• শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০১৯, ৪ শ্রাবণ ১৪২৬  |   ৩৩ °সে
  • বেটা ভার্সন

মলের সঙ্গে রক্তপাত, পাইলস নাকি ক্যানসার?

  সাদিয়া ইসলাম বৃষ্টি

২৪ জানুয়ারি ২০১৯, ১৫:০১
পাইলস_অধিকার
ছবি : প্রতীকী

বাথরুম করতে গেলে মলের সঙ্গে রক্তপাত হচ্ছে? ব্যাপারটিকে প্রথম দেখায় পাইলস বলে দেওয়াই যায়। তবে তার মানে এই নয় যে এটি পাইলস। অনেকসময় বড় কোনো সমস্যাও এর পেছনে থাকতে পারে। পাইলস বা হ্যামোরয়েড ছাড়াও এই একই লক্ষণ দেখা দিতে পারে কোলোরেক্টাল ক্যানসারের কারণেও। কোলোরেক্টাল ক্যানসার কী এবং কী করে বুঝবেন এই দুটি সমস্যার ভিন্নতা? চলুন জেনে নেওয়া যাক। 

পাইলস কী?

হেমোরয়েডস বা পাইলস মূলত মলদ্বারের সঙ্গে প্রাকৃতিকভাবে তৈরি হওয়া একটি অংশ। এই মাংসল অংশটি জন্ম নেয় কিছু রক্তনালীর মাধ্যমে। এটি এমনিতে খুব একটা সমস্যার ব্যাপার না হলেও মলত্যাগের সময় এই মাংসল অংশটি কোষ্ঠকাঠিন্যের সৃষ্টি করে এবং একটা সময় মলের সঙ্গে রক্ত দেখা দিতে পারে। একইসঙ্গে খানিকটা ব্যথা ও চুলকানির কারণে পাইলস বেশ সমস্যা তৈরি করে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই মানুষ কোষ্ঠকাঠিন্য, ডায়রিয়া, গর্ভধারণ এবং বাথরুমের নানা বদভ্যাসের, এই যেমন- অনেক বেশি সময় ধরে বাথরুমে বসে থাকা ইত্যাদির কারণে পাইলস হয়ে থাকে। 

পাইলস, না কি ক্যানসার?

কিন্তু মলের সঙ্গে রক্তপাত হওয়াটা হতে পারে কোলোরেক্টাল ক্যানসারেরও কারণ। আপনার যদি ক্যানসার হয়ে থাকে সেক্ষেত্রে নিচের লক্ষণগুলোও দেখা দিতে পারে-

ক্যানসার

 

১। অনেক বেশি রক্তপাত হওয়া। এ সময় আপনি খানিকটা হাঁটলেও আপনার মধ্যে নিঃশ্বাস নিতে কষ্ট হওয়া, সাদাটে হয়ে যাওয়া এবং ক্লান্ত হয়ে যাওয়ার মতো ব্যাপারগুলো দেখা যেতে পারে।
২। ক্ষুধাবোধ এবং ওজন আশঙ্কাজনক হারে কমে যাওয়া।
৩। বাথরুম করার সময় ব্যথাবোধ করা।
৪। ডায়রিয়া বা কোষ্ঠকাঠিন্যের মতো সমস্যা দেখা যাওয়া।
৫। মলত্যাগের রাস্তা অনেকটা কমে যাওয়া।

ওপরের এই লক্ষণগুলো আপনার সঙ্গে মিলে গেলে চিকিৎসকের সঙ্গে দেখা করুন এবং নিশ্চিত হয়ে নিন যে, আপনার সমস্যাটি কি ক্যানসারের কারণে হচ্ছে, নাকি অন্য কোনো কারণে। কী কারণে রক্তপাত হচ্ছে সেটা সঠিকভাবে জানতে হলে কোলোনস্কপি করাটাই সবচাইতে কার্যকরী পরীক্ষা। তবে, আরেকটু ভালোভাবে বোঝার জন্য চিকিৎসক বায়োপ্সিও করতে পারেন। এতে করে আপনার কোলোরেক্টাল ক্যানসার হওয়ার সম্ভাবনা কতটুকু তা নিশ্চিতভাবে বলা যাবে। 

পাইলসের চিকিৎসাপদ্ধতি কী?

আপনার যদি পাইলস হয়ে থাকে, সেক্ষেত্রে আপনাকে তিনটি উপায় অবলম্বন করতে হবে। প্রথমত, আপনাকে নিজের জীবন পদ্ধতিতে কিছু পরিবর্তন আনতে হবে; দ্বিতীয়ত, আপনাকে ওষুধ গ্রহণ করতে হবে। তবে এই দুটোতে কোনো কাজ না হলে সেক্ষেত্রে আপনাকে সার্জারির মাধ্যমে সমস্যাটির সমাধান করতে হবে। আপনার ক্ষেত্রে কোনো পদ্ধতিটি কাজ করবে সেটা নির্ভর করবে আপনার পাইলসের আকৃতি এবং অবস্থার ওপরে। 

সাধারণত, আপনি যদি প্রাথমিক অবস্থায় থেকে থাকেন তাহলে শুধু আঁশযুক্ত খাবার আর কিছু ওষুধের মাধ্যমেই এই সমস্যার সমাধান করে ফেলা সম্ভব হবে। তবে আপনার জন্য কোন ব্যবস্থাটি সঠিক হবে সেটা জানার জন্য চিকিৎসকের সঙ্গে কথা বলাটাই সবচাইতে নিরাপদ। 

ক্যানসার

 

কোলোরেক্টাল ক্যানসারের চিকিৎসাপদ্ধতি কী?

কোলোরেক্টাল ক্যানসার হলে এর সবচাইতে প্রাথমিক এবং সাধারণ চিকিৎসা হিসেবে সার্জারিকে বোঝানো হয়। প্রাথমিক পর্যায়ে ধরা পড়লে এই ক্যানসার পুরোপুরি দূর করা সম্ভব। তবে সেটা সম্ভব শুধু তখনই যখন আপনি বুঝতে পারবেন যে, এটি পাইলস নয়, আরও ভয়ংকর কিছু।

বর্তমানে কি হোল বা মিনিমালি ইনভেসিভ সার্জারিকেই এগিয়ে রাখা হয় কোলোরেক্টাল সার্জারির সমাধান হিসেবে। এতে করে একটু একটু করে নির্দিষ্ট অংশটিকে শরীরের ভেতর থেকে বের করে আনা হয়। ব্যথা এবং সময়- দুটোই এক্ষেত্রে কম লাগে। চিকিৎসায় কেমোথেরাপি আর রেডিওথেরাপির প্রয়োজন পড়ে। তবে সেটা তখন ব্যবহার করা হয় যখন ক্যানসার খুব বাজে পর্যায়ে থাকে। 

তাই, মলের সাথে রক্তপাত হলে ভালো করে জেনে নিন যে, ঠিক কী কারণে আপনার এমন সমস্যা হচ্ছে। দেরি করলে হয়তো ব্যাপারটি আর বাজে দিকে মোড় নিতে পারে। তাই, চিকিৎসকের সঙ্গে দ্রুত কথা বলুন এবং সঠিক ব্যবস্থা নিন।

মূল লেখক- ডক্টর মার্ক অং, মাউন্ট এলিজাবেথ নভেনা হসপিটাল। 
 

স্বাস্থ্য-ভোগান্তি, নতুন পরিচিত অসুস্থতার কথা জানাতে অথবা চিকিৎসকের কাছ থেকে স্বাস্থ্য সংক্রান্ত পরামর্শ পেতেই-মেইলকরুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব এবং সংশ্লিষ্ট স্বাস্থ্য সমস্যার পরামর্শ দেবার প্রচেষ্টা থাকবে আমাদের।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মোঃ তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮-২০১৯

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড