• শুক্রবার, ২৭ মে ২০২২, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯  |   ২৭ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

কানাডা থেকে পার্সেলে ওমিক্রন পাঠানো হয়েছে : চীন

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক

১৮ জানুয়ারি ২০২২, ১৮:২৪
বেইজিংয়ে কানাডা থেকে আসা পার্সেল
বেইজিংয়ে কানাডা থেকে আসা পার্সেল। (ছবি: সংগৃহীত)

চীনের রাজধানী বেইজিংয়ে প্রথমবারের মতো করোনাভাইরাসের অতি-সংক্রামক ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রন শনাক্ত হয়েছে। কানাডা থেকে আসা একটি পার্সেলের প্যাকেট এই ভ্যারিয়েন্টের সম্ভাব্য উৎস হতে পারে জানিয়ে চীনা কর্তৃপক্ষ পার্সেল খোলার সময়—বিশেষ করে বিদেশ থেকে আসা কোনও পার্সেল স্পর্শ করার আগে নাগরিকদের মাস্ক এবং গ্লোভস পরার আহ্বান জানিয়েছে।

দেশটির কর্তৃপক্ষ বিদেশি পার্সেল জীবাণুমুক্ত করার এবং ডাকবিভাগের যে কর্মীরা টিকার পূর্ণ ডোজ নিয়েছেন; তাদের বিদেশি পার্সেল বিতরণের পরামর্শ দিয়েছে।

শীতকালীন অলিম্পিক গেইমস শুরু হওয়ার তিন সপ্তাহেরও কম সময়ের আগে বেইজিংয়ে এই সতর্কতা জারি করা হয়েছে। দেশটির আরও বেশ কয়েকটি শহরে করোনাভাইরাসের নতুন প্রাদুর্ভাব নির্মূল করতে কঠোর বিধি-নিষেধ আরোপ করা হয়েছে।

সোমবার গভীর রাতে চীনের রাষ্ট্রায়ত্ত সম্প্রচারমাধ্যম সিসিটিভি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এক পোস্টে বিদেশি পণ্য ক্রয় এবং বিদেশি পার্সেল গ্রহণ যথাসম্ভব কমিয়ে ফেলার পরামর্শ দেয়।

এতে বলা হয়, ‌‘পার্সেল সামনা-সামনি হস্তান্তরের সময় নিজের সুরক্ষা নিশ্চিত করুন। এ সময় ফেস মাস্ক এবং গ্লোভস পরুন। বাড়ির বাইরে প্যাকেজ খোলার চেষ্টা করুন।’

দেশটির স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা বলেছেন, বেইজিংয়ে ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্টে আক্রান্ত ব্যক্তি কানাডা থেকে আসা একটি প্যাকেজ খুলেছিলেন। যুক্তরাষ্ট্র এবং হংকং হয়ে সেই প্যাকেজটি বেইজিংয়ে পৌঁছেছে। যে কারণে এই প্যাকেজের মাধ্যমে ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্ট ছড়িয়ে পড়ার সম্ভাবনা নাকচ করে দেওয়া যায় না।

সিসিটিভি বলছে, ওমিক্রন সংক্রমণের এই ঘটনা ব্যক্তিগত প্রতিরক্ষার গুরুত্ব তুলে ধরেছে।

পার্সেল কীভাবে বিতরণ এবং খুলতে হবে সে বিষয়ে দেশটির জাতীয় স্বাস্থ্য কমিশন তাদের উইচ্যাট অ্যাকাউন্টে কিছু পরামর্শ দিয়েছে। আর এই পরামর্শ সাংহাই এবং নানজিং শহরের কর্তৃপক্ষও উইচ্যাটে পুনরায় শেয়ার করেছে।

এর আগে, হিমায়িত মাংস এবং মাছের মতো আমদানিকৃত অন্যান্য হিমায়িত পণ্য-সামগ্রীর মাধ্যমে কোভিড-১৯ ছড়িয়ে পড়তে পারে বলে দাবি করে চীন। যদিও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা হিমায়িত পণ্যের মাধ্যমে করোনা ছড়ানোর ঝুঁকি খুব বেশি নেই বলে জানায়।

২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীনের হুবেই প্রদেশের উহানে করোনাভাইরাসের প্রথম সংক্রমণ শনাক্ত হয়। তবে চীনের সরকারি বিভিন্ন গণমাধ্যমের খবরে উহানের আগেই বিশ্বের অন্যান্য দেশে এই ভাইরাসের উপস্থিতি ছিল বলে জানানো হয়।

গত কয়েক সপ্তাহ ধরে চীনের কয়েকটি শহরে এই ভাইরাসের সংক্রমণের পুনরুত্থান ঘটেছে। এর মধ্যে কিছু কিছু ক্ষেত্রে অতি-সংক্রামক ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্টের সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে। মঙ্গলবার দেশটিতে ১২৭ জনের শরীরে করোনার স্থানীয় সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে।

ওডি/জেআই

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

সহযোগী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড