• মঙ্গলবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০২১, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৮  |   ২৪ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

বিশ্বে টিকা সংকট

যুক্তরাষ্ট্রে নষ্ট হলো করোনার দেড় কোটি ডোজ

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক

১৭ অক্টোবর ২০২১, ১১:৪৮
যুক্তরাষ্ট্রে নষ্ট হলো করোনার দেড় কোটি ডোজ
করোনা ভাইরাস প্রতিরোধী ভ্যাকসিন (ছবি : ডয়েচে ভেলে)

বিশ্বের বিভিন্ন অঞ্চলে মহামারি করোনা ভাইরাস প্রতিরোধী টিকার বিপুল সংকট দেখা দিলেও অন্তত দেড় কোটির বেশি ডোজ নষ্ট হয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে।

দেশটির সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন (সিডিসি) একটি পর্যালোচনায় বলা হয়, চলতি বছরের মার্চ মাস থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত অন্তত দেড় কোটি ডোজ ভ্যাকসিন ফেলে দেওয়া হয়েছে। পৃথক অনুসন্ধানে উঠে এসেছে- দশটি অঙ্গরাজ্যে গত বছরের ডিসেম্বর মাস থেকে এই বছরের জুলাই মাসে ফেলে দেওয়া টিকার ডোজের সংখ্যা দশ লাখ।

ব্রিটিশ মিডিয়া দ্য গার্ডিয়ানের খবরে বলা হয়, যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন অঙ্গরাজ্যে অব্যবহৃত ডোজ ফেলে দেওয়া হচ্ছে। লুইজিয়ানাতে ফেলে দেওয়া অব্যবহৃত ডোজের সংখ্যা ২ লাখ ২৪ হাজার। এখানে চতুর্থ ঢেউয়ের ভয়াবহ প্রকোপ থাকলেও জুলাই মাসের শেষের দিকে ফেলে দেওয়া ডোজের সংখ্যা বৃদ্ধি। কিছু ডোজ নষ্ট হয়েছে ভায়াল খোলা ও সব ডোজ সম্পূর্ণ না হওয়াতে। যদিও ২০ হাজারের বেশি ডোজ নষ্ট হয়েছে মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়ার কারণে।

উইসকনসিনে প্রতিদিন হাজারো ডোজ অপচয় হয়েছে। আলাবামাতে ৬৫ হাজারের বেশি এবং টেনেসিতে প্রায় ২ লাখ ডোজ ফেলে দেওয়া হয়েছে।

অবশ্য ফেলে দেওয়া ডোজের সংখ্যা টিকা দেওয়ার তুলনায় অনেক কম। যেমন- লুইজিয়ানাতে ৪৪ লাখ ডোজ সফলভাবে দেওয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন : করোনায় ৪৯ লাখ নয় হাজার মৃত্যু দেখল বিশ্ব

যদিও এমন সময় এই ফেলে দেওয়ার খবর সামনে এলো যখন বিশ্বের অনেক স্থানে মানুষ প্রথম ডোজ পাওয়ার অপেক্ষাতে রয়েছেন। জুলাই পর্যন্ত নিম্ন আয়ের দেশগুলোর মাত্র ১ শতাংশ মানুষ প্রথম ডোজ টিকা পেয়েছেন। তুলনায় উচ্চ আয়ের অনেক দেশে অর্ধেকের বেশি মানুষ প্রথম ডোজ পেয়েছেন।

যুক্তরাষ্ট্রে ফেলে দেওয়া ডোজগুলোর বেশিরভাগ এসেছে ফার্মেসি থেকে। মে মাসে দুটি ফার্মেসি চেইন অঙ্গরাজ্য ও অঞ্চল ও কেন্দ্রীয় সংস্থার তুলনায় বেশি ডোজ নষ্ট করেছে। ওই মাসের মোট নষ্ট হওয়া ডোজের তিন-চতুর্থাংশ এই দুটি ফার্মেসি চেইন নষ্ট করেছে। এখন পর্যন্ত চারটি গুরুত্বপূর্ণ ফার্মেসি চেইন, সিভিএস, ওয়ালগ্রিন্স, ওয়ালমার্ট ও রাইট এইড নষ্ট করেছে অন্তত ৭৬ লাখ ডোজ।

ভ্যাকসিনের ডোজ নষ্ট হওয়ার অনেকগুলো কারণ রয়েছে। অনেক সময় ভায়াল ভেঙে যায় অথবা নির্ধারিত ডোজ থাকে না; অনেক সময় সিরিঞ্জের সুঁই ঠিকমতো কাজ করে না; ফ্রিজ নষ্ট হয়ে পড়ে বা বিদ্যুৎ চলে যায়। আবার অনেক সময় নির্ধারিত সময়ে মানুষ টিকা নিতে হাজির হন না ফলে সেই ভায়ালটি অব্যবহৃত হিসেবে পড়ে থাকে।

মার্কিন মিডিয়া এনবিসি নিউজ জানিয়েছে, চলতি বছরের জুন মাসের আগে ২০ লাখের বেশি ডোজ নষ্ট হয়েছিল। যদিও গ্রীষ্মে প্রাণঘাতী ভাইরাসটির প্রকোপ বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে নষ্ট ডোজের সংখ্যাও বেড়েছে। এ সময় টিকার মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়া ছিল নষ্ট হওয়ার অন্যতম কারণ।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের প্রশাসন যুক্তরাষ্ট্রে বুস্টার ডোজের জন্য মজুত করে রাখা টিকা ব্যবহারে চাপ দিচ্ছেন। একই সঙ্গে কর্মকর্তারা উৎপাদনকারী কোম্পানিগুলোর সঙ্গে আলোচনা করছেন ভায়ালে ডোজের সংখ্যা কমিয়ে আনার জন্য।

বৈশ্বিক বৈষম্যের মধ্যে বিভিন্ন অঙ্গরাজ্যে অব্যবহৃত টিকার ডোজগুলো দান করে নষ্ট হওয়া এড়ানো সহজ না। অঙ্গরাজ্যগুলোকে বিতরণ করা টিকা পুনরায় আন্তর্জাতিকভাবে ব্যবহারের জন্য ফিরিয়ে আনা সম্ভব হয় আমলান্ত্রিক ও নিরাপত্তা উদ্বেগের কারণে সম্ভব না।

বিশ্লেষকদের মতে, জো বাইডেন আগামী বছর বিশ্বের ৭০ শতাংশ মানুষকে টিকাদানের অঙ্গীকার করেছেন। বিভিন্ন দেশকে লাখ লাখ ডোজ ভ্যাকসিন দানের আশ্বাসও দিয়েছেন। কিন্তু এখনই বিভিন্ন দেশ তাদের ঝুঁকিপূর্ণ ও মহামারিতে ফ্রন্ট লাইনে থাকা কর্মীদের টিকা দিতে হিমশিম খাচ্ছে। যেখানে মার্কিনিরা টিকা নিতে অনীহা প্রকাশ করছেন।

আরও পড়ুন : চাপের মুখে জলবায়ু সম্মেলনে যোগ দিচ্ছেন অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী

বুধবার বাইডেন প্রশাসনের কোভিড-১৯ মোকাবিলায় প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ডেভিড কেসলার বলেছেন, টিকা উৎপাদনকারীদের উচিৎ বৈশ্বিক সংকট মেটাতে উৎপাদন বাড়ানো উচিৎ। যেমন- টিকা উৎপাদনের কথা যখন আসে তখন মডার্নাকে একটি কোম্পানি হিসেবে ভূমিকা রাখা উচিৎ।

ওডি/কেএইচআর

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

সহযোগী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড