• রোববার, ২৩ জানুয়ারি ২০২২, ৯ মাঘ ১৪২৮  |   ২৪ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

পাকিস্তানের পরমাণু শক্তিধর হওয়া ঠেকাতে হামলা চালিয়েছিল মোসাদ!

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক

০৭ জানুয়ারি ২০২২, ১৩:০৩
mossad logo
মোসাদের লোগো। ছবি: সংগৃহীত

বিশ্বের চতুর ও শক্তিধর গুপ্তচর সংস্থাগুলোর মধ্যে মোসাদ অন্যতম। সম্প্রতি ইজরায়েলের এই গুপ্তচর সংস্থা সম্পর্কে সামনে এসেছে এক চাঞ্চল্যকর তথ্য। একটি বিদেশি সংবাদমাধ্যমের দাবি, পাকিস্তানকে পারমাণবিক শক্তিধর দেশ হয়ে ওঠা আটকাতেই ইউরোপের একাধিক দেশে হামলা চালিয়েছিল মোসাদ।

১৯৮০ সালের দিকে পারমাণবিক অস্ত্র সমৃদ্ধ দেশ হওয়ার দৌড়ে নামে পাকিস্তান। পারমাণবিক শক্তিধর রাষ্ট্র হিসেবে পাকিস্তানকে গড়ে তুলতে পর্দার পেছনে ছিল জার্মানি, সুইজারল্যান্ড সহ ইউরোপের বিভিন্ন দেশ। অভিযোগ, জার্মান ও সুইস সংস্থাগুলির বিরুদ্ধে গুপ্ত হামলার ষড়যন্ত্র করেছিল মোসাদ।

রবিবার সুইজারল্যান্ডের একটি দৈনিকে এই সংক্রান্ত একটি রিপোর্ট বেরিয়েছে। মঙ্গলবার আবার একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে জেরুজালেম পোস্টে। সেই রিপোর্টে বলা হয়েছে, ৮০ পরবর্তী সময়ে পাকিস্তান যাতে পরমাণু শক্তিধর দেশ হয়ে উঠতে পারে, তার জন্য সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছিল ইরান। আর সেই সময়ে ইরানের সঙ্গে সুইজারল্যান্ড ও জার্মানির বিভিন্ন কোম্পানির নিবিড় যোগাযোগ ছিল।

সূত্রের খবর, পাক পরমাণু বিজ্ঞানী আবদুল কাদির খান সুইজারল্যান্ড ও জার্মানি সহ ইউরোপের বিভিন্ন দেশে পাড়ি দেন। উদ্দেশ্য ছিল, পারমাণবিক প্রযুক্তি ও ব্লুপ্রিন্ট সুরক্ষিত রাখা। ১৯৮৭ সালে জুরিখের একটি হোটেলে ইরানের পারমাণবিক শক্তি সংস্থার এক প্রতিনিধি দলের সঙ্গে আবদুল কাদির খান গোপন বৈঠক করেন। সেই বৈঠকের নেতৃত্বে ছিলেন ইরানের পারমাণবিক শক্তি কমিশনের প্রধান ইঞ্জিনিয়ার মাসুদ নারাঘি। সেখানে উপস্থিত ছিলেন দুই জার্মান ইঞ্জিনিয়ার গথার্ড লার্চ এবং হেইঞ্জ মেবাস।

সুইজারল্যান্ডের পর তারা দুবাইয়েও একটি গোপন বৈঠক করেন। সেই বৈঠকের খবর পৌঁছে যায় মোসাদের এজেন্টদের কাছে। এরপরই তদানীন্তন পশ্চিম জার্মানির তিনটি সংস্থায় বিস্ফোরণ ঘটে। কে বা কারা এই ঘটনার পিছনে ছিল, তা জানা যায়নি। তবে, সন্দেহের তীর বরাবরই ছিল মোসাদের দিকে। এই রিপোর্ট প্রকাশ্যে আসতে স্বভাবতই নতুন করে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

সহযোগী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড