• শুক্রবার, ১৪ আগস্ট ২০২০, ৩০ শ্রাবণ ১৪২৭  |   ২৯ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

লস অ্যাঞ্জেলেসেও স্বস্তি নেই হ্যারি-মেগানের!

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক

০৬ জুলাই ২০২০, ১৫:৪০
লস অ্যাঞ্জেলেসেও স্বস্তি নেই হ্যারি-মেগানের!
প্রিন্স হ্যারি ও তার স্ত্রী মেগান মার্কেল (ছবি : ইউরো নিউজ)

ব্রিটেনের রাজসিংহাসনের দাবিদারদের একজন প্রিন্স হ্যারি ও তার স্ত্রী মেগান মার্কেল রাজ পরিবার ছেড়েছেন তিন মাস আগে। রাজকীয় দায়িত্ব ছাড়ার পর কিছুদিন কানাডায় থেকে যুক্তরাষ্ট্রের লস অ্যাঞ্জেলেসে থাকতে শুরু করেছিলেন হ্যারি-মেগান দম্পতি। কিন্তু সেখানেও স্বস্তিতে নেই দুজনের কেউ।

সূত্রের বরাত দিয়ে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম দ্য ডেইলি মেইলের খবরে বলা হয়, ব্রিটেনের পরিবারের সঙ্গে বন্ধন ছিন্ন করে অনেকটাই ‘কষ্টে’ আছেন তিনি। অন্যদিকে লস অ্যাঞ্জেলেসের বাড়িতে মানিয়ে নিতেও একধরনের ‘যুদ্ধ’ করতে হচ্ছে মেগান মার্কেলকেও। মেগান নাকি অনেকটাই অন্তর্মুখী হয়ে পড়েছেন।

বর্তমানে এই দম্পতি মার্কিন তারকা টেইলর পেরির লস অ্যাঞ্জেলেসের ১৮ মিলিয়ন ডলার (১৫ কোটি ৩০ লাখ টাকা) মূল্যমানের বিরাট এক অট্টালিকায় রয়েছেন।

ব্রিটিশ গণমাধ্যম সানডে মিররের খবরে সূত্রের বরাত দিয়ে বলা হয়েছে, হ্যারি-মেগান দম্পতি তাদের নতুন জীবনে ভীষণ টানাপড়েনের মধ্য দিয়ে যাচ্ছেন। মেগান অনেকটাই চুপ হয়ে গেছেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মকর্তা বলেন, আমার মনে হয় মেগান খুবই মানসিক বিষণ্ণতায় ভুগছেন এবং নিজের সঙ্গে নিজে যুদ্ধ করছেন। অন্যদিকে প্রিন্স হ্যারি গত মাসে নিজের ভাইয়ের জন্মদিনে থাকতে পারেননি বলেও হয়তো তার মধ্যে কষ্ট দানা বেঁধেছে।

মূলত রাজকীয় জীবনে মেগান চরম অসন্তুষ্ট থাকার কারণেই তারা রাজ পরিবার ছাড়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। রাজপরিবারের বাঁধাধরা নিয়মের সঙ্গে খাপ খাওয়াতে পারছিলেন না তিনি।

আরও পড়ুন : গোপনে আফগানিস্তান থেকে ইউরোপে মাদক পাচার করে মার্কিন সেনারা!

রাজ পরিবারের বিষয়ে সংবাদমাধ্যমের অতি আগ্রহের কারণেও বিরক্ত ছিলেন এই দম্পতি। কেননা এটি তাদের স্বাধীন চলাফেরায় প্রতিবন্ধকতা তৈরি করেছিল।

সূত্র : দ্য ডেইলি মেইল

jachai
nite
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
jachai

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: 02-9110584, +8801907484800

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড