• শুক্রবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৬  |   ১৮ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

রহস্যজনকভাবে পাকিস্তানে এক গ্রামেই ৯০০ শিশু এইডসে আক্রান্ত

  আন্তর্জাতিক ডেস্ক

০১ ডিসেম্বর ২০১৯, ১৬:১৪
পাকিস্তান
চিকিৎসা সেবা নিচ্ছে এক শিশু (ছবি : দ্য ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস)

পাকিস্তানে ছোট্ট একটি গ্রামের প্রায় ৯০০ শিশুর দেহে এইচআইভি পজিটিভ শনাক্ত হয়েছে। অথচ এসব শিশুদের পরিবারের কোনো সদস্যই এইডসে আক্রান্ত নন। খবর ‘দ্য ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস’।

সংবাদমাধ্যমটি জানিয়েছে, চলতি বছরের এপ্রিলে একজন স্থানীয় চিকিৎসক তার ক্লিনিকে চিকিৎসা নিতে আসা শিশুদের উপসর্গ দেখে এইচআইভি পরীক্ষা করার পরামর্শ দেন। আর পরীক্ষায় তাদের এইচআইভি পজিটিভ ধরা পড়ে।

এইচআইভি আক্রান্ত হওয়া এসব শিশুদের অধিকাংশের বয়সই ১২ বছরের কম। যা বিস্ময়ের সৃষ্টি করেছে। শুধু পাকিস্তানেই নয়, এশিয়াতেও এত মানুষের, বিশেষ করে শিশুদের মধ্যে একসঙ্গে এইচআইভি ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার নজির নেই বললেই চলে।

অবশ্য এজন্য মুজাফফর ঘাঙরো নামের একজন ডাক্তারকে দায়ি করছেন স্থানীয় লোকজন ও প্রশাসন। তার বিরুদ্ধে উদ্দেশ্যমূলকভাবে শিশুদের মধ্যে এইচআইভি ভাইরাস সংক্রমণের অভিযোগ আনা হয়েছে। এ কারণে গ্রেফতারও করা হয় তাকে।

তবে এই অভিযোগ সঠিক নয় বলে দাবি ডাক্তার মুজাফফর ঘাঙরোর। তিনি বলেন, স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মকর্তারা ভীষণ চাপের মুখে ছিল। তাদের অযোগ্যতার দায় চাপানো হয়েছে আমার ওপর। 

তিনি আরও বলেন, ‘গত ১০ বছর ধরে আমি চিকিৎসা পেশার সঙ্গে যুক্ত আছি। এখন পর্যন্ত একজনও আমার বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ করেনি যে, আমি সুই পুনর্ব্যবহার করেছি। আমি স্থানীয়দের মধ্যে যথেষ্ট জনপ্রিয়। তাই পেশাগত হিংসা থেকে অন্য ডাক্তার এবং সাংবাদিকরা আমার বিরুদ্ধে বানোয়াট অভিযোগ এনেছে।’

এইচআইভি আক্রান্ত শিশুদের অভিভাবকদের অবস্থা এখন উন্মাদপ্রায়। তাদের সন্তানরা অপুষ্টিতে ভুগছে আর ক্রমাগত কাঁদছে।

পরিস্থিতি মোকাবিলায় বিনামূল্যে এইচআইভির ওষুধ দিচ্ছে পাকিস্তান সরকার। কিন্তু এইচআইভির প্রভাবে শরীরে অন্য আরও অনেক রোগ দেখা দেয়। এসব রোগের জন্য প্রয়োজনীয় ওষুধের খরচ বহন করতে পারছে না রোগীর পরিবার।

এ দিকে সমাজের মানুষের মধ্যে এইচআইভি আক্রান্তদের সম্পর্কে মনোভাব শিশুদের অভিভাবকদের যন্ত্রণা দিচ্ছে। এক শিশুর মা বলেন, ‘মানুষ আমাদের সন্তানদের ঘৃণা করে। এমনকি আমাদেরও এড়িয়ে চলে। তাদের বাসায় যেতে বারণ করে। গ্রামের স্কুলও চায় না যে, আমাদের শিশুরা সেখানে পড়াশোনা চালিয়ে যাক।’

ওডি/এসসা

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন সজীব 

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড