• শুক্রবার, ২২ মার্চ ২০১৯, ৮ চৈত্র ১৪২৫  |   ২৫ °সে
  • বেটা ভার্সন

আইএস কর্মী শামীমাকে নিয়ে বাংলাদেশের বক্তব্য : বিপাকে যুক্তরাজ্য

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ২৩:০৫

বিপাকে যুক্তরাজ্য
আইএস কর্মী শামীমাকে নিয়ে বাংলাদেশ সরকারের বক্তব্যে বিপাকে যুক্তরাজ্য। (ছবি : সম্পাদিত)

ইরাক-সিরিয়ার সশস্ত্র জঙ্গি সংগঠন ইসলামিক স্টেটে (আইএস) যোগ দেওয়া বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ নাগরিক শামীমা বেগমকে সিরিয়ার একটি শরণার্থী শিবির থেকে যুক্তরাজ্যে ফিরিয়ে নিতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে ব্রিটেন সরকার। একইসঙ্গে তার নাগরিকত্ব বাতিল করে দেয় দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। 

তবে শামীমার মা-বাবা বাংলাদেশি হলেও তিনি এ দেশের নাগরিক নন। আর বাংলাদেশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে এমন তথ্য জানানোর পর এক রকম বিপাকে পড়ে যায় যুক্তরাজ্য। বাংলাদেশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় কর্তৃপক্ষের বরাতে করা প্রতিবেদনে আইএস কর্মী শামীমার নাগরিকত্ব প্রসঙ্গে এমন তথ্য প্রকাশ করল ব্রিটেন ভিত্তিক সংবাদমাধ্যম দ্য গার্ডিয়ান।

প্রতিবেদনে বলা হয়, সিরিয়ার শরণার্থী শিবিরে থাকা আইএস কর্মী শামীমার ব্রিটিশ নাগরিকত্ব বাতিলের বিষয়ে দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী যে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন এখন তার আইনগত ভিত্তি নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। ব্রিটেনের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাজিদ জাভেদ এর আগে বলেছিলেন, ‘আমার বক্তব্য পরিষ্কার। বিদেশি সন্ত্রাসী সংস্থার হয়ে কাজ করা কাউকে সমর্থন করা যাবে না। তার দেশে প্রত্যাবর্তন যাতে না হয় তার জন্য আমি আমার সব রকমের চেষ্টা করবো।’

মূলত আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমে এমন সংবাদ প্রচারের পর বাংলাদেশ সরকার বিষয়টি আমলে নেয়। পরে বাংলাদেশের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম ব্রিটিশ এই দৈনিক পত্রিকাটিকে বলেন, ‘শামীমাকে ভুলভাবে বাংলাদেশের দ্বৈত নাগরিক হিসেবে চিহ্নিত করায় বাংলাদেশ সরকার গভীরভাবে উদ্বিগ্ন।’

সাক্ষাৎকারে বাংলাদেশ সরকারের এ পররাষ্ট্র আরও বলেন, ‘শামীমা বাংলাদেশের নাগরিক নন। তিনি জন্মগতভাবে যুক্তরাজ্যের নাগরিক। তিনি কখনো বাংলাদেশের নাগরিকত্বের জন্য আবেদনও করেননি। তাই বাংলাদেশে তাকে ফিরতে দেওয়ার কোনো প্রসঙ্গও উঠতে পারে না।’

পরে বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে শামীমাকে নিয়ে এমন বিবৃতি দেওয়ায় এক রকম বিপদে পড়ে যায় যুক্তরাজ্য। কেননা ব্রিটিশ আইন অনুযায়ী, দেশটির কোনো নাগরিককে রাষ্ট্রহীন করার সুযোগ নেই। তারা তখন আইএস কর্মী শামীমাকে বাংলাদেশের দ্বৈত নাগরিক অভিহিত করে তার নাগরিকত্ব বাতিলের যে প্রক্রিয়া শুরু করেছিল তা এখন আর আইনত সম্ভব নয়।

উল্লেখ্য, সিরিয়ার শরণার্থী শিবির থেকে যুক্তরাজ্যে ফেরার জন্য আকুতি জানানোর সময় শামীমা বেগম অন্তঃসত্ত্বা ছিলেন। পরে গত রবিবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) তিনি একটি ছেলে সন্তানের জন্ম দেন। এটি শামীমার তৃতীয় সন্তান। এর আগেও তিনি দুটি সন্তানের জন্ম দিয়েছিলেন। তবে তখন তার দুটি সন্তানই অপুষ্টিতে ও বিনা চিকিৎসার কারণে মারা যায়।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮-২০১৯

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড