• বৃহস্পতিবার, ১৭ জুন ২০২১, ৩ আষাঢ় ১৪২৮  |   ২৭ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

আফগানিস্তানে স্থলমাইন বিস্ফোরণে নিহত ১১

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক

০৬ জুন ২০২১, ১৩:২৫
আফগানিস্তানে স্থলমাইন বিস্ফোরণে নিহত ১১
মাটিতে পরিত্যক্ত স্থলমাইন (ছবি : আফগান টাইমস)

আফগানিস্তানের উত্তরাঞ্চলীয় সড়কে পেতে রাখা স্থলমাইন বিস্ফোরণে তিন শিশুসহ একটি গাড়ির অন্তত ১১ আরোহীর মৃত্যু হয়েছে।

শনিবার (৫ জুন) বাডগিস প্রদেশে ঘটনাটি ঘটেছে বলে পরদিন দেশটির সরকারি কর্মকর্তারা জানিয়েছেন। বোমাটি পেতে রাখার জন্য তারা তালিবান বিদ্রোহীদের দায়ী করেছেন।

রবিবার (৬ জুন) বাডগিসের গভর্নর হুসামুদ্দিন শামস জানিয়েছেন, ওই ১১ জন যাত্রী কালা-ই-নাও শহরের দিকে যাওয়ার সময় মাইন বিস্ফোরণে নিহত হন।

সশস্ত্র সংগঠন তালিবানসহ কোনো সন্ত্রাসী গোষ্ঠীই হামলাটির দায় স্বীকার করেনি বলে এরই মধ্যে ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে।

ভয়াবহ এ ঘটনার মধ্যেই কাতারে আফগানিস্তানের শান্তি প্রক্রিয়া, কূটনীতিকদের ও আফগানিস্তানে কর্মরত মানবিক ত্রাণ সংস্থাগুলোর কর্মীদের সুরক্ষা ইস্যুতে জাতিসংঘের কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠকে বসেছেন তালিবানের জ্যেষ্ঠ নেতারা।

জাতিসংঘ কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠকে তালিবানের রাজনৈতিক দপ্তরের উপপ্রধান শের মোহাম্মদ আব্বাস স্টানেকজাই ‘আফগানিস্তানের শান্তি প্রক্রিয়ার প্রতি জোরাল প্রতিশ্রুতির পুনরাবৃত্তি’ করেছেন বলে গোষ্ঠীটির মুখপাত্র জানিয়েছেন।

বৈঠকে উপস্থিত তালিবান প্রতিনিধি দল আফগানিস্তান ভিত্তিক জাতিসংঘের সঙ্গে সম্পর্কিত সংস্থাগুলোর কর্মীদের ও অন্যান্য কূটনীতিকদের নিরাপত্তার আশ্বাসও দিয়েছে।

আরও পড়ুন : ইয়েমেনে ভয়াবহ বিস্ফোরণে শিশুসহ নিহত ১২

কাতারে তারা এমন প্রতিশ্রুতি দিলেও দেশে সরকারি বাহিনীগুলো ও বেসামরিকদের বিরুদ্ধে অবিরত হামলার জন্য আফগান কর্মকর্তারা তালিবান বিদ্রোহীদের অভিযুক্ত করেছেন। বেশ কয়েকটি প্রদেশের সম্পূর্ণ ভূখণ্ডগত নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার জন্য বিদ্রোহী গোষ্ঠীটি এসব হামলা চালাচ্ছে বলে অভিযোগ আফগানিস্তানের সরকারি কর্মকর্তাদের।

সাম্প্রতিক মাসগুলোতে আফগানিস্তানে রাস্তার পাশে পেতে রাখা বোমা, যানবাহনের নিচে পেতে রাখা ছোট চুম্বুক বোমা ও অন্যান্য হামলাগুলোতে নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্য, বিচারক, সরকারি কর্মকর্তা, সুশীল সমাজের সদস্য ও সাংবাদিকদের লক্ষ্যস্থল করা হয়েছে।

সাধারণত দেশটির সরকার এসব হামলার জন্য তালিবানকে দায়ী করে। যদিও বিদ্রোহী গোষ্ঠীটি এসব হামলায় নিজেদের জড়িত থাকার কথা অস্বীকার করেছে।

এ দিকে ১১ সেপ্টেম্বরের মধ্যে আফগানিস্তান থেকে সব সেনা প্রত্যাহারের ঘোষণা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। ঐতিহাসিক এ ঘোষণা আসার পর থেকে আফগানিস্তানজুড়ে সহিংসতা ব্যাপক বৃদ্ধি পেয়েছে।

আরও পড়ুন : বুরকিনা ফাসোতে বন্দুকধারীদের হামলায় নিহত শতাধিক

গত এপ্রিলে জাতিসংঘ জানায়, চলতি বছরের প্রথম তিন মাসে আফগানিস্তানে সরকারি বাহিনী ও তালিবান বিদ্রোহীদের মধ্যে লড়াইয়ে প্রায় এক হাজার ৮০০ বেসামরিক নিহত হয়েছেন। দুই পক্ষের মধ্যে শান্তি আলোচনা চললেও মৃত্যুর সংখ্যা বেড়েই চলেছে।

ওডি/কেএইচআর

jachai
niet
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
niet

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড