• মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ৩ বৈশাখ ১৪৩১  |   ২৭ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

বাংলাদেশে গণতন্ত্রের পরিবেশ তৈরি করার দিকে মনোনিবেশ করতে চাই: আফরিন আক্তার

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক

১৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১২:২৭
আফরিন আক্তার

ইন্দো-প্যাসিফিক ইস্যু এবং বাংলাদেশে গণতন্ত্রের প্রসঙ্গ নিয়ে কথা বলেছে মার্কিন উপসহকারী পররাষ্ট্রমন্ত্রী আফরিন আক্তার। তিনি বলেন, বাংলাদেশে গণতন্ত্রের পরিবেশ তৈরি করার দিকে মনোনিবেশ করতে চাই।

বুধবার বাংলাদেশি এক সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ প্রসঙ্গে কথা বলেন।

নিয়মিত ব্রিফিংয়ে ওই সাংবাদিক বলেন, বাংলাদেশ এবং ইন্দো প্যাসিফিক সম্পর্কে আমি কয়েকটি প্রশ্ন করতে চাই আপনাকে। আমেরিকা কীভাবে একটি কর্তৃত্ববাদী শাসনের উত্থানকে বিবেচনা করে এবং বাংলাদেশের সাথে ইন্দো-প্যাসিফিক কৌশলটি নিয়ে কীভাবে কাজ করার পরিকল্পনা করছে? কয়েক বছর ধরে আমরা ইন্দো-প্যাসিফিক কৌশল সম্পর্কে প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে কঠোর সমালোচনা শুনেছি। বাংলাদেশের নতুন কর্তৃত্ববাদী সরকারের সাথে এটি নিয়ে আপনাদের ভূমিকা কী হবে?

জবাবে আফরিন আক্তার বলেন, আমি জানি এটা আপনার জন্য একটি ভাল প্রশ্ন। তাই আমি মনে করি, আপনি জানেন, আমরা ফোকাস করছি। আমরা অবিশ্বাস্যভাবে বাংলাদেশে সুশীল সমাজকে যুক্ত করার দিকে মনোনিবেশ করছি। আবার, ইন্দো-প্যাসিফিক কৌশলের প্রথম স্তম্ভ হল একটি মুক্ত ও উন্মুক্ত ইন্দো-প্যাসিফিক অঞ্চল। তাই আমি সাউথ এশিয়া গভর্নেন্স ফান্ডের কথা বললাম। আমরা বাংলাদেশের কৃষকদের সাথে কাজ করছি; যারা সরকারি সেবা পেতে সংগ্রাম করছেন। আমরা শ্রমিক সংগঠকদের সাথে কাজ করছি। আমরা সুশীল সমাজের সমস্ত স্টেকহোল্ডাদের সাথে কাজ করছি।

এটি করার ক্ষেত্রে আমাদের লক্ষ্য হল বাংলাদেশে সত্যিকার অর্থে নাগরিকদের অধিকার সংরক্ষণ করা, দীর্ঘমেয়াদে গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলা। আমরা অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে বাংলাদেশের সাথে বিস্তৃতভাবে জড়িত।

তিনি আরও বলেন, আমরা বাংলাদেশের ইন্দো-প্যাসিফিক দৃষ্টিভঙ্গি দেখে সত্যিই সন্তুষ্ট হয়েছি, যা সত্যিই অর্থনৈতিক বিনিয়োগের ক্ষেত্রে, জলবায়ু পরিবর্তনের বিষয়ে বাংলাদেশের সাথে কাজ করা, আমাদের দুই দেশের মধ্যে নিরাপত্তা ও প্রতিরক্ষা সহযোগিতা গড়ে তোলার ক্ষেত্রে আমরা যা করার চেষ্টা করছি তার অনেক কিছুই প্রতিফলিত করে। বাংলাদেশ অবশ্যই শান্তিরক্ষায় (পিস মিশন) আমাদের অন্যতম বৃহত্তম অবদানকারী, এবং আমরা সেই প্রচেষ্টাকে সমর্থন করতে পেরে খুবই আনন্দিত।

মার্কিন উপপররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমরা গণতন্ত্র এবং মানবাধিকারের বিষয়গুলিকে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া অব্যাহত রাখব। সেক্ষেত্রে আমাদের ফোকাস আসলেই সুশীল সমাজ।

বাংলাদেশের জনগণের ইচ্ছার প্রতিফলনের ক্ষেত্রে অবস্থান নেওয়ায় বাইডেন প্রশাসনকে ধন্যবাদ জানিয়ে ওই সাংবাদিক জানতে চান, বাংলাদেশে গণতন্ত্রে ফিরে আসার সুবিধার্থে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র কোনো নির্দিষ্ট ব্যবস্থা গ্রহণ করছে কি না? আমরা কিছু সমালোচনা দেখেছি। তবে আমি ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের অংশটি উল্লেখ করতে পারি যে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশে গণতন্ত্রের প্রচারের ক্ষেত্রে পিছিয়ে আসছে। তাহলে এখন আপনার অবস্থান কি? গণতন্ত্র ও ভোটের অধিকার এবং মানবাধিকার সমুন্নত রাখার জন্য আমরা বাংলাদেশে অনেক লিভারেজ দেখেছি।

উত্তরে আফরিন বলেন, সত্যিই গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠান, বাংলাদেশে গণতন্ত্রের পরিবেশ তৈরি করার দিকে মনোনিবেশ করতে চাই। তাই মিডিয়া নিয়ে কাজ করছি। আমাদের হাতে প্রচুর কাজ চলছে- বাংলাদেশে উন্নয়নশীল মুক্ত মিডিয়া, সুশীল সমাজের সাথে কাজ করা, শ্রম সংগঠকদের সাথে কাজ করা। গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলো গড়ে তোলার জন্য যা বাংলাদেশকে আরও বেশি গণতান্ত্রিক হতে সাহায্য করবে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড