• বুধবার, ১৪ এপ্রিল ২০২১, ১ বৈশাখ ১৪২৮  |   ২৮ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

বিশ্বের সবচেয়ে ব্যয়বহুল সবজি ‘হপ শুটস’

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক

০৩ এপ্রিল ২০২১, ১১:৫৪
হপ শুটস
বিশ্বের সবচেয়ে ব্যয়বহুল এই সবজি হপ শুটস। (ছবি: সংগৃহীত)

ভারতের বিহার রাজ্যের এক কৃষক নিজের জমিতে উৎপাদিত বিশেষ এক প্রকারের সবজি এক লাখ রুপি কেজিতে বিক্রি করে দেশটিতে হইচই ফেলে দিয়েছেন। ‘হপ শুটস’ নামের বিশ্বের সবচেয়ে ব্যয়বহুল এই সবজি চাষ করেছেন কৃষক অমরেশ সিং।

শুক্রবার (২ এপ্রিল) ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি এক প্রতিবেদনে বিশ্বের ব্যয়বহুল এই সবজি সম্পর্কে জানা যায়।

এতে বলা হয়েছে, আইএএসের নারী কর্মকর্তা সুপ্রিয় সাহু নিউ ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের একটি সংবাদ ও হপ শুটসের ছবি টুইট করে লিখেছেন, ‌‘এই সবজির প্রতি কেজির দাম এক লাখ। ভারতীয় কৃষকদের জন্য ‌গেম চেঞ্জার হতে পারে এই সবজি।’

এনডিটিভি বলছে, বিহারের আওরঙ্গবাদ জেলার করমনিধ গ্রামের ৩৮ বছর বয়সী অমরেশ সিং ভারতে প্রথম কৃষক হিসেবে ওই সবজি চাষের ঝুঁকি নিয়েছেন। বারানসিতে অবস্থিত ভারতীয় সবজি গবেষণা কেন্দ্র থেকে এই সবজি সংগ্রহ করেন তিনি।

ভারতের বাজারে এই সবজির দেখা মেলা ভার! শুধুমাত্র বিশেষ অর্ডারের ভিত্তিতেই তা মেলে এবং অর্ডারের পর হাতে পাওয়ার জন্য ক্রেতাকে দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করতে হয়।

আর্থিক প্রবৃদ্ধিতে সহায়তার আশায় ভারতে এখন হপ শুটস চাষে কৃষকদের উৎসাহ দেওয়া হচ্ছে। মূলত বহুবর্ষজীবী উদ্ভিদ হিউমুলাস লুপুলাসের ফুল হপস শুটস; যা ফুলের গাছ ক্যানাবেসিয়া গোত্রের সদস্য।

একটি গবেষণায় দেখা যায়— ফুল, কাণ্ড, ফল থেকে শুরু করে এই সবজির প্রত্যেকটি অংশের বহুবিধ ব্যবহার রয়েছে। তবে এটি বিয়ার শিল্পের জন্য বেশ উপকারী। কারণ স্থায়ী অ্যাজেন্ট হিসেবে বিয়ারের গুণগত মান দীর্ঘকাল ঠিক রাখতে কাজ করে এই সবজি।

গবেষকরা বলছেন, যক্ষ্মার প্রাকৃতিক প্রতিষেধক হিসেবেও হপস শুটসের সম্ভাবনা রয়েছে। সবজিটির অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট মানুষের ত্বকও আকর্ষণীয় করে তুলতে পারে। উদ্বেগ, অনিদ্রা এবং হতাশা প্রশমনের জন্য পরিচিত হপস শুটস।

হপস শুটসের চাষাবাদ সহজ নয়; যা এই সবজির উচ্চমূল্যের অন্যতম একটি কারণ। এটি অত্যন্ত ধীরগতিতে বেড়ে ওঠে।

এছাড়া ফুলটি সংগ্রহের সময় অত্যন্ত সতর্কতা অবলম্বন করতে হয়। অত্যন্ত ক্ষুদে আকৃতির হওয়ায় মাত্র একটি ব্যাগ ভর্তি করার জন্য অনেকগুলো হপ শুটস সংগ্রহ করতে হয়।

৭৩৬ সালে বিশ্বে প্রথম এই সবজি চাষ হয় ইউরোপের দেশ জার্মানিতে। ১০৭৯ সালের দিকে এটি পানীয়তে ব্যবহার শুরু করা হয়। পরে ধীরে ধীরে এই সবজির নানাবিধ ঔষধি গুণের কথা গবেষণায় জানতে পারেন বিজ্ঞানীরা।

সূত্র: এনডিটিভি, নিউ ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস

ওডি/জেআই

jachai
niet
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
niet

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড