• সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৮  |   ২৪ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

ইংলিশ চ্যানেল থেকে ২৫০ অভিবাসন প্রত্যাশী উদ্ধার

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক

২৩ নভেম্বর ২০২১, ১১:২৫
ইংলিশ চ্যানেল থেকে ২৫০ অভিবাসন প্রত্যাশী উদ্ধার
ইংলিশ চ্যানেলে নৌকায় ভাসমান অভিবাসন প্রত্যাশীরা (ছবি : বিবিসি নিউজ)

অবৈধভাবে ইংলিশ চ্যানেল অতিক্রম করতে গিয়ে ইউরোপের দেশ ফ্রান্সের হাতে আটক হয়েছেন প্রায় ২৫০ অভিবাসন প্রত্যাশী। অবৈধভাবে ফ্রান্স থেকে যুক্তরাজ্যে যাওয়ার পথে গেল শুক্রবার ও শনিবার তাদের আটক করা হয়।

সোমবার (২২ নভেম্বর) ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে জানানো হয়, অভিবাসন প্রত্যাশীরা ভাগ হয়ে বেশ কয়েকটি নৌকায় চেপে ফ্রান্স থেকে ব্রিটেনে প্রবেশের চেষ্টা চালায়। যদিও শনিবার রাতে নৌকাগুলোর অবস্থা ভীষণ খারাপ হয়ে গেলে তারা বিপদে পড়েন। এদের মধ্যে বেশ কিছু নারী ও শিশু রয়েছে। এরপর খবর পেয়ে দ্রুত অভিযান চালিয়ে তাদের উদ্ধার করে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।

বর্তমানে এসব অভিবাসন প্রত্যাশীদের ফ্রান্সের ডানকার্ক, বুলোন এবং ক্যালাইসের বন্দরে ফিরিয়ে আনা হয়েছে। একই সঙ্গে দেশটির সীমান্ত পুলিশ এবং উদ্ধারকারী ক্রুদের কাছেও অনেককে হস্তান্তর করা হয়। যদিও উদ্ধারকৃত এসব শরণার্থীর পরিচয় এখনো প্রকাশ করেনি সংশ্লিষ্টরা।

বিশ্লেষকদের মতে, চলতি বছর ২৩ হাজারের অধিক অভিবাসী নৌকায় চেপে ফ্রান্স থেকে যুক্তরাজ্যে প্রবেশ করেছেন। যদিও ২০২০ সালে মাত্র আট হাজার চারশ চারজন অভিবাসী ব্রিটিশ ভূখণ্ডে প্রবেশ করেছিলেন। যা আগের তুলনায় অনেক বেশি। চ্যানেলের মাধ্যমে যুক্তরাজ্য আসা ব্যক্তিদের মধ্যে রাজনৈতিক আশ্রয়ের জন্য আবেদন করেন প্রায় ৯৮ শতাংশ মানুষ। যদিও মহামারি কোভিড-১৯ এর কারণে বিশ্বব্যাপী ভ্রমণ সীমিত হওয়ার কয়েক মাস পরে আশ্রয়ের জন্য সামগ্রিক আবেদন কমেছে। এই সংখ্যা করোনা ভাইরাসের তাণ্ডব শুরুর আগের তুলনায় কিছুটা কম।

আরও পড়ুন : ‘চীন কোনো আধিপত্য চায় না’

এ দিকে ইউকে পার্লামেন্ট বলছে, ২০১৯ সালে আশ্রয় প্রার্থীদের সংখ্যা ছিল ৩৫ হাজার সাতশ ৩৭ জন। আর ২০২০ সালে ২৯ হাজার আটশ ৮১৫। আর বর্তমানে সেটি ১৪ হাজার ৬১৭ জনে দাঁড়িয়েছে।

অপর দিকে ব্রিটিশ কর্মকর্তারা বলছেন, আমরা চ্যানেল ক্রসিং বন্ধ করতে চাই। কারণ এভাবে মানুষ পার হওয়া অত্যন্ত বিপজ্জনক এবং অপ্রয়োজনীয়।

আরও পড়ুন : মিয়ানমারে পানিতে ডুবে নিহত ১৫

উল্লেখ্য, সম্প্রতি শরণার্থী সংকটের জন্য ফ্রান্সের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জেরাল্ড ডারমানিন যুক্তরাজ্যকেই দায়ী করেছেন। তিনি বলেন, ব্রিটেনের শ্রম আইন অভিবাসন প্রত্যাশীদের ডিঙি নৌকায় চাপিয়ে ইংলিশ চ্যানেল হয়ে ইংল্যান্ডে প্রবেশে উৎসাহিত করে। ইংলিশ চ্যালেন হয়ে ইউরোপে প্রবেশের চেষ্টায় প্রায়ই আটক হন বিভিন্ন দেশের অভিবান প্রত্যাশীরা।

ওডি/কেএইচআর

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

সহযোগী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড