• রোববার, ২৯ জানুয়ারি ২০২৩, ১৫ মাঘ ১৪২৯  |   ১৬ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

মালয়েশিয়ায় অভিবাসী কর্মীদের আইনগত অধিকার নিশ্চিত করার আহবান

  আহমাদুল কবির, মালয়েশিয়া:

২১ জানুয়ারি ২০২৩, ১২:১২
মালয়েশিয়া

মালয়েশিয়ায় অভিবাসী কর্মীর অধিকার বিশেষ করে কর্মনিরাপত্তা, বেতন, আবাসন এবং কল্যাণ নিশ্চিত করার বিষয়ে বিগত যে কোন সময়ের তুলনায় এখন আমেরিকা ও ইউরোপের দেশ এবং দেশীয় ও আন্তর্জাতিক এন জি ও বেশ সোচ্চার। মালয়েশিয়ান বার কাউন্সিলসহ যে সকল এনজিও শ্রমিকের অধিকার নিয়ে কাজ করছে তাদের মধ্যে অন্যতম এনজিও তেনাগানিতার নির্বাহী পরিচালক গ্লোরেন দাস অভিবাসী শ্রমের জন্য জাতীয় ব্যাপক নীতি বাস্তবায়নের জন্য সরকার ও নিয়োগকর্তাদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

গ্লোরেন বলছেন, 'যদিও শ্রম আইন অভিবাসী শ্রমিকদের সুরক্ষা দেয়, তবে এই আইনগুলির প্রয়োগ শিথিল এবং কখনও কখনও অস্তিত্বহীন।'

২০ জানুয়ারি এফএমটিকে দেয়া এক সাক্ষাতকারে গ্লোরেন বলেছেন, "যতক্ষণ পর্যন্ত একটি ব্যাপক নীতি কার্যকর করা না হয়, ততক্ষন পর্যন্ত অভিবাসী শ্রমিকদের শোষণ করা অব্যাহত থাকবে এবং তাদের অধিকার সুরক্ষিত হবে না,"।

অনেক অভিবাসী শ্রমিকদের কর্মক্ষেত্রের বিরোধগুলি সমাধান করার জন্য উপযুক্ত প্ল্যাটফর্ম নাই কারণ তারা ট্রেড ইউনিয়নের অন্তর্ভুক্ত নয়।

সে ক্ষেত্রে দাস বলেন, এনজিওগুলো মনিটরিং, কর্মীদের অভিযোগ পরিচালনা, শ্রমিকদের অধিকার বিষয়ে প্রশিক্ষণ পরিচালনা এবং নির্যাতিত শ্রমিকদের আশ্রয় দিতে পারে।

তিনি উদাহরণ হিসেবে বলেন, এই মাসের শুরুর দিকে, গেন্টিং হাইল্যান্ডে প্রায় ২০০ অভিবাসী শ্রমিক ধর্মঘটে গিয়েছিল। যার ফলে উসকানি দেওয়ার জন্য দুজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল। শ্রমিকরা জানান, মজুরি ও কাজের সময় নিয়ে তারা অসন্তুষ্ট। বঞ্চিত বা শোষণের শিকার হলেও সম্মিলিত প্রতিবাদ করার কোন অধিকার তাদের নেই স্বীকার করে মিস্টার দাস বলেন, যে নন-ইউনিয়ন সদস্যদের জন্য ধর্মঘট বেআইনি কিন্তু অভিবাসী শ্রমিকরা জেনেশুনে আইন ভাঙতে চাইবে না। তিনি বলেন যে, "নিয়োগকর্তারা অবশ্যই তাদের কর্মীদের অভিযোগ জানানোর জন্য নিরাপদ স্থান প্রদান করবে এবং কর্তৃপক্ষকে অবশ্যই এটিকে সম্মান করতে হবে, শুধুমাত্র কোম্পানি বা নিয়োগকর্তার প্রতিবেদনের ভিত্তিতে তাদের গ্রেপ্তার করা যাবেনা।"

নর্থ সাউথ ইনিশিয়েটিভ এনজিওর আদ্রিয়ান পেরেইরা বলেছেন, তিনি বিশ্বাস করেন যে শ্রমিকদের ধর্মঘটে যাওয়ার প্রয়োজন ছাড়াই লেবার অফিস দ্বারা সমস্যাটি আরও ভালভাবে পরিচালনা করা উচিত ছিল। "মালয়েশিয়ার অভিবাসী শ্রমিকরা কর্মক্ষেত্রে এবং সরকারী দপ্তরে অভিযোগ দায়ের করার সময় অনেক বাধার সম্মুখীন হয়, তাই তারা যদি শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদ, ধর্মঘট বা পিকেটের আশ্রয় নেয় তবে এটি আশ্চর্যজনক নয়।"

পেরেরা বলেছেন, নিয়োগকর্তাদের অবশ্যই নিশ্চিত করতে হবে যে কোম্পানিগুলির মধ্যে প্রতিকারের প্রক্রিয়াগুলি স্পষ্ট যাতে বিরোধগুলি বন্ধুত্বপূর্ণভাবে সমাধান করা যায়,। তিনি বলেন অনেক ক্ষেত্রে অভিবাসী কর্মীর দেশের দূতাবাস থেকেও আশানুরূপ সহযোগিতা মেলে না ফলে এসব কর্মীরা আমাদের নিকট আসে। নিজ নিজ দেশের কর্মীদের জন্য দূতাবাসের স্মার্ট যোগাযোগ সুবিধা স্থাপন করার উপর গুরুত্বারোপ করে বলেন, ' দ্রুত দূতাবাসের রেসপন্স কর্মীর অধিকার রক্ষায় যথেষ্ট সহায়ক হয়। '

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড