• শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০১৯, ৭ বৈশাখ ১৪২৬  |   ২৮ °সে
  • বেটা ভার্সন

ব্রেকিং :

শিশুর জ্বর : অবহেলায় বিপদ ডাকছেন না তো!

  সাদিয়া ইসলাম বৃষ্টি ১৮ জানুয়ারি ২০১৯, ০৯:৫২

শিশু
শিশুর জ্বর হলে অবহেলা করবেন না (ছবি : সংগৃহীত)

জ্বরকে অবহেলা করা নতুন কিছু নয়। “জ্বর হয়েছে? প্যারাসিটামল খেয়ে নিলেই সেরে যাবে”- আমরা অনেকেই এভাবে ভেবে থাকি। কিন্তু বাস্তবে জ্বর আমাদের শরীরের লুকিয়ে থাকা সমস্যার প্রকাশক হিসেবে কাজ করে। যেকোনো সমস্যায় পড়লে শরীর প্রথমেই যেভাবে তা প্রকাশ করে সেটি হলো জ্বর। তাই জ্বর হলে দ্রুত তার কারণ খুঁজে বের করা প্রয়োজন। আর এই জ্বর যদি আপনার শিশুর হয়ে থাকে, তাহলে আরও গুরুত্বের সাথে বিষয়টিকে নিয়ে ভাবা প্রয়োজন।

আপনার শিশুর যদি জ্বর হয়ে থাকে তাহলে আগে থেকেই মানসিকভাবে প্রস্তুত হয়ে নিন। কারণ, জ্বর হয়েছে এর অর্থ, আপনার শিশুর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতায় সমস্যা দেখা গিয়েছে। সাধারণত একটি শিশুর গায়ের স্বাভাবিক তাপমাত্রা হলো ৩৬ দশমিক ৫ ডিগ্রী সেলসিয়াস থেকে ৩৭ দশমিক ৫ ডিগ্রী সেলসিয়াস। এটি যদি বেড়ে ৩৮ ডিগ্রী সেলসিয়াস হয়ে যায় তাহলে বুঝতে হবে যে, শিশুটি জ্বরে ভুগছে।

জ্বর

কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য :

শিশুর জ্বর হলে সেক্ষেত্রে কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য জেনে রাখা প্রয়োজন। সেগুলো হলো-

১। অনেকে ভাবেন গায়ে জ্বর আসলে কাঁথা গায়ে দিয়ে কোনভাবে ঘামলেই শরীর ভালো হয়ে যাবে। অনেকে আবার খুব গরমেও ফ্যান বন্ধ করে রাখেন শিশুর গায়ের জ্বর চলে যাওয়ার জন্য। বাস্তবে, এই কাজগুলো অবস্থা আরও বেশি খারাপ করে তুলতে পারে। এতে করে শরীরের তাপমাত্রা আরো বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে।

২। জ্বর বেড়েছে মানেই শরীর বেশি খারাপ, ব্যাপারটা এমন না। কম জ্বরের কারণও খুব বড় কিছু হতে পারে।

৩। শিশুদের ক্ষেত্রে ভাইরাল সংক্রমণের কারণেই বেশিরভাগ সময় জ্বর হতে পারে। সাধারণত, ৫-৭ দিনের মধ্যেই এই সমস্যা দূর হয়ে যায়।

কীভাবে জ্বর মাপবেন?

অনেকেই বগল, মুখ ইত্যাদিতে থার্মোমিটার ব্যবহার করেন জ্বর মাপার জন্য। অনেকে আবার কপালে হাত দিয়ে বোঝার চেষ্টা করেন যে, জ্বর কতটা আছে। মূলত, এক্ষেত্রে ডিজিটাল রেকটাল থার্মোমিটার ব্যবহার করাই বেশি ভালো। অন্যথায়, জ্বর মাপার ক্ষেত্রে ভুল হতে পারে।

কখন চিকিৎসকের কাছে যাবেন?

তিন মাসের কম বয়সী কোনো শিশুর জ্বর হলে তাকে যতটা দ্রুত সম্ভব চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যান। তবে শিশুর বয়স যদি তিন মাসের বেশি হয় সেক্ষেত্রে, খেয়াল করুন যে, শিশুটির জ্বরের সাথে আর কোনো লক্ষণ দেখা যাচ্ছে কিনা। একটু অপেক্ষা করুন।

জ্বর

সাধারণত এই জ্বর ৩-৫ দিনের মধ্যে চলে যাওয়ার কথা। তবে যদি এরপরেও জ্বর থাকে, তাহলে চিকিৎসকের সাথে কথা বলুন। বিশেষ করে আপনার শিশুর মধ্যে যদি নিচের লক্ষণগুলো দেখতে পান, যেমন-

১। কথার জবাব না দেওয়া বা ঢিলেঢালাভাবে কাজ করা

২। শ্বাস নিতে কষ্ট হওয়া

৩। ত্বকে র‍্যাশ ওঠা

৪। ঘাড়ব্যথা বা মাথাব্যথা

৫। রক্তবমি হতে থাকে

৬। মাথার মাঝখানের নরম অংশ দেবে যায় ইত্যাদি

তাহলে দ্রুত চিকিৎসকের কাছে চলে যান। এগুলো আপনার শিশুটি যে বড়রকমের কোনো সমস্যায় ভুগছে তা প্রকাশ করে।

আপনার শিশুর শরীরেও কি জ্বর আছে? তার মধ্যে কি উপরে উল্লিখিত লক্ষণগুলো দেখতে পাচ্ছেন? তাহলে দেরী না করে দ্রুত ব্যবস্থা নিন।

মূল লেখক : ডক্টর লিম জিউ ইয়ান, পার্কওয়ে ইস্ট হসপিটাল।

স্বাস্থ্য-ভোগান্তি, নতুন পরিচিত অসুস্থতার কথা জানাতে অথবা চিকিৎসকের কাছ থেকে স্বাস্থ্য সংক্রান্ত পরামর্শ পেতেই-মেইলকরুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব এবং সংশ্লিষ্ট স্বাস্থ্য সমস্যার পরামর্শ দেবার প্রচেষ্টা থাকবে আমাদের।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মোঃ তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮-২০১৯

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড