়েছে খুব শিগগিরই তা ও প্রতিহত করা হবে।’

আরও পড়ুন :- এ আর রহমানের মেয়ের বোরকা নিয়ে থামছেই না বিতর্ক

এর আগে গত ১৫ মার্চ নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে দুটি মসজিদে জুমার নামাজের সময় বন্দুক হামলার ঘটনায় ৫০ মুসল্লি নিহত হন। এতে আহত হন আরও কমপক্ষে ৪২ জন। নির্মম সেই হামলাটি চালানোর অভিযোগে ইতোমধ্যে অস্ট্রেলীয় বংশোদ্ভূত ব্রেন্টন ট্যারান্ট নামে একজনকে আটক করা হয়। তিনি বর্তমানে নিউজিল্যান্ড পুলিশের হেফাজতে আছেন।

অডি/কেএইচআর

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মোঃ তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮-২০১৯

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড