• বৃহস্পতিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৪ ফাল্গুন ১৪২৬  |   ১৯ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

ইরানে বিমান বিধ্বস্তের জন্য মার্কিন যুদ্ধবিমানকে দুষছে রাশিয়া

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক

২০ জানুয়ারি ২০২০, ০৯:৩০
ইরানে বিমান বিধ্বস্তের জন্য মার্কিন যুদ্ধবিমানকে দুষছে রাশিয়া
মধ্যপ্রাচ্যের আকাশে উড়ছে মার্কিন যুদ্ধবিমান (ছবি : প্রতীকী)

মার্কিন ড্রোন হামলায় ইরানি জেনারেল কাসেম সোলাইমানিকে হত্যার কয়েকদিন পরই তেহরানের মাটিতে আচমকা বিধ্বস্ত হয় ইউক্রেনের যাত্রীবাহী বিমান। এতে ঘটনাস্থলেই ১৭৬ আরোহীর মৃত্যু হয়। এবার সেই বিমান বিধ্বস্তের নতুন ব্যাখ্যা দিল রাশিয়া।

রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ বলেছেন, ইরাকের মার্কিন সেনা ঘাঁটিগুলোতে ইরানি ক্ষেপণাস্ত্র হামলার সময় তেহরানের আকাশে উড়ছিল অন্তত ৬টি যুক্তরাষ্ট্রের যুদ্ধবিমান।

রবিবার (১৯ জানুয়ারি) মস্কোয় আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, আমাদের কাছে এমন গোয়েন্দা তথ্য রয়েছে যে, ঘটনার সময় মার্কিন এফ-৩৫ যুদ্ধবিমানগুলো ইরানের আকাশে উড়ছিল। এ জন্যই ইরানি সেনারা ভুল ক্রমে ইউক্রেনের যাত্রীবাহী বিমানটিকে ভূপাতিত করে।

ইরানি বার্তা সংস্থা পার্স টুডে জানায়, মার্কিন ঘাঁটিগুলোতে ক্ষেপণাস্ত্র হামলার সময় অনিচ্ছাকৃতভাবে ইউক্রেনের যাত্রীবাহী বিমানটি ধ্বংস করা হয়। ঘটনাটি সম্পূর্ণ ‘ভুলবশত’ বলে দাবি করে তেহরান।

এর আগে ৩ জানুয়ারি ভোরে ইরাকের বাগদাদ শহরে মার্কিন বিমান হামলায় ইরানি জেনারেল কাসেম সোলাইমানি নিহত হন। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের নির্দেশে চালানো সেই অভিযানে তেহরান সমর্থিত পপুলার মবিলাইজেশন ফোর্সেসের (পিএমএফ) উপপ্রধান আবু মাহদি আল-মুহান্দিসসহ বাহিনীর বেশ কয়েকজন সদস্য প্রাণ হারান।

সোলাইমানিকে হত্যার পর থেকে ইরান-যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে সর্বোচ্চ উত্তেজনা বিরাজ করছে। যার প্রেক্ষিতে কিছুদিন ধরে ওয়াশিংটনকে পাল্টা হামলার হুমকি দিচ্ছিল তেহরান।

মার্কিন প্রতিরক্ষা দপ্তর (পেন্টাগন) জানায়, যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের নির্দেশে হামলাটি চালানো হয়। অপরদিকে ইরানের সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ আলী খামেনি বলেছিলেন, মার্কিন প্রশাসনের জন্য কঠোর প্রতিশোধ অপেক্ষা করছে।

অবশেষে বুধবার (৮ জানুয়ারি) ভোরে দুটি মার্কিন ঘাঁটিতে সেই হামলা চালায় তারা। ইরানের রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন জানায়, এবারের ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় ৮০ জন মার্কিন সেনা নিহত ও দুই শতাধিক লোক আহত হয়েছেন। সে দিনই তেহরানে ইউক্রেনের ‘বোয়িং-৭৩৭’ বিমানটি বিধ্বস্ত হয়। বিমানটিতে থাকা ১৭৬ জনের প্রত্যেকেই মারা যান।

আরও পড়ুন : আর কখনোই পরমাণু চুক্তিতে জড়াবে না ইরান

এরপর ধারণা করা হচ্ছিল, ইরানের বিরুদ্ধে কঠিন কোনো পদক্ষেপই হয়তো নেবেন ট্রাম্প। কিন্তু বাস্তবে তা ঘটেনি। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ইরানকে আলোচনার প্রস্তাব দিয়েছেন।

ওডি/কেএইচআর

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: 02-9110584, +8801907484800

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড