ঠান্ডা লেগেছে? খাবারেই আছে সমাধান!

প্রকাশ : ০৭ নভেম্বর ২০১৮, ০৮:২৬

  সাদিয়া ইসলাম বৃষ্টি

না গরম, না ঠান্ডা- বছরের এই সময়টা ঠিক এমনই। কখনো গরমে ঘেমে-নেয়ে যেতে হচ্ছে, তো কখনো শীতে কাঁপুনি উঠে যাচ্ছে গায়ে। আর শীতের ঠিক আগের এই ঋতু পরিবর্তনের সময়টিতে ঠান্ডা লাগার সুযোগও থাকে বেশি। চলুন, তাই জেনে নেওয়া যাক হুট করে ঠান্ডা বাঁধিয়ে ফেললে কী করে সহজেই সুস্থ হয়ে উঠবেন।

গরম স্যুপ খেয়ে নিন- 

গরম পানি আর গরম স্যুপ ঠিক একইভাবে কাজ করে। ঠান্ডায় গলা বসে গেলে বা অসুস্থ হয়ে পড়লে খুব সহজেই আড়ষ্টভাব কাটাতে সাহায্য করবে এটি। তবে হ্যাঁ, স্যুপের মধ্যে বাড়তি কিছু পুষ্টি পাবেন আপনি। যেটি আপনার শরীরকে রোগজীবাণুর সাথে লড়াই করতে সাহায্য করবে। 

গরম দুধ পান করুন- 

শুধু গরম দুধ নয়, ভিটামিন ‘ডি’ সমৃদ্ধ যে কোনো খাবারই ঠান্ডা থেকে আপনাকে রেহাই পেতে সাহায্য করবে। ২০০৯ সালে ম্যাসাচুসেটস জেনারেল হসপিটালে করা এক গবেষণায় জানা যায় যে, যাদের শরীরে ভিটামিন ‘ডি’ এর পরিমাণ কম, তাদের ঠান্ডায় আক্রান্ত হওয়ার প্রবণতা বেশি থাকে। প্রচুর ভিটামিন ‘ডি’ গ্রহণ করলে আপনার মানসিক স্বাস্থ্যও ভালো থাকবে। 

ভিটামিন ‘এ’ সমৃদ্ধ খাবার খান- 

গাজর, লালশাকসহ ভিটামিন ‘এ’ দিয়ে ভরপুর এমন সব খাবার গ্রহণ করুন। কারণ, আপনার শরীরের প্রতিরোধক ও প্রতিষেধক ক্ষমতা বাড়িয়ে তুলতে সবচাইতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে ভিটামিন ‘এ’। 

খাবারে মাছ রাখুন- 

মাছ খেতে পছন্দ করেন যারা, তারা ঠান্ডা লাগলে বেশি করে মাছ খান। বিশেষ করে, টুনা ও স্যামন মাছের মতো তেলসমৃদ্ধ মাছ গ্রহণ করার চেষ্টা করুন। এতে করে আপনার শরীর পর্যাপ্ত পরিমাণ ওমেগা-৩ পাবে এবং সুস্থ থাকবে।

চা পান করুন- 

ঠান্ডা লাগলে একটু ভালো বোধ করার জন্য চা-য়ের চাইতে কার্যকর কিছু আর হতে পারে না। অবশ্যই, আপনি দিনে কয়েকবার স্যুপ খেতে পারবেন না। তাই দিনে কয়েকবার করে গরম চা পান করুন। চায়ে মধু, আদা ইত্যাদি উপাদান ব্যবহার করুন। এতে করে আপনি আরও দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠবেন। আর হ্যাঁ, সাথে আরামদায়ক অনুভূতি তো আছেই! 

জাম খান- 

যদিও এই সময়টায় জাম খুঁজে পাওয়া কষ্টকর। তবে, ইচ্ছে করলেই দোকানে জাম পাবেন আপনি। অন্য যে কোনো ফলের চাইতে বেশি অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকে জামে। এটি খেলে আপনি ভালো বোধ করবেন। ঠান্ডাও সেরে যাবে খুব সহজেই।

রসুন- 

চায়ের সাথে মিশিয়ে খান বা অন্য কোনোভাবে; রসুন আপনাকে ঠান্ডা থেকে রেহাই দিতে পারে খুব সহজেই। তবে যদি কাঁচা রসুন খেতে ভালো না লাগে, তাহলে রসুনের ভর্তা বা তরকারিতে দেওয়া আস্ত রসুন খেয়ে দেখতে পারেন আপনি। 

ঠান্ডা গ্রিন টি পান করুন- 

গ্রিন টি-তে প্রচুর পরিমাণ অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে। তাই চেষ্টা করুন দিনে কয়েকবার গ্রিন টি পান করার। এটি আপনার শরীরকে শুধু সুস্থ করে তুলবে না, সেইসাথে পরবর্তী সময়ে যেন কোনো সমস্যা না হয় সেদিকেও খেয়াল রাখবে। তবে হ্যাঁ, গ্রিন টি ঠান্ডা করে পান করুন। এতে করে সেটি পান করতে আপনার ভালো লাগবে। আর ফলাফলটাও পাবেন খুব দ্রুত।

তুলসী পাতার রস পান করুন- 

এই পদ্ধতিটি এখনকার নয়। অনেক আগে থেকেই ঠান্ডার ওষুধ হিসেবে তুলসী পাতা ব্যবহার করা হচ্ছে। তাই আর কোনো কিছুতে কাজ না হলে খানিকটা তুলসী পাতা নিয়ে সেটি ভালো করে ছেঁচে নিন। তুলসী পাতার রস বের করুন। এরপর তাতে কয়েক ফোঁটা মধু মিশিয়ে নিন। দেখবেন, এই মিশ্রণটি পান করার পর বেশ ভালো লাগছে!

ঠান্ডা লেগে যাওয়া খুব স্বাভাবিক ব্যাপার। সারা বছর এই সমস্যাটি যে কোনো সময় হয়ে যেতে পারে। আর তাই আগে থেকেই জেনে রাখুন, সচেতন থাকুন। 

সূত্র : রিডার্স ডাইজেস্ট