• মঙ্গলবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২০, ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৭  |   ২৪ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

কংগ্রেসে আবারও গৃহবিবাদ! 

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক

১৮ নভেম্বর ২০২০, ১৮:৩৬
করোনা
(বামদিক থেকে) অধীর রঞ্জন চৌধুরী ও কপিল সিব্বাল (ছবি : সংগৃহীত)

ভারতের প্রাচীনতম রাজনৈতিক দল জাতীয় কংগ্রেসে আবারও গৃহবিবাদ। বর্তমান লোকসভায় কংগ্রেস মনোনীত বিরোধীদলীয় নেতা অধীর রঞ্জন চৌধুরী এবার নিশানা করেছেন দলটির বর্ষীয়ান রাজনীতিক কপিল সিব্বালকে। সম্প্রতি কপিল সিব্বালের একটি মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে অধীর চৌধুরী তাকে দল ছেড়ে দিতে অথবা নতুন দল গড়তে আহ্বান জানান। কংগ্রেসের অভ্যন্তরে এ ধরনের বিবাদ বেশ কয়েক বছর ধরেই লক্ষ্য করা যাচ্ছে।

অতি সম্প্রতি বেশ কিছু নেতা, প্রবীণ কংগ্রেস নেতা গোলাম নবী আজাদের নেতৃত্বে দলীয় সভানেত্রীর উদ্দেশ্যে দলের নতুন নেতা নির্বাচনের বিষয়ে চিঠি লেখেন। সে সময়েও কিছু নেতার এমন তৎপরতাকে গান্ধী পরিবারের বিরুদ্ধে 'বিদ্রোহ' বলেই মনে করা হয়েছিল। এবার বিহার নির্বাচনে কংগ্রেসের মারাত্মক খারাপ ফলাফলের পর কপিল সিব্বাল বলেন, ঘোড়া আস্তাবল থেকে বেরিয়ে গেলে কি দলের টনক নড়বে? কপিল সিব্বালের এমন মন্তব্য কংগ্রেসের শীর্ষ নেতৃত্বের জন্য বেশ অস্বস্তিকর কারণ তিনি কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন সরকারের সময়ে তথ্য, মানব সম্পদ ও আইন মন্ত্রণালয়সহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ দপ্তরের মন্ত্রিত্ব সামলেছেন। এছাড়াও তিনি বর্তমানে ভারতের উচ্চকক্ষ রাজ্যসভার সাংসদ।

কপিল সিব্বালের মতো নেতার এমন মন্তব্যে বেশ চটেছেন পশশ্চিমবঙ্গ থেকে নির্বাচিত হয়ে আসা নেতা অধীর। তিনি বলেন, দলের অভিজ্ঞ নেতাদের মুখে এই ধরনের মন্তব্য শোভা পায় না। তিনি আরও বলেন, কিছু নেতার যদি মনে হয়, কংগ্রেস তাদের জন্য সঠিক দল নয়, তাহলে তারা নতুন দল গড়তেই পারেন। তার পাশাপাশি রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী ও কংগ্রেস নেতা অশোক গহলৌতও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। গহলৌত বলেন, দলের অভ্যন্তরীণ সমস্যা এভাবে সংবাদমাধ্যমে তুলে ধরা সমীচীন হয়নি।

এদিকে কংগ্রেসের বিহার নির্বাচনের জোটসঙ্গী রাষ্ট্রীয় জনতা দলের (আরজেডি) এক নেতাও অভিযোগ করেছেন, বিহার নির্বাচনের সময় রাহুল গান্ধী পিকনিক করতে গিয়েছিলেন। এখন পর্যন্ত বিহার নির্বাচনে কংগ্রেসের ভরাডুবি নিয়ে রাহুল গান্ধী, সোনিয়া গান্ধী বা প্রিয়াঙ্কা গান্ধীর মধ্যে কেউই প্রকাশ্যে মন্তব্য করেননি। গত লোকসভা নির্বাচনের পর কংগ্রেসের খারাপ ফলের জেরে অনেক শীর্ষ নেতাই হতাশা করেন। রাহুল গান্ধী পর্যন্ত তার নেতৃত্ব থেকে সরে দাড়ান। বর্তমানে সোনিয়া গান্ধী অন্তর্বর্তী সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করলেও স্থায়ী নেতা নির্বাচন করা এখন পর্যন্ত সম্ভব হয়নি। দলের প্রবীণ নেতারা মনে করেন, স্থায়ী নেতা না থাকলে দলকে সংঘটিত করা যাবে না। কপিল সিব্বাল সেইসব প্রবীণ নেতাদেরই একজন।

তবে কংগ্রেসের অভ্যন্তরে এমন গৃহবিবাদ শুরুর পর আজ সন্ধ্যায় দলটি জরুরী বৈঠক ডেকেছে। এখন দেখার বিষয় হলো, কংগ্রেস নেতৃত্বকে চিঠি লেখার জেরে গোলাম নবী আজাদসহ অন্যান্যদের মতো কপিল সিব্বালও গান্ধী পরিবার ও তাদের অনুগত নেতাদের তোপের মুখে পড়েন কি না। কংগ্রেস ক্ষমতার বাইরে থাকা অবস্থায় বারবারই অভ্যন্তরীণ বিবাদ দেখা যাচ্ছে। এর আগে দলের তরুণ নেতা জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া দল ছেড়েছেন, শচীন পাইলটের সঙ্গে অশোক গহলৌতের বিবাদ দেখা গেছে এবং এখন নতুন করে এই গৃহবিবাদ। দলটি এবারের সংকট কিভাবে সামাল দেয়- এটাই দেখার বিষয়। সূত্র: আনন্দবাজার পত্রিকা, এনডিটিভি।

ওডি/

jachai
niet
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
niet

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: +8801703790747, +8801721978664, 02-9110584 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড