• শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১১ ফাল্গুন ১৪৩০  |   ২০ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

১৪৪ ধারা ভেঙ্গে ‘দিল্লি চলো’ রোডমার্চে ভারতের কৃষকরা

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক

১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৩:৩১
১৪৪ ধারা

১৪৪ ধারা উপেক্ষা করে ‘দিল্লি চলো’ রোডমার্চ শুরু করেছেন ভারতের কৃষকরা। কৃষক সংগঠনগুলি যে দাবিগুলি নিয়ে দিল্লির রাস্তায় নামছেন তার মধ্যে অন্যতম হল, ফসলের ন্যূনতম সহায়ক মূল্যের আইনি নিশ্চয়তা দিতে হবে সরকারকে। স্বামীনাথন কমিশনের প্রস্তাব মেনে ফসলের ন্যূনতম সহায়ক মূল্য দেওয়ারও দাবি জানানো হয়েছে। একই সঙ্গে সমস্ত কৃষিঋণ মকুব করারও দাবি তুলেছেন বিক্ষুব্ধ কৃষকেরা।

কৃষকদের এই রোডমার্চ ঠেকাতে ইতোমধ্যে রাজধানী দিল্লিকে নিরাপত্তা দিতে এক মাসের জন্য ১৪৪ ধারা জারি করেছে পুলিশ।

পাশাপাশি, ২০২০-২১ সালের প্রতিবাদে কৃষকদের বিরুদ্ধে রুজু হওয়া মামলা খারিজের দাবি জানিয়েছেন আন্দোলনকারীরা। জানানো হয়েছে বিদ্যুৎ আইন ২০২০ বাতিলের এবং লখিমপুর খেরিতে নিহত কৃষকদের ক্ষতিপূরণের দাবি। সোমবার রাতে বিষয়গুলি নিয়ে কেন্দ্র এবং কৃষক সংগঠনগুলির মধ্যে বৈঠক হলেও তা ফলপ্রসূ হয়নি। সূত্রের খবর, সোমবার রাত ১১টার পর সেই বৈঠকে বসে। ২০২০ সালের বিদ্যুৎ আইন বাতিল করার বিষয়ে কৃষক নেতাদের আশ্বস্ত করেন দুই কেন্দ্রীয় মন্ত্রী। উত্তরপ্রদেশের লখিমপুর খেরির ঘটনায় কৃষকদের বিরুদ্ধে রুজু হওয়া মামলা প্রত্যাহার করা হবে বলেও জানানো হয়। কিন্তু কৃষকদের মূল তিনটি দাবি— ফসলের ন্যূনতম সহায়ক মূল্য, কৃষিঋণ মকুব এবং স্বামীনাথন কমিশনের প্রস্তাবের রূপায়ণ নিয়ে দু’পক্ষ কোনও স্থির সিদ্ধান্তে আসতে পারেনি। ফলে কৃষকেরা নিজেদের সংকল্পে অটল বলেই জানিয়েছেন কৃষকদের এক প্রতিনিধি। তার অভিযোগ, দু’বছর আগে কৃষকদের অর্ধেক দাবি মিটিয়ে দেওয়া হবে বলে প্রতিশ্রুতি দেওয়া হলেও কেন্দ্র কিছুই করেনি। কৃষকেরা শান্তিপূর্ণ ভাবে সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করলেও সরকার সময় নষ্ট করেছে বলে অভিযোগ তার।

সম্মিলিত কিষাণ মোর্চার (অ-রাজনৈতিক) জগজিৎ সিংহ দাল্লেওয়াল এবং কিষাণ মজদুর সংগ্রাম কমিটির সারওয়ান সিংহ পান্ধেরের মতো কৃষক নেতারা তাদের দাবি পূরণে সরকারের প্রতিশ্রুতি নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছেন।

উল্লেখ্য, কৃষকদের দিল্লিযাত্রা রুখতে সক্রিয় হয়েছে প্রশাসন। তড়িঘড়ি দু’টি বড় স্টেডিয়ামে অস্থায়ী জেল তৈরি করেছে হরিয়ানার মনোহর লাল খট্টরের সরকার। সিরসার চৌধুরি দলবীর সিংহ ইন্ডোর স্টেডিয়াম এবং ডাবওয়ালির গুরু গোবিন্দ সিংহ স্টেডিয়াম দু’টিকে অস্থায়ী জেলে রূপান্তরিত করা হয়েছে। কৃষকেরা মিছিল নিয়ে এগিয়ে যাওয়ার সময় কোনও অপ্রীতিকর পরিস্থিতি তৈরি হলে তাঁদের আটক করে ওই দু’টি জেলে রাখা হবে বলে সূত্রের খবর। হরিয়ানা সীমান্তে বিশাল পুলিশ বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে। মোতায়েন রয়েছে জলকামান। বিক্ষোভকারীরা যাতে অন্যান্য জেলা থেকে হরিয়ানায় ঢুকতে না পারেন, সেই উদ্দেশ্যে রাজ্যের সীমানায় নজরদারি বাড়ানো হয়েছে। অতিরিক্ত ৫০ কোম্পানি পুলিশ মোতায়েন করেছে সে রাজ্যের সরকার। হরিয়ানার সরকার ইন্টারনেট পরিষেবা বন্ধ রাখার কথা জানিয়ে বিজ্ঞপ্তিও জারি করেছে।

কৃষকদের মিছিল নিয়ে সতর্ক দিল্লিও। কৃষকদের কর্মসূচির আগে দিল্লিতে ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে । ১২ মার্চ পর্যন্ত ১৪৪ ধারা জারি থাকবে রাজধানীতে। সিঙ্ঘু, গাজিপুর এবং টিকরি সীমানায় নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। সীমানা অবরুদ্ধ করতে ব্যারিকেড বসানো হয়েছে জায়গায় জায়গায়। কংক্রিটের দেওয়াল তুলে কাঁটাতারের বেড়া এবং পেরেকের পাটাতন বসানো হয়েছে। মোতায়েন রয়েছে বিশাল পুলিশবাহিনী। কৃষকদের দিল্লিতে ঢুকতে বাধা দেওয়ার ব্যবস্থার জন্য কেন্দ্রের পদক্ষেপের সমালোচনা করেছে বিরোধী দল এবং কৃষক সংগঠনগুলি।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড