• রোববার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১২ আশ্বিন ১৪২৭  |   ২৯ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

যেভাবে কুয়ায় ফেলে ৯ জনকে খুন করল অভিযুক্ত যুবক 

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক

২৭ মে ২০২০, ১৫:১৬
করোনা
ছবি : সংগৃহীত

কুয়া থেকে নয়জনের মরদেহ উদ্ধারের পর মনে করা হয়েছিল লকডাউনের জেরে অভাবের তাড়নায় আত্মহত্যা করেছে তারা। কিন্তু পরবর্তীতে পুলিশের তদন্তে জানা গেল আত্মহত্যা নয়, তাদেরকে ঘুমের ওষুধ খাইয়ে খুন করা হয়েছে। আর এ ঘটনা ঘটেছে ভারতের তেলঙ্গানার ওয়ারঙ্গল জেলায়। ওই নয়জনকে খুন করার অভিযোগে সঞ্জয়কুমার যাদব নামে বিহারের এক যুবককে(২৪) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

খবরে বলা হয়েছে, গত বৃহস্পতিবার তেলঙ্গানার ওয়ারঙ্গল জেলার গোরেকুন্টা গ্রামের একটি কুয়া থেকে চারজনের মরদেহ উদ্ধার হয়। পরদিন উদ্ধার করা হয় আরো পাঁচজনের মরদেহ। এঁদের মধ্যে ছিলেন মহম্মদ মকসুদসহ পরিবারের ছয়জন, যাঁরা পশ্চিমবঙ্গ থেকে এসেছিলেন, অপর তিনজনের মধ্যে দুজন বিহার ও একজন ত্রিপুরার। এঁরা প্রত্যেকেই ব্যাগের কারখানায় কাজ করতেন।

পুলিশ জানতে পেরেছে, ছয় বছর আগে মকসুদের বিবাহ বিচ্ছিন্না শ্যালিকা রফিকার সঙ্গে সম্পর্ক হয় ওয়ারঙ্গল জেলায় আসা ওই একই কারখানার শ্রমিক সঞ্জয়ের। পরে রফিকা তিন সন্তানকে নিয়ে সঞ্জয়ের সঙ্গে ভাড়া বাড়িতে থাকতে শুরু করেন। বিয়ে না-করলেও চার বছর একসঙ্গে ছিল এই যুগল। সম্প্রতি রফিকা সন্দেহ করেন, তাঁর মেয়ের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ হওয়ার চেষ্টা করছে সঞ্জয়। থানায় অভিযোগ করার হুমকি দেন তিনি। এর পরেই রফিকাকে সরিয়ে দেওয়ার ছক কষতে থাকে সঞ্জয়।

এমন পরিস্থিতিতে সঞ্জয় আশ্বাস দেয়, রফিকার পরিবারের সম্মতি নিয়ে তাঁকে বিয়ে করবে সে। সেই আশ্বাস মোতাবেক ৬ মার্চ পশ্চিমবঙ্গের উদ্দেশে রওনা দেয় দুজনে। কিন্তু পথেই রফিকাকে দুধের সঙ্গে ঘুমের ওষুধ খাইয়ে ও গলায় ফাঁস দিয়ে খুন করে তার দেহ গুম করে দেয় সঞ্জয়। ওয়ারঙ্গলে ফিরে সে জানায়, রফিকা পশ্চিমবঙ্গে তাঁর আত্মীয়দের সঙ্গে রয়ে গিয়েছেন। কিন্তু মকসুদের স্ত্রী জানতে পারেন, সঞ্জয় মিথ্যা বলছে। তিনি সঞ্জয়কে পুলিশের ভয় দেখান। এর পরেই মকসুদের পরিবারের সবাইকে খুনের ফন্দি আঁটে অভিযুক্ত।

পুলিশ জানায়, ২০ মে মকসুদের ছেলের জন্মদিনে তাঁদের বাড়ি যায় সঞ্জয়। সেখানে সকলের খাবারে ঘুমের ওষুধ মিশিয়ে দেয় সে। মকসুদের পরিবারের সঙ্গে থাকতেন বিহার ও ত্রিপুরার আরো তিন শ্রমিক। প্রত্যেকেই অচেতন হয়ে পড়লে সঞ্জয় টেনে এনে তাঁদের কুয়ায় ফেলে দেয়।

এ ব্যাপারে ওয়ারঙ্গল পুলিশের এক কর্মকর্তা বলেছেন, ‘‘সিসিটিভ ফুটেজ ও ময়নাতদন্তের রিপোর্ট থেকে স্পষ্ট, আত্মহত্যা নয় ওই নয়জনকে খুন করেছিল সঞ্জয়। জেরার মুখে সে দোষ স্বীকার করেছে।’’

ওডি/

jachai
niet
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
niet

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: 02-9110584, +8801907484800

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড