• শুক্রবার, ১২ আগস্ট ২০২২, ২৮ শ্রাবণ ১৪২৯  |   ৩০ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

টাইগ্রেতে বিমান হামলায় নিহত ১৭

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক

১২ জানুয়ারি ২০২২, ১৩:১৬
টাইগ্রেতে বিমান হামলায় নিহত ১৭
বিমান হামলায় বিধ্বস্ত টাইগ্রের গ্রামাঞ্চল (ছবি : রয়টার্স)

আফ্রিকার পূর্বাঞ্চলীয় দেশ ইথিওপিয়ার উত্তরাঞ্চলীয় টাইগ্রেতে মাত্র এক সপ্তাহের মধ্যে দ্বিতীয় বারের মতো বিমান হামলার ঘটনা ঘটল। এতে শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত অন্তত ১৭ জনের প্রাণহানি ঘটেছে। নিহতদের মধ্যে অধিকাংশই নারী। টাইগ্রের মাই সেবরি শহরে চালানো ওই হামলায় আহত হয়েছেন আরও কয়েক ডজন বলে মঙ্গলবার (১১ জানুয়ারি) স্থানীয় কর্তৃপক্ষ এবং প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাতে দুইজন ত্রাণ কর্মী ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্সের কাছে নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে গেল শুক্রবার ইথিওপিয়ার এই অঞ্চলে বাস্তুচ্যুতদের একটি আশ্রয় শিবিরে চালানো বিমান হামলায় ৫৬ জন নিহত ও ৩০ জন আহত হন। ভয়াবহ সেই ঘটনায় বেসামরিক নাগরিক হতাহত এবং ভোগান্তির বিষয়ে সোমবার টেলিফোনে আলাপকালে ইথিওপিয়ার প্রধানমন্ত্রী আবি আহমেদের কাছে উদ্বেগ প্রকাশ করেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ইথিওপিয়ার প্রধানমন্ত্রীকে বলেছেন, আমি ভীষণই উদ্বিগ্ন। কারণ ইথিওপিয়ার বিমানবাহিনী টাইগ্রেতে যে বিমান হামলা চালাচ্ছে তাতে প্রচুর সাধারণ মানুষ মারা যাচ্ছেন।

মাই সেবরি শহরে বিমান হামলার ব্যাপারে মন্তব্যের জন্য অনুরোধ করা হলেও দেশটির সেনাবাহিনীর মুখপাত্র কর্নেল গেটনেট আদানে এবং সরকারের মুখপাত্র লিগেসে তুলু তাৎক্ষণিকভাবে সাড়া দেননি বলে জানিয়েছে বাফ্রতা সংস্থা রয়টার্স।

আরও পড়ুন : ব্যালিস্টিক মিসাইল ছুঁড়ে ফের শক্তি দেখাল উ. কোরিয়া

টাইগ্রে বিদ্রোহীদের সঙ্গে গেল ১৪ মাসের সংঘাতে বেসামরিক নাগরিকদের লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত করার অভিযোগ অস্বীকার করেছে ইথিওপিয়ার সরকার। দেশটির প্রেসিডেন্ট আবি আহমেদ সরকারের ফেডারেল বাহিনী এবং ইরিত্রিয়া-সমর্থিত আঞ্চলিক মিত্রদের সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে টাইগ্রে পিপলস লিবারেশন ফ্রন্ট (টিপিএলএফ) বিদ্রোহীদের লড়াই চলছে।

২০২১ সালের ডিসেম্বরে জাতিসংঘের পর্যবেক্ষকরা বলেছিলেন, কয়েক মাস ধরে লাগাতার বিমান হামলার ফলে কয়েক ডজন সাধারণ মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন। চলতি জানুয়ারি মাসেও বিমান হামলা হয়েছে। গৃহহীনদের শিবির ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। বাচ্চাসহ মারা গেছেন অন্তত ৬০ জন। আন্তর্জাতিক সংগঠনগুলো উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। রবিবার জাতিসংঘ বলেছে, বিমান হামলা যে হারে বাড়ছে, তাতে তারা উদ্বিগ্ন।

ইথিওপিয়ার কেন্দ্রীয় সরকারের ওপর টিপিএলএফের ২৭ বছরের আধিপত্যের অবসান ঘটিয়ে ২০১৮ সালে দেশটির প্রধানমন্ত্রী হিসাবে দায়িত্ব নেন আবি আহমেদ। যদিও তারপরও টাইগ্রে অঞ্চলের ক্ষমতায় ছিল দেশটির সশস্ত্র বিদ্রোহী গোষ্ঠী টিপিএলএফ।

আরও পড়ুন : আফগানিস্তানে শীর্ষ পাক তালেবানি নেতা নিহত

উল্লেখ্য, ২০২০ সালের নভেম্বরে এই অঞ্চলে সরকারি বাহিনীর সঙ্গে টিপিএলএফের নতুন করে সংঘাত শুরু হয়। এই সংঘাতের জন্য উভয়পক্ষ পরস্পরকে দায়ী করেছে।

সূত্র : ডয়েচে ভেলে

ওডি/কেএইচআর

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো. তাজবীর হোসাইন  

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড