• সোমবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৮, ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৫  |   ২০ °সে
  • বেটা ভার্সন

আঙ্কারায় সৌদি রাষ্ট্রদূতের বাসায় রাসায়নিকের সন্ধান

  অধিকার ডেস্ক    ০৮ নভেম্বর ২০১৮, ২১:০৩

জামাল খাসোগি
রাষ্ট্রদূত মোহাম্মেদ আল ওতাইবি (মাঝে)। ছবি : সম্পাদিত

সৌদি সাংবাদিক জামাল খাসোগি হত্যার পর তার লাশ পুড়িয়ে ফেলতে ও তথ্যপ্রমাণ মুছে ফেলতে 'হাইড্রফ্লোরিক' এসিড ও অন্যান্য রাসায়নিক ব্যবহার করা হয়েছে বলে জানা যায় তুরস্কের এটর্নি জেনালেরেলের কার্যালয় থেকে। ‘আল-জাজিরা’

চলতি বছর ২ অক্টোবর তুরস্কে অবস্থিৎ সৌদি দূতাবাসের ভেতরে দেশটির যুবরাজের সমালোচক ও ‘ওয়াশিংটন পোস্ট’ এর সাংবাদিক জামাল খাসোগিকে হত্যা করা হয়। তুর্কি কর্তৃপক্ষ এই হত্যা রহস্যের আদ্যপান্ত উন্মোচনে করা তদন্তে বের হয়ে আসে একেকটা তথ্য। ১৫ সদস্যের হিট স্কোয়াডের মধ্যে খাসোগিকে হত্যা করতে একজন বিশেষজ্ঞ ডাক্তার ছিলেন, যিনি মরাদেহ নিশ্চিহ্ন করতে রাসায়নিকের ব্যবহার করেন। 

তুরস্কের আঙ্কারায় সৌদি কনস্যুলেটের পাশে রাষ্ট্রদূত জেনারেল মোহাম্মেদ আল ওতাইবির বাস-ভবনে তুর্কি তদন্ত দল 'হাইড্রফ্লোরিক' এসিড ও অন্যান্য রাসায়নিকের উপস্থিতি পেয়েছে। ‘আল-জাজিরার’ তুর্কি প্রতিবেদক অ্যান্ড্রু সিমন্স জানায়, হত্যাকাণ্ডের ২ সপ্তাহ পরে রাষ্ট্রদূতের বাসভবনে তদন্ত চালায়।


রাষ্ট্রদূতের বাসায় যে রাসায়নিকের সন্ধান পাওয়া গেছে তা কনসাল জেনারেল মোহাম্মদ আল-ওতাইবির কক্ষেই ছিল। তুর্কি তদন্তকারীরা তার রুমের ভিতের এর সন্ধান পেয়েছে। ২ অক্টোবর সাংবাদিক জামাল খাশোগি আঙ্কারস্থ সৌদি দূতাবাসে গিয়ে আর ফিরে আসেননি। প্রথম দিকে বিষয় সম্পূর্ণ অস্বীকার করে সৌদি কর্তৃপক্ষ। কিন্তু পরে চাপে পড়ে বিষয়টি স্বীকার করে।

সাংবাদিক খাসোগিকে হত্যার ঘটনা স্বীকার করলেও এখনও পর্যন্ত তার লাশের কোনো সন্ধান দেয়নি সৌদি কর্তৃপক্ষ। অন্যদিকে তার লাশ এসিড দিয়ে পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে বলে গণমাধ্যমে খবর প্রকাশ করা হয়েছে।
 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ই-মেইল: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড