• শুক্রবার, ২২ মার্চ ২০১৯, ৮ চৈত্র ১৪২৫  |   ৩২ °সে
  • বেটা ভার্সন

ফের স্নায়ুযুদ্ধ

ইউরোপে ক্ষেপণাস্ত্র স্থাপন মাত্রই সরাসরি যুক্তরাষ্ট্রে হামলা : পুতিন

পদক্ষেপ নেয়ার আগে রাশিয়ার অস্ত্রের গতি-পরিসীমা হিসাব করা উচিৎ

  এস এম সোহাগ ২০ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৮:৫২

রাশিয়া-যুক্তরাষ্ট্র
আইএনএফ চুক্তি থেকে যুক্তরাষ্ট্র বের হলেই তার পথ অনুস্মরণ করবে রাশিয়া যা বিশ্বকে আরেক স্নায়ূ যুদ্ধের দিকে ঠেলে দিবে। ছবি : সংগৃহীত

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ইউরোপে মধ্যম কিংবা ছোট, যেকোন রেঞ্জের পারমানবিক মিসাইল স্থাপন করার চেষ্টা করে তাহলে তাৎক্ষনিক রাশিয়া সেই পদক্ষেপের জবাব দিবে। রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট বুধবার (২০ ফেব্রুয়ারি) বলে, আমেরিকার এমন আচরণের জবাব দিতে রাশিয়া শুধু সেই স্থাপনাকারী দেশটিতেই হামলা চালাবে না বরং খোদ যুক্তরাষ্ট্রকেও লক্ষ্য করা হবে। 'রয়টার্স'

স্নায়ুযুদ্ধ যুগের অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ চুক্তি থেকে চলতি মাসে ওয়াশিংটনের বের হয়ে যাবার প্রতিক্রিয়াস্বরূপ রাশিয়া এখনও কোন ধরনের বোঝাপড়ার সন্ধান করেনি কিংবা কোন ক্ষেপনাস্ত্র হামলার পদক্ষেপ নেয়নি তবুও সম্ভাব্য নতুন অস্ত্র প্রতিযোগিতা নিয়ে পুতিন তার কড়া মন্তব্যে এসব বলেন। 

কোন ধরনের ক্ষেপণাস্ত্র হামলার জন্য রাশিয়ার প্রতিক্রিয়া অত্যন্ত দৃঢ় হবে বলে জানান পুতিন। তিনি মার্কিন নীতিনির্ধারদের বলেন, যাদের মধ্যে কয়েকজনকে তিনি মার্কিন ব্যতিক্রমধর্মী মনোভাবের বলে আখ্যা দেয় তাদের উদ্দেশ্য বলেন, তারা কোন পদক্ষেপ নেয়ার আগে যেন ঝুঁকিগুলি হিসাব করে দেখেন। 

ছবি : রয়টার্স

পুতিন রাশিয়ার রাজনৈতিক অভিজাতদেরকে জোরালো সাধুবাদ দিয়ে বলেন, 'এটা তারা কিভাবে চান তা চিন্তা করার অধিকার তাদের রয়েছে। কিন্তু তারা কি গণনা করতে পারে? আমি নিশ্চিত তারা গণনা করতে পারেন। চলেন, আমরা ঠিক কি গতির ও পরিসীমার অস্ত্র তৈরি করেছি তার হিসাব তাদের ওপরেই ছেড়ে দেই। 

তিনি আরও বলেন, 'রাশিয়া শুধুমাত্র সেই ধরণের অস্ত্র তৈরি বা প্রসার করবেনা যা কেবল সেই সব স্থানকে লক্ষ্য করতে পারে যেখান থেকে আমাদের বিরুদ্ধে সরাসরি হামলার হুমকি রয়েছে বরং এই হুমকির সিদ্ধান্ত যেখান থেকে আসে সেই সব অঞ্চলকেও কেন্দ্র করে আমাদের অস্ত্রের পরিসীমা উন্নত করা হবে।'

ইউরোপে ক্ষেপণাস্ত্র 

রাশিয়ায় চুক্তি লঙ্ঘনের অভিযোগ এনে ওয়াশিংটন এই মাসে বলেছিল যে, তারা ১৯৮৭ সালের ইন্টারমিডিয়েট-রেঞ্জ নিউক্লিয়ার ফোর্সেস ট্রিটি (আইএনএফ) এর অধীনে তার বাধ্যবাধকতা স্থগিত করেছে এবং নতুন মিসাইল তৈরি ও বিকাশের জন্য হাত বন্ধ করে রাখার অবস্থা থেকে, আইএনএফ থেকে বের হয়ে আসতে প্রক্রিয়া শুরু করছে।

ছবি : সংগৃহীত

চুক্তিটি ইউরোপে ক্ষুদ্র ও মধ্যবর্তী সীমার, ভূ-ভিত্তিক ক্ষেপণাস্ত্র স্থাপন থেকে উভয় পক্ষকে নিষিদ্ধ করেছিল এবং চুক্তিটি বিলুপ্তির ফলে ওয়াশিংটন এবং মস্কোর মধ্যে একটি নতুন অস্ত্রশস্ত্রের প্রতিযোগিতা শুরু হয়েছে, যা চুক্তিটিকে অবজ্ঞা করেছে।

রাশিয়া চুক্তি লঙ্ঘনের অভিযোগ অস্বীকার করেছে। চুক্তি থেকে যুক্তরাষ্ট্রের বের হয়ে যাওয়ার পদক্ষেপকে রাশিয়ে অনুস্মরণ করবে বলে জানিয়ে পুতিন প্রতিক্রিয়া জানাবেন। কিন্তু পুতিন, যিনি কখনই ইতোপূর্বে পশ্চিমাদের সঙ্গে রাশিয়ানদের পতাকা বৈঠক করতে তিনি সর্বদাই মারমুখি বাগাড়ম্বরপূর্ণ উক্তি ব্যবহার করেছেন। 

তিনি নতুন ক্ষেপণাস্ত্র স্থাপনার ঘোষণা দেননি, নতুন সিস্টেমের জন্য অর্থ বিদ্যমান বাজেট তহবিলের মধ্য থেকে আসা উচিত এবং ঘোষণা করেছিলেন যে, মস্কো ইউরোপে বা অন্য কোথাও ওয়াশিংটনের স্থাপন না করা পর্যন্ত নতুন কোন ভূমি-ভিত্তিক ক্ষেপণাস্ত্র স্থাপন করবে না।

বুধবার তিনি পরিষ্কার করে বলেন যে, তিনি প্রস্তুত, অনিচ্ছাপূর্বক হলেও তিনি প্রস্তুত, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র চুক্তি থেকে সরে গেলে তিনি সক্রিয়ভাবে অস্ত্র ও ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থা বিকাশ চালিয়ে যাবেন যাতে করে তিনি সম্ভাব্য পরিণতি মোকাবিলায় যেন প্রস্তুত থাকতে পারেন।