• সোমবার, ২৫ জানুয়ারি ২০২১, ১১ মাঘ ১৪২৭  |   ১৬ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

‘২০ বছর ধরে ফখরিজাদেহকে মারতে চাইছিল শত্রুরা’

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক

০১ ডিসেম্বর ২০২০, ১০:২২
‘২০ বছর ধরে ফখরিজাদেহকে মারতে চাইছিল শত্রুরা’
গুপ্তহত্যার শিকার ইরানি বিজ্ঞানী মহসেন ফখরিজাদেহ (ছবি : ইরনা)

শত্রুরা গত ২০ বছর ধরে ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরানের শীর্ষ পরমাণু বিজ্ঞানী মহসেন ফখরিজাদেহকে হত্যার চেষ্টা করেছিল বলে দাবি দেশটির সর্বোচ্চ জাতীয় নিরাপত্তা পরিষদের সচিব আলি শামখানির। তিনি বলেছেন, ইরানি গোয়েন্দা সংস্থাগুলো বিশিষ্ট পরমাণু বিজ্ঞানী ফখরিজাদেহের ওপর সম্ভাব্য হামলা এবং এ রকম আক্রমণের সম্ভাব্য স্থানগুলোর ব্যাপারে পূর্বাভাস দিয়েছিল।

সোমবার (৩০ নভেম্বর) রাজধানী তেহরানের অদূরে বিজ্ঞানী ফখরিজাদেহের জানাযায় নামাজে অংশ নেন তিনি। সে সময় সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে আলী শামখানি বলেন, শত্রুরা গত ২০ বছর ধরে ইরানের এই বিশিষ্ট বিজ্ঞানীকে হত্যা করার চেষ্টা করে এসেছে।

আলী শামখানির মতে, দুঃখজনকভাবে ফখরিজাদেহের নিরাপত্তা ব্যবস্থায় শিথিলতা এসেছিল এবং শত্রুরা সেই সুযোগের সর্বোচ্চ সদ্ব্যবহার করেছে। তবে ফখরিজাদেহের মতো বিজ্ঞানীর সংখ্যা ইরানে কম নয় বলেও জানান তিনি। একজন ফখরিজাদেহকে হত্যা করলে শত শত ফখরিজাদেহের জন্ম হবে।

ইরানে সর্বোচ্চ নিরাপত্তা কর্মকর্তা শামখানি বলেন, ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরানের শত্রুরা ফখরিজাদেহের শিখিয়ে যাওয়া জ্ঞান ও প্রযুক্তি এদেশের তরুণ বিজ্ঞানীদের কাছ থেকে ছিনিয়ে নিতে পারবে না।

আরও পড়ুন : খুন হওয়া ইরানি বিজ্ঞানীর দাফন সম্পন্ন

ইরানের বিশিষ্ট পরমাণু বিজ্ঞানী এবং প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের গবেষণা ও উদ্ভাবন বিষয়ক সংস্থার চেয়ারম্যান মহসেন ফখরিজাদেহ শুক্রবার (২৭ নভেম্বর) সন্ধ্যায় সন্ত্রাসী হামলায় নিহত হন। রাজধানী তেহরানের পূর্বাঞ্চলে তার কাছাকাছি অন্য একটি গাড়ি থেকে রিমোট কন্ট্রোলড বন্দুকের মাধ্যমে এই হত্যাকাণ্ড চালানো হয়েছে বলে ইরানের আধা-সরকারি বার্তা সংস্থা ফার্সের এক প্রতিবেদনে প্রকাশ করা হয়েছে।

প্রথম থেকেই হত্যাকাণ্ডটির জন্য ইরানের শীর্ষ নেতারা ইসরায়েলকে দায়ী করে আসছেন। ইরানের সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহ আলি খামেনি এবং অন্যান্য নেতারা দেশটির প্রধান পরমাণু বিজ্ঞানী মহসেন ফখরিজাদেহের হত্যাকাণ্ডের প্রতিশোধ নেওয়ার অঙ্গীকার করেছেন।

রবিবার (২৯ নভেম্বর) ফার্স নিউজ জানিয়েছে, ফখরিজাদেহ গত শুক্রবার একটি বুলেটপ্রুফ গাড়িতে করে তার স্ত্রীকে নিয়ে কোথাও যাচ্ছিলেন। সে সময় নিরাপত্তা বাহিনীর তিনটি গাড়ি তাদের নিরাপত্তায় নিয়োজিত ছিল। তখন একটি গাড়িতে বুলেট লাগার শব্দ হয়। তিনি তখন কী ঘটেছে তা দেখার জন্য বের হন। তিনি গাড়ি থেকে বের হওয়ার পরপরই একটি রিমোট কন্ট্রোলড বন্দুক থেকে গুলি ছোড়া হয়।

আরও পড়ুন : এতটা অরক্ষিত ইরান! বিজ্ঞানী হত্যার আগেও গোপনে মিশন চালায় ইসরায়েল

প্রতিবেদনে বলা হয়, ফখরিজাদেহের গাড়ি থেকে ১৫০ মিটার দূর থেকে তাকে গুলি করা হয়েছিল। তাকে কমপক্ষে তিনবার গুলি করা হয়। তার দেহরক্ষীকেও গুলি করা হয়েছে। প্রায় তিন মিনিট ধরে তাদের ওপর হামলা চালানো হয়েছে।

jachai
niet
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
niet

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড