• বুধবার, ০১ এপ্রিল ২০২০, ১৮ চৈত্র ১৪২৬  |   ৩৭ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

নিহতদের মরদেহ আটকে রাখছে দিল্লি পুলিশ

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক

২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৭:৫৯
মরদেহ
দিল্লির সহিংসতায় নিহতের মরদেহ (ছবি : দ্য ওয়াল)

নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের সমর্থক ও বিক্ষোভকারীদের মধ্যকার সহিংসতার ঘটনায় দিল্লি পুলিশের বিরুদ্ধে একের পর এক অভিযোগ ওঠে আসছে। এবার তাদের বিরুদ্ধে মরদেহ আটকে রাখার অভিযোগ এনেছেন নিহতদের স্বজনরা।

গত রবিবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) ভারতের রাজধানী দিল্লিতে নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের বিরুদ্ধে নতুন করে জোরালো বিক্ষোভ শুরু হয়। বিক্ষভকারীদের বাধা দেয় বিতর্কিত এই আইনের সমর্থকরা। এক পর্যায়ে তারা সহিংসতায় জড়ায়। গত কয়েকদিনের এই সহিংসতায় এখন পর্যন্ত ৪৩ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির খবরে বলা হয়েছে, সহিংসতার সময় নিষ্ক্রিয় ছিল দিল্লি পুলিশ। এমনকি অনেক ক্ষেত্রে পুলিশ নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের সমর্থকদের নৃশংস কার্যক্রমে সমর্থন দিয়েছে। এছাড়া পুলিশের সামনেই মুসলমানদের ওপর নির্যাতন চালিয়েছে উগ্র হিন্দুত্ববাদীরা। আর সে সঙ্গে আগুন দিয়েছে মসজিদে।

এ দিকে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এই সময়ের খবরে বলা হয়েছে, সহিংসতা চলাকালে বিপদগ্রস্তরা পুলিশ কন্ট্রোল রুমে মোট ১৩ হাজার দুইশ বার ফোন করেছিল। তবে পুলিশ তাতে কোনো সাড়া দেয়নি।

সংবাদমাধ্যমটির খবরে আরও বলা হয়েছে, পুলিশি বাধার কারণে সহিংসতায় নিহতদের মরদেহ তাদের স্বজনদের কাছে পৌঁছাতে বিলম্ব হচ্ছে। এখন পর্যন্ত মাত্র ১৩টি মরদেহের ময়নাতদন্তের কাজ শেষ হয়েছে। তবে ময়নাতদন্ত শেষ হওয়া সত্ত্বেও অনেক মরদেহ এখনো পরিবারের কাছে পৌঁছায়নি।

এ ব্যাপারে মুস্তাফা নামে স্বজন হারানো এক ব্যক্তি বলেছেন, হাসপাতাল থেকে বলছে থানায় গিয়ে তদন্তকারী কর্মকর্তার সঙ্গে কথা বলতে। বার বার যাচ্ছি, কিন্তু তদন্তকারী কর্মকর্তার দেখা পাচ্ছি না। দেখা পেলেও তিনি বলছেন, ফাইল তৈরি হয়নি। কবে হবে, তাও বলছেন না।

আরও পড়ুন : উত্তরপ্রদেশের মতো দিল্লিতেও ক্ষতিপূরণ আদায়ের ঘোষণা পুলিশের

এ দিকে একজন চিকিৎসক বলেছেন, ময়নাতদন্তের ক্ষেত্রে পুলিশি ফর্মালিটি প্রচুর। নিহতের দেহে গুলি বিঁধে আছে, কাউকে আবার কোপানো হয়েছে ধারালো অস্ত্রে। এ ছাড়া কয়েকটি দেহ আবার অগ্নিদগ্ধ। এসব দেহের ময়নাতদন্তে পুলিশের ভূমিকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু দ্রুত যাবতীয় প্রক্রিয়া সম্পন্ন করার জন্য দিল্লি পুলিশের পক্ষ থেকে কোনো তৎপরতা দেখছি না।

ওডি/এসসা

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: 02-9110584, +8801907484800

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড