• বৃহস্পতিবার, ২৭ জানুয়ারি ২০২২, ১৩ মাঘ ১৪২৮  |   ২১ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

যুক্তরাজ্যে সামাজিক সংক্রমণে ছড়িয়েছে ‘ওমিক্রন’

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক

০৭ ডিসেম্বর ২০২১, ১৭:০৫
যুক্তরাজ্যে সামাজিক সংক্রমণে ছড়িয়েছে ‘ওমিক্রন’
স্বাস্থ্যকেন্দ্রে চিকিৎসা নিচ্ছেন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীরা (ছবি : বিবিসি নিউজ)

যুক্তরাজ্যে মহামারি করোনা ভাইরাসের শক্তিশালী ধরন ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্টে আক্রান্ত রোগী শনাক্তের পর থেকে দেশজুড়ে বেশ দ্রুতগতিতে ছড়িয়ে পড়ছে প্রাণঘাতী ভাইরাসটির নতুন এই ধরন। এমনকি ব্রিটেনের বিভিন্ন অঞ্চলে ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্টের সামাজিক সংক্রমণও হচ্ছে বলে জানিয়েছেন ব্রিটিশ স্বাস্থ্যমন্ত্রী সাজিদ জাভিদ।

সোমবার (৬ ডিসেম্বর) স্থানীয় সময় বিকালে তিনি এসব কথা বলেন বলে প্রতিবেদন প্রকাশের মাধ্যমে জানিয়েছে ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স এবং সংবাদমাধ্যম বিবিসি নিউজ। যদিও যুক্তরাজ্যের স্বাস্থ্যমন্ত্রীর দাবি, করোনার ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্ট মহামারির পুনরুদ্ধার কার্যক্রম থেকে ব্রিটেনকে ছিটকে ফেলবে কি-না, সেটি বিচার করার সময় এখনো আসেনি।

দক্ষিণ আফ্রিকায় প্রথম শনাক্ত করোনার নতুন এই ধরন ছড়িয়ে পড়া রুখতে ব্রিটেন সরকারের কঠোর বিধিনিষেধ আরোপের পক্ষ নিয়ে সোমবার ব্রিটিশ পার্লামেন্টে তিনি বলেন, ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্ট মোকাবিলায় চেষ্টার কোনো কমতি রাখছে না তার সরকার। একই সঙ্গে বিজ্ঞানীরাও ভাইরাসের এই ধরনটি নিয়ে গবেষণা করছেন এবং কতটা বিপজ্জনক হতে পারে সেটি বুঝে ওঠার চেষ্টা করছেন।

ব্রিটেনের স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, যুক্তরাজ্যে এখন মোট ওমিক্রনে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ৩৩৬ জন। এর মধ্যে ইংল্যান্ডে ২৬১ জন, স্কটল্যান্ডে ৭১ জন এবং ওয়েলসে চারজন। কোভিড আক্রান্তদের মধ্যে এমন অনেকে আছেন, যাদের বিদেশে ভ্রমণের কোনো ইতিহাস নেই। তাই আমরা এ বিষয়ে নিশ্চিত যে, ইংল্যান্ডের বহু এলাকায় এখন ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্টের সামাজিক সংক্রমণ হচ্ছে।

এ দিকে ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্ট মোকাবিলায় বর্তমানে নতুন করে আর কোনো বিধিনিষেধ আরোপ করার প্রয়োজন নেই বলে সোমবার জানিয়েছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। কিন্তু আগামী বড়দিনের আগে এই বিধিনিষেধ বাতিলের বিষয়টিও প্রত্যাখ্যান করেছেন তিনি।

আরও পড়ুন : সব ধর্মের সম্মিলন চায় চীন : জিনপিং

করোনার নতুন ধরন ওমিক্রনের সংক্রমণ ঠেকাতে এরই মধ্যে মাস্ক বাধ্যতামূলক করেছে যুক্তরাজ্য। গত মাসের শেষের দিক থেকে দেশটির সব ধরনের যানবাহন, দোকান, ব্যাংক ও সেলুনে মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করা হয়।

এছাড়া বিদেশ থেকে আসা যাত্রীদের যুক্তরাজ্যে পৌঁছানোর দুই দিনের মধ্যে পিসিআর টেস্ট করানো এবং টেস্টের রিপোর্ট আসার আগ পর্যন্ত তাদের কোয়ারেন্টিনে থাকার নির্দেশ দিয়েছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন।

করোনা ভাইরাসে মৃত্যু, আক্রান্ত ও সুস্থতার হিসাব রাখা ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডো মিটারস থেকে পাওয়া সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, শেষ ২৪ ঘণ্টায় যুক্তরাজ্যে নতুন করে মহামারি করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৫১ হাজার ৪৫৯ জন। আর মারা গেছেন ৪১ জন।

মহামারির শুরু থেকে দেশটিতে এ পর্যন্ত এক কোটি পাঁচ লাখ ১৫ হাজার ২৩৯ জন সংক্রমিত হয়েছেন। এর মধ্যে মারা গেছেন এক লাখ ৪৫ হাজার ৬৪৬ জন।

আরও পড়ুন : সাজা কমল সু চির

উল্লেখ্য, ২০১৯ সালের ডিসেম্বর মাসে এশিয়ার পরাশক্তি চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহরে প্রথম করোনা ভাইরাসে সংক্রমিত রোগী শনাক্ত হয়। এরপর গত বছরের ১১ মার্চ প্রাণঘাতী ভাইরাসটিকে ‘বৈশ্বিক মহামারি’ হিসেবে ঘোষণা করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)। এর আগে একই বছরের ২০ জানুয়ারি সংস্থাটি বিশ্বজুড়ে জরুরি পরিস্থিতি ঘোষণা করে।

ওডি/কেএইচআর

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

সহযোগী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড