• মঙ্গলবার, ২৫ জানুয়ারি ২০২২, ১১ মাঘ ১৪২৮  |   ১৭ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

মানবসম্পদ ব্যবস্থাপনায় কাজ করছে মালয়েশিয়ার মানবাধিকার কমিশন

  আহমাদুল কবির, মালয়েশিয়া প্রতিবেদন

০৭ জানুয়ারি ২০২২, ১৪:৫৭
মানবসম্পদ ব্যবস্থাপনায় কাজ করছে মালয়েশিয়ার মানবাধিকার কমিশন
বিশ্রাম নিচ্ছেন প্রবাসী শ্রমিকরা (ছবি : অধিকার)

মানবসম্পদ ব্যবস্থাপনায় জোর-জবরদস্তি শ্রম ও মানবপাচারে আরোপিত অভিযোগ থেকে উত্তরণে মানবসম্পদ ব্যবস্থাপনায় কাজ করছে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশ মালয়েশিয়ার মানবাধিকার কমিশন।

আন্তর্জাতিক মান অর্জন করতে দেশীয় ও বিদেশি কর্মীর মানসম্পন্ন কাজ, বেতন, বাসস্থান, সেবা, এবং অভিবাসন ব্যয় নিয়ে দেশটির জাতীয় মানবাধিকার কমিশন কাজ করছে বলে গত ৩ জানুয়ারি ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে।

সোমবার (৩ জানুয়ারি) থেকে আমেরিকান কোম্পানি ডাইসনের সরবরাহকারী এটিএয়ের কর্মীদের স্ট্যান্ডার্ড শ্রম এবং আবাসনের পরিবেশ, সামাজিক চর্চায় (ইএসজি) উন্নতির জন্য জাতীয় মানবাধিকার প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে কাজ করবে।

শ্রম অধিকারের একজন হুইসেল ব্লেয়ারের অভিযোগের প্রেক্ষিতে মার্কিন অডিটের পর এটিএতে সমস্যা পায়। ফলে যুক্তরাষ্ট্র এসব নিষ্পেষিত শ্রমিকের হাতে উৎপাদিত পণ্য আমদানি বন্ধ করে। এতে মালয়েশিয়া থেকে পণ্য রফতানি বন্ধ হয়ে যায়।

একইভাবে গ্লাভস কোম্পানি এবং তাদের সহযোগী প্রতিষ্ঠানে কর্মীদের জোর-জবরদস্তি করে শ্রম এবং মানবপাচারের প্রমাণ পাওয়ায় যুক্তরাষ্ট্র, ব্রিটেন এবং ইউরোপ গ্লোভ আমদানি বন্ধ করে। এমনকি সকল কোম্পানি মাইগ্রেশনের অতিরিক্ত খরচ ফেরত দেয়। এই অতিরিক্ত অভিবাসন ব্যয় হয়েছে নিজ দেশ থেকে মালয়েশিয়ায় আসার জন্য, বিশেষ করে বাংলাদেশ ও নেপালের নাম উঠে এসেছে।

আরও পড়ুন : ‘বুল্লি বাই’ অ্যাপ দিয়ে কী হচ্ছিল ভারতে?

উল্লেখ্য, বাংলাদেশ থেকে কর্মী নিয়োগের জি টু জি প্লাসের সময় সংঘটিত অতিরিক্ত অভিবাসন ব্যয়ের বিষয়টি এ ক্ষেত্রে কাজ করেছে যা মালয়েশিয়াকে বিপদেই ফেলেছে। এ থেকে উত্তরণের জন্য মালয়েশিয়া সরকার বিভিন্ন ধরনের পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে।

এ দিকে কর্মী সংকট মোকাবিলায় বাংলাদেশ থেকে কর্মী নিয়োগের জন্য সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করেছে দেশটি। এখন জল্পনা কল্পনা চলছে যে জি টু জি প্লাসের ডিসপিউটেড ঘটনার পুনরাবৃত্তি হবে কি না, যদি হয় তাহলে মালয়েশিয়া আন্তর্জাতিক বাজার আরও হুমকিতে পড়বে বলে আশঙ্কা রয়েছে উৎপাদনকারীদের।

যেমন- প্ল্যান্টেশন ও রফতানিমুখী শিল্প উৎপাদক শূন্য খরচে কর্মী আনতে প্রস্তুত আছে কিন্তু এসব বিষয় এখনো চূড়ান্ত হয়নি। এ দিকে মালয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী দাতুক সেরী হামজাহ জয়নুদিন বিদেশি কর্মী নিয়োগে বাংলাদেশের ক্ষেত্রে গতবারের এবং ২০০৬/০৭ সালের পুনরাবৃত্তি যেন না হয়; সে বিষয়ে সংসদে বক্তব্য দিয়েছেন।

ইতোমধ্যে সুহাকাম রিপোর্ট করা বাধ্যতামূলক করেছে এবং শ্রমের অভিযোগ যাচাই করতে গত বছরের ২৭ সেপ্টেম্বর সুবিধাগুলো পরিদর্শন শুরু করেছে এবং কোম্পানির উন্নতির জন্য প্রতিবেদন দিয়েছে। সুহাকাম নিশ্চিত করেছে, এটিএ তাদের অবস্থার উন্নতি করতে এক সঙ্গে কাজ করবে।

আরও পড়ুন : জ্বালানির মূল্যবৃদ্ধিতে কাজাখস্তানে বিক্ষোভ, সরকারের পতন

সুপারম্যাক্স নতুন বিদেশি কর্মী ব্যবস্থাপনা নীতি কার্যকর করে ২০২১ সালে ঘোষণা দিয়েছে। সোমবারের বিবৃতিতে সুপারম্যাক্স বলেছে, তারা আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার (আইএলও) মান পূরণ করার উদ্যোগ গ্রহণ করেছে।

ওডি/কেএইচআর

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

সহযোগী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড