• শনিবার, ২৩ মার্চ ২০১৯, ৯ চৈত্র ১৪২৫  |   ২৯ °সে
  • বেটা ভার্সন

ক্রাইস্টচার্চে হামলাকারী ট্রাম্পের সমর্থক?

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক ১৫ মার্চ ২০১৯, ১৫:৪৫

ডোনাল্ড ট্রাম্পে ও ব্রেনটন ট্যারেন্ট
মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও ক্রাইস্টচার্চে হামলাকারী ব্রেনটন ট্যারেন্ট। (ছবি : সম্পাদিত)

নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চের পৃথক মসজিদে এলোপাতাড়ি গুলি চালিয়ে ৪৯ মুসল্লিকে হত্যাকারী ব্রেনটন ট্যারেন্ট নিজেকে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সমর্থক বলে দাবি করেছেন।

ভয়াবহ এ হামলার আগেই হামলাকারী তার টুইটারে ৭৩ পাতার একটি ইশতেহার আপলোড করেন। আর সেখানেই এই হামলার ঘোষণাটি আগে থেকেই দেওয়া হয়। খবর ডি ডব্লিউর।

৭৩ পাতার সেই ইশতেহারে তিনি লিখেছিলেন- ‘এটি একটি সন্ত্রাসী হামলা।’ তাছাড়া অভিবাসনের বিরুদ্ধে অবস্থান নেওয়ায় তিনি নিজেকে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সমর্থক বলেও উল্লেখ করেছেন। হামলাকারী নিজেও একজন অভিবাসনবিরোধী বলে ইশতেহারে প্রকাশিত হয়।’

এর আগে ২০১১ সালে নরওয়ের অসলোতে অ্যান্ডারস ব্রেভিক নামে এক মুসলমান ধর্মাবলম্বী সন্ত্রাসীর করা হামলায় প্রতিবন্ধী শিশুসহ অন্তত ৭৭ জন নিহত হয়েছিলেন।

মূলত সে ঘটনা থেকেই হামলাকারী নিজেকে উদ্বুদ্ধ করে এই ফিরতি হামলার পরিকল্পনা করেছেন বলে ৭৩ পাতার সেই ইশতেহারে উল্লেখ করা হয়।

অভিবাসী বিদ্বেষী এ হামলাকারী তার ইশতেহারে আরও বলেছেন, ‘হামলা করে আমি অনুপ্রবেশকারীদের (অভিবাসীদের) দেখাতে চাই যে, আমাদের ভূমি কখনো তাদের ভূমি নয়। যতক্ষণ শ্বেতাঙ্গরা জীবিত থাকবেন ততক্ষণ এই সংগ্রাম চলবেই।’

তিনি তার ইশতেহারে এও লিখেছেন, ‘আমি মুসলিমদের অপছন্দ করি। আমি সেসব মুসলিমকে ঘৃণা করি, যারা অন্য ধর্ম থেকে এসে মুসলমান হয়েছে। তাই আমাদের এবং নিজেদের শিশুদের ভবিষ্যৎকে নিশ্চিত রাখতে হবে।’

নিজেকে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের একজন সমর্থক উল্লেখ করে হামলাকারী বলেন, ‘পুনরুজ্জীবিত শ্বেতাঙ্গ পরিচয়ের প্রতীক হিসেবে আমি অবশ্যই প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের একজন সমর্থক।’

উল্লেখ্য, হামলাকারী এসব মুসলিমদের রক্তের সঙ্গে প্রতারণাকারী বলেও উল্লেখ করেছেন। এসব প্রতারণাকারীদের বেঁচে থাকার কোনো অধিকার নেই বলে দাবি তার।

হামলাকারী তার ইশতেহারের শেষ দিকে বলেছিলেন, ‘আমি ডিলান রুফসহ আরও অনেকের বই পড়েছি। তবে আমি প্রকৃতভাবে অ্যান্ডারস ব্রেভিকের সেই হামলা থেকেই উদ্বুদ্ধ হয়েছি।’

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮-২০১৯

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড