• বৃহস্পতিবার, ২৭ জুন ২০১৯, ১৩ আষাঢ় ১৪২৬  |   ৩২ °সে
  • বেটা ভার্সন

মধ্যপ্রদেশে কিশোরীকে ধর্ষণের পর শিরশ্ছেদের অভিযোগ

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক

১৯ মার্চ ২০১৯, ১৩:৫৪
কিশোরীকে কিশোরীকে হত্যা
মধ্যপ্রদেশে কিশোরীকে হত্যা মামলায় আলামত সংগ্রহ করছে পুলিশ। (ছবিসূত্র : এনডিটিভি)

ভারতের মধ্যপ্রদেশে চাচা-ভাতিজার বিরুদ্ধে ভাইয়ের মেয়েকে গণধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগ উঠেছে। গত ১৪ মার্চ অপহরণের পর ১২ বছর বয়সী এই কিশোরীকে প্রথমে ধর্ষণের পর শিরশ্ছেদ করে হত্যা করা হয়। খবর এনডিটিভির।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ১৩ মার্চ স্কুল থেকে বাড়ি ফেরার পথে নিখোঁজ হয় সেই কিশোরী। তখন তার বাবা সন্তানের খোঁজে পুলিশের কাছে অভিযোগ দায়ের করেন। পরদিন একই গ্রামের পার্শ্ববর্তী একটি খেলার মাঠে মুণ্ডহীন অবস্থায় তার মৃতদেহ খুঁজে পায় পুলিশ। 

প্রথমে কিশোরীর চাচাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে তিনি বলেন, ‘একই গ্রামে বসবাসকারী ছোটে প্যাটেল নামের একজন এই হত্যাটি করতে পারেন। প্যাটেল ও তাদের পরিবারের মধ্যে জমি নিয়ে বিবাদের কারণে এমনটা করেছে সেই লোক।’

মামলার তদন্তকারী পুলিশ কর্মকর্তা অমিত সাংহী বলেন, ‘হত্যার শিকার কিশোরীর চাচা প্রথমে আমাদের ভুল তথ্য দিয়ে ভিন্ন পথে চালিত করার চেষ্টা করছিলেন। পরে আমরা পোস্টমর্টেম এবং মেডিকেল রিপোর্ট থেকে নিশ্চিত হতে পারি যে, মেয়েটিকে হত্যার আগে ধর্ষণ করা হয়েছিল।’

পুলিশ এ কর্মকর্তা আরও বলেন, ‘আমাদের দুইজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা সকল প্রমাণ সংগ্রহের মাধ্যমে পরিবারের প্রতিটি সদস্যদের বিবৃতি রেকর্ড করেছেন। যখন সবকিছু নিয়ে একসঙ্গে আমরা মেলাতে থাকি তখনি পরিষ্কার হয় যে, মেয়েটির চাচাত ভাই এবং তার চাচা মিলেই এই ধর্ষণ ও খুনটি করেছে।’ 

তিনি এও বলেছেন, ‘আমরা ইতোমধ্যে তার চাচা এবং একজন চাচাত ভাইকে গ্রেফতার করেছি। তাছাড়া রক্তাক্ত কাপড় এবং খুনের অস্ত্র হিসেবে ব্যবহৃত একটি কাস্তেও উদ্ধার করা হয়েছে। তবে এখনো বাকি অভিযুক্তদের সন্ধানে অভিযান চালানো হচ্ছে। আশা করি খুব শিগগিরি তাদের প্রত্যেককে এই আইনের আওতায় নিয়ে আসতে পারব।’

আরও পড়ুন :- দানের টাকাটা মসজিদে হতাহতদের দিতে চাই : 'ডিম বালক'

সে দিনের ভয়াবহতা বর্ণনা করে পুলিশের সেই কর্মকর্তা জানায়, স্কুল থেকে পরীক্ষা শেষ করে মেয়েটি যখন বাড়ি ফিরে আসছিল তখনই তার এক চাচাত ভাই তাকে চাচার বাড়িতে নিয়ে যায়। আর সেখানে তিনজন মিলে তাকে গণধর্ষণ করে এবং মেয়েটি যখন পুলিশের কাছে যাওয়ার হুমকি দেয় তখন তার চাচী তাকে মারধর করে। পরে মেয়েটির মাথা কেটে তার মরদেহ গ্রামের পাশের একটি মাঠে ফেলে দেওয়া হয়।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মোঃ তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮-২০১৯

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড