• রোববার, ২৫ জুলাই ২০২১, ১০ শ্রাবণ ১৪২৮  |   ৩৩ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

পাক-আফগান ‘ফ্রেন্ডশিপ গেইট’ দখলে নিল তালিবান

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক

১৫ জুলাই ২০২১, ১৪:৫২
পাক-আফগান ‘ফ্রেন্ডশিপ গেইট’ দখলে নিল তালিবান
পাক-আফগান ‘ফ্রেন্ডশিপ গেইট’ (ছবি : দ্য ডন)

পাকিস্তানের সমুদ্রবন্দরগুলোর সঙ্গে আফগানিস্তানের দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর কান্দাহারের যোগাযোগের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ প্রবেশদ্বারটি দখলে নিয়েছে সশস্ত্র সংগঠন তালিবান যোদ্ধারা।

বৃহস্পতিবার (১৫ জুলাই) ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে জানানো হয়, আফগানিস্তানের স্পিন বলদাক সীমান্তে ওয়েশ-চামান সীমান্ত ক্রসিং দখলে নেওয়ার পর একটি ভিডিয়ো বার্তা প্রচার করেছে তালিবান বাহিনী।

আফগানিস্তান থেকে যুক্তরাষ্ট্রের সেনা প্রত্যাহারের পর এই সীমান্ত ক্রসিং দখল করা তালিবানের অন্যতম বড় সাফল্য হিসেবে দেখা হচ্ছে।

তালিবানের প্রচারিত ভিডিয়োতে দেখা গেছে, সীমান্তের ‘পাকিস্তান-আফগানিস্তান ফ্রেন্ডশিপ গেইটের’ সামনে যোদ্ধারা সাদা কাপড়ে কালো অক্ষরে লেখা পতাকা ওড়াচ্ছে।

এই ক্রসিংয়ের এক পাশে আফগানিস্তানের ওয়েশ শহর অন্যপাশে পাকিস্তানের চামান শহর অবস্থিত।

ভিডিয়োতে ক্যামেরার সামনে এক তালিবান যোদ্ধা বলেন, আমেরিকা ও তার পাপেটদের দুই দশকের নিষ্ঠুরতার পর এই গেইট এবং স্পিন বলদাক জেলা তালেবানের দখলে এসেছে। মুজাহিদিন এবং এর জনগণের দৃঢ় প্রতিরোধ শত্রুকে এই এলাকা ত্যাগ করতে বাধ্য করেছে। আপনারা দেখতে পাচ্ছেন, এটা ইসলামি আমিরাতের পতাকা। এই পতাকা ওড়ানোর জন্য হাজারো মুজাহিদিন তাদের রক্তপাত করেছে।

আরও পড়ুন : জোরপূর্বক শ্রম-মানবপাচার রোধে শক্ত অবস্থানে মালয়েশিয়া

স্পিন বলদাক জেলার এই সীমান্ত ক্রসিংটি সেদেশের দ্বিতীয় ব্যস্ততম প্রবেশদ্বার। আফগানিস্তানের দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর কান্দাহারের সঙ্গে পাকিস্তানের সমুদ্রবন্দরগুলোর যোগাযোগের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্ট এটা। সেদেশের দক্ষিণাঞ্চলের বাণিজ্যের ধমনী হিসেবে বিবেচনা করা হয় এই সীমান্ত ক্রসিংটিকে।

আফগানিস্তানের সরকারি তথ্য থেকে জানা যায়, দিনে ৯০০ ট্রাক এই সীমান্ত পথ ব্যবহার করে আসছিল।

আফগান কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, সরকারি বাহিনী তালিবান যোদ্ধাদের হঠিয়ে দিয়েছে এবং জেলার নিয়ন্ত্রণ এখনো তাদের কাছেই আছে। তবে সাধারণ নাগরিক ও পাকিস্তানের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন ক্রসিংয়ের নিয়ন্ত্রণ এখনো তালিবানের হাতেই রয়েছে।

সীমান্ত এলাকায় দায়িত্ব পালনকারী পাকিস্তানের এক নিরাপত্তা কর্মকর্তা বলেন, ওয়েশ, পাকিস্তানের সঙ্গে আফগানিস্তানের বাণিজ্যের ক্ষেত্রে যে শহরটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ, দখলে নিয়েছে তালিবান যোদ্ধারা।

পাকিস্তানের চামান শহরের কর্মকর্তারা জানান, ফ্রেন্ডশিপ গেইট দিয়ে সব ধরনের যাতায়াত স্থগিত করে রেখেছে তালিবান যোদ্ধারা।

আরও পড়ুন : রিপাবলিকানদের ভোটিং বিল ‘আন-আমেরিকান’ : বাইডেন

সম্প্রতি হেরাত, ফারাহ ও কুন্দুজ প্রদেশের গুরুত্বপূর্ণ সীমান্ত ক্রসিংও দখল করেছে তালিবান বাহিনী।

এ দিকে উত্তরাঞ্চলের বালখ প্রদেশে সফররত আফগান প্রেসিডেন্ট আশরাফ ঘানি মঙ্গলবার সেখানকার নাগরিকদের সঙ্গে দেখা করেন এবং তাদের আশ্বস্ত করেন যে ‘তালিবানের মেরুদণ্ড গুঁড়িয়ে দেওয়া হবে।’

ওই প্রদেশেও তালিবান যোদ্ধারা সরকারি বাহিনীকে পরাস্ত করে বেশ কয়েকটি জেলার নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে।

প্রেসিডেন্ট ঘানি নাগরিকদের বলেন, সরকারি বাহিনী দ্রুতই তালেবানের কাছে হারানো এলাকার নিয়ন্ত্রণ পুনরুদ্ধার করবে।

পশ্চিমাঞ্চলের প্রদেশ হেরাতে একজন নিরাপত্তা কর্মকর্তা জানান, তালিবান বাহিনী সালমা বাঁধে কয়েক দফা মর্টার হামলা চালিয়েছে। জলবিদ্যুৎ উৎপাদন ও সেচ প্রকল্পের জন্য এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা।

আফগান ভাইস প্রেসিডেন্ট আমরুল্লাহ সালেহ বলেন উত্তরের বাদাখশান প্রদেশে তালিবান যোদ্ধারা স্থানীয় সংখ্যালঘু কিরঘিজ আদিবাসীদের বাধ্য করছে ইসলাম গ্রহণ করতে অথবা তাদের ভিটেমাটি ছেড়ে যেতে। শতাব্দীর পর শতাব্দী ধরে সেখানে বসবাস করে আসা ওইসব আদিবাসী এখন সীমান্ত পার হয়ে তাজিকিস্তানে তাদের ভবিষ্যতের জন্য অপেক্ষা করছে।

আরও পড়ুন : বিধিনিষেধে সরকারি কর্মকর্তাদের কর্মস্থলে থাকার নির্দেশ

আফগান বাহিনী ও তালিবান যোদ্ধাদের মধ্যে লড়াই থামানোর বিষয়ে কাতারে কয়েক দফা বৈঠক হলেও তেমন অগ্রগতি অর্জিত হয়নি। কাবুল থেকে কূটনীতিকরা আবারও আলোচনার জন্য কাতারে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছেন।

ওডি/কেএইচআর

jachai
niet
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
niet