• শুক্রবার, ২২ মার্চ ২০১৯, ৮ চৈত্র ১৪২৫  |   ২৫ °সে
  • বেটা ভার্সন

থাইরয়েড গ্রন্থিতে কী কী সমস্যা হতে পারে?

  সাদিয়া ইসলাম বৃষ্টি ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৪:২০

থাইরয়েড
ছবি : সম্পাদিত

থাইরয়েড গ্রন্থি আমাদের শরীরের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি অংশ। শরীরের অন্যান্য অংশের কার্যক্রম সঠিকভাবে পরিচালিত করার জন্য এই গ্রন্থিটি অত্যন্ত দরকারি। তবে আপনার খানিকটা অবহেলায় এই থাইরয়েড গ্রন্থিতেই দেখা দিতে পারে ক্যান্সার বা আরো নানারকম সমস্যা। চলুন, আজ জেনে নেওয়া যাক থাইরয়েডের সাধারণ কিছু সমস্যা সম্পর্কে- 

থাইরয়েড গ্রন্থি কী?

থাইরয়েড গ্রন্থি প্রজাপতি আকৃতির এক ধরণের অংশ, যেটি এক ধরণের হরমোন নিঃসরণ করে। এই হরমোনের কারনেই মস্তিষ্ক, হৃদপিণ্ড ও শরীরের অন্যান্য অংশ কর্মক্ষম থাকার শক্তি পায়। থাইরয়েড কখনো কখনো ফুলে যেতে পারে। একে থাইরয়েড নোডুলস বলে। এটা বেশ সাধারণ একটি ব্যাপার। প্রতি ২০ জন রোগীর মধ্যে একজনের থাইরয়েড নোডুলস থাকে। পুরুষের চাইতে নারীদের মধ্যে এই সমস্যাটি বেশি দেখা যায়। তবে পুরুষদের মধ্যে থাইরয়েড নোডুলস থাকলে অন্যান্যদের চাইতে তার ক্যান্সার হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে। 

থাইরয়েড নোডুল বা থাইরয়েড লাম্প- 

অনেকেই ভেবে থাকেন জীবনপদ্ধতি, মদ্যপান বা ধূমপানের অভ্যাসের কারণে থাইরয়েড নোডুলস হয়ে থাকে। বাস্তবে এসবের কোনোটির কারণেই এই শারীরিক সমস্যাটি হয় না। এর পেছনে বংশগত ধারা কাজ করতে পারে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই থাইরয়েড নোডুলস নিজ থেকেই, কোনো নির্দিষ্ট কারণ ছাড়াই হয়ে থাকে। যদিও এটি খুব একটা দেখা যায় না, তবুও তেজস্ক্রিয়তার প্রভাব বেশি পড়লে এই অসুখটি হয়ে থাকে। 

বেশিরভাগ মানুষই তার থাইরয়েডের কোনো সমস্যা আছে তা বুঝতে পারেন না। এমনকি এতে করে শরীরে হরমোনের পরিমাণও বাড়ে বা কমে না। খাবার খাওয়ার সময় বাড়তি কোনোকিছুর উপস্থিতি হয়তো আক্রান্ত ব্যক্তি লক্ষ্য করতে পারেন। সাধারণত, থাইরয়েডের ক্যান্সারের ক্ষেত্রে নিঃশ্বাস না নিতে পারা, ঠিকভাবে খাবার খেতে না পারা, ব্যথাবোধ- ইত্যাদি কারণ লক্ষণ হিসেবে দেখতে পাওয়া যায়। 

আরও পড়ুন: 

'ভালোবাসা' দেশে দেশে

মায়ের বুকের দুধ, নাকি ফর্মুলা মিল্ক- কোনটি ভালো?

থাইরয়েড নোডুল : কেমন হয়?

নিশ্চয় জানতে ইচ্ছে করছে যে, থাইরয়েড নোডুল আকৃতি বা ধরণে কেমন হয়ে থাকে? চলুন জেনে নেওয়া যাক। 

থাইরয়েড নোডুল মূলত থাইরয়েড গ্রন্থির উপরে জন্ম নেওয়া এক ধরণের বাড়তি পিণ্ড। এটি যেমন নিরেট হতে পারে, তেমনি এর ভেতরে জলীয় পদার্থও থাকতে পারে। এটি সাধারণত এক থেকে দেড় সেন্টিমিটার আকারের হয়ে থাকে। এটি চিহ্নিত করার জন্য-

আল্ট্রাসাউন্ড স্ক্যান থাইরয়েড
ফাইন নিডল অ্যাস্পিরেশন সাইটোলজি
রক্ত পরীক্ষা
টোটাল থাইরোইডেক্টমি
রেডিওয়ায়োডিন ইত্যাদি পরীক্ষার দরকার পড়তে পারে।

থাইরয়েড নোডুল কি অপারেশনের মাধ্যমে ঠিক করা সম্ভব?

হ্যাঁ সম্ভব। সাধারণত, ঘাড়ের সামনের দিকে ৬ সেন্টিমিটার কেটে থাইরয়েড নুডোলের চিকিৎসা করা হয়। সেক্ষেত্রে গ্রন্থিকে কেটে বের করে আনা হয়। এই সার্জারির দাগ খুব দ্রুতই চলে যায়। এছাড়া অন্যান্য কিছু সার্জারির মাধ্যমেও থাইরয়েডের সমস্যা দূর করা সম্ভব। এই পুরো সময়টাতেই চেষ্টা করা হয় যেন রোগীর কোনোরকম শারীরিক সমস্যা না হয়। 

গ্রেভ’স ডিজিজ- 

এটি থাইরয়েড গ্রন্থির আরেকটি সমস্যা। যদি আপনার থাইরয়েডে গ্রেভ’স ডিজিজ হয়, যেক্ষেত্রে শরীরে এমন হরমোনের পরিমাণ বেড়ে যায় যেটি থাইরয়েড গ্রন্থিকে বড় হতে সাহায্য করে, তাহলে আপনি খুব সহজেই কিছু লক্ষণের মাধ্যমে বুঝতে পারবেন। এসময় আপনার ওজন কমে যাবে, ঘুমোতে কষ্ট হবে, ডায়রিয়া, পেশীর দূর্বলতা ইত্যাদিও দেখা যাবে। এছাড়া অনেকের ক্ষেত্রে এই সমস্যা চোখেও প্রভাব ফেলতে পারে। এক্ষেত্রে যতটা দ্রুত সম্ভব চিকিৎসকের সাথে কথা বলুন। এই সমস্যা দূর করতে চিকিৎসকের কথানুসারে পর্যাপ্ত ওষুধ সেবন করুন। আর যদি সমস্যা বেড়ে যায় সেক্ষেত্রে রেডিওয়ায়োডিন করানোই যথেষ্ট। আর কোনোকিছুতেই কাজ না হলে শেষ পর্যন্ত সার্জারি করতে হবে। 

হাশিমোতো থাইরোয়োডিটিস- 

শারীর নিজ থেকেই এক্ষেত্রে থাইরোইডিজম নামক সমস্যার সৃষ্টি করে। ওজন বেড়ে যাওয়া, অবসন্ন বোধ করা, ঠাণ্ডা সহ্য না করতে পারা, কোষ্ঠকাঠিন্যের মতো সমস্যা দেখা যায় এক্ষেত্রে। এমনটা হলেও দ্রুত চিকিৎসকের সাথে কথা বলুন।

থাইরয়েড ফুলে গিয়েছে, অথচ ভাবছেন কোনো সমস্যাই নয়? এমনটা না ভেবে দ্রুত চিকিৎসকের সাথে কথা বলুন। তাহলে হয়তো কোনো বাড়তি সমস্যা ছাড়া প্রাথমিক পর্যায়েই এই সমস্যার হাত থেকে মুক্ত হতে পারবেন আপনিও।

মূল লেখক- ডক্টর ডেনিস চুয়া, মাউন্ট এলিজাবেথ হসপিটাল। 
 

স্বাস্থ্য-ভোগান্তি, নতুন পরিচিত অসুস্থতার কথা জানাতে অথবা চিকিৎসকের কাছ থেকে স্বাস্থ্য সংক্রান্ত পরামর্শ পেতেই-মেইলকরুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব এবং সংশ্লিষ্ট স্বাস্থ্য সমস্যার পরামর্শ দেবার প্রচেষ্টা থাকবে আমাদের।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮-২০১৯

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড