• মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০১৯, ৮ শ্রাবণ ১৪২৬  |   ৩১ °সে
  • বেটা ভার্সন

যেভাবে রিকশা এলো বাংলার রাজপথে

  ফিচার ডেস্ক

১০ জুলাই ২০১৯, ১০:১৩
রিকশা
ঢাকার পথে রিকশা; (ছবি- সংগৃহীত)

ফকির আলমগীরের কণ্ঠে গাওয়া সেই গান ‘ও সখিনা গেসস কিনা ভুইল্লা আমারে, আমি অহন রিসকা চালাই ঢাহা শহরে’— আজও গেয়ে ওঠেন অনেকে। ঢাকার সঙ্গে রিকশা নামক তিন চাকার যানটির সম্পর্ক বেশ পুরোনো। সঙ্গীতশিল্পী সঞ্জীব চৌধুরীও গেয়েছিলেন ‘এক পলকেই চলে গেল আহ্ কি যে তার মুখখানা, রিকশা কেন আস্তে চলে না’। সবকিছু মিলিয়ে প্রেম, আবেদন কিংবা জীবিকাজুড়ে রিকশার অবস্থান বেশ পোক্ত বলা যায়। 

রঙিন এ যানবাহনটি কম দূরত্বের পথ পাড়ি দেওয়ার ক্ষেত্রে উপযুক্ত। কেউ কেউ আবার ব্যক্তিগত ভ্রমণেও রিকশা ব্যবহার করেন। যুগ যুগ ধরে তাই শহর আর শহরতলীতে ব্যবহৃত হয়ে আসছে রিকশা। রঙিন এই যানবাহনটি কিন্তু হুট করেই আমাদের রাজপথ দখল করেনি। কীভাবে আগমন ঘটল রিকশার? 

 দুই চাকার যান! 

ছোটবেলায় বাংলা দ্বিতীয় পত্র বইয়ে আমরা শব্দের উৎপত্তিতে প্রায় সবাই পড়েছিলাম- রিকশা শব্দের উৎপত্তি ঘটেছে জাপান থেকে। এর মূল শব্দ ‘জিন রিকিশা’, যার অর্থ দাঁড়ায় ‘মনুষ্য চালিত যন্ত্র’। মজার ব্যাপার হচ্ছে জাপানি রিকশাগুলো কিন্তু তিন চাকার ছিল না। দুই চাকার ওপর ভর করে চলত এটি। একজন মানুষ তা টেনে নিয়ে চলতেন। 

আবিষ্কারের ইতিহাস- 

রিকশার জন্ম কবে? এ প্রশ্নের জবাব নিয়ে রয়েছে নানা মতভেদ। সবচেয়ে গ্রহণযোগ্য মতটি হলো, ১৮৬৯ সালে জোনাথন স্কোবি নামে একজন মার্কিন মিশনারি নামের একজন মার্কিন মিশনারি রিকশা উদ্ভাবন করেন। আবার অনেকের মতে ১৮৬৯ সালে জাপানে আবিষ্কৃত হয় এটি। সুজুকি টোকোজিরো এবং তাকাইয়ামা কোসুকিকে সাথে নিয়ে যৌথভাবে এই যানবাহনটি আবিষ্কার করেন ইজুমি ইউসুকি। 

বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া- 

জাপানে সৃষ্টি হওয়া যানবাহনটি একসময় ছড়িয়ে যায় নানা দেশে। এই তালিকার শীর্ষে রয়েছে এশিয়ার দেশগুলো। তবে এসব দেশে এসে দুই চাকার এই যানটি হয়ে যায় তিন চাকার। জাপানের দুই চাকার রিকশাকে বলা হয় ‘হাতেটানা রিকশা’। ভারতের কিছু জায়গায় এখনো এই বিশেষ রিকশার ব্যবহার লক্ষ্য করা যায়। বিশেষ করে কলকাতায় এদের দেখা মেলে। বিশের দশকে ভারতে প্রবর্তিত হয় ‘সাইকেল রিকশা’। এ ধরনের রিকশাও অনেকদিন ব্যবহৃত হয়েছিল। 

বাংলাদেশে রিকশার আগমন- 

জাপান থেকে রিকশা সরাসরি বাংলায় প্রবেশ করেনি। বরং দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশগুলোর তুলনায় অনেকে পরে এই দেশে আগমন ঘটিয়েছে যানটি। ইতিহাস ঘেঁটে যতদূর জানা যায়, বাংলাদেশের শহরগুলোর মধ্যে সবচেয়ে আগে রিকশার চল শুরু হয় চট্টগ্রামে, ১৯১৯ সালের দিকে। ঢাকার রাজপথ দখল করে সে ১৯৩৮ সালে। 

১৯৪১ সালে ঢাকায় রিকশার সংখ্যা ছিল ৩৭টি। ১৯৪৭ সালে তা বেড়ে হয় ১৮১টি। যদিও এই সংখ্যা দুটি অসমর্থিত। তবে হাতাটানা রিকশা নয়, ঢাকার রাস্তা দখল করেছিল সাইকেল রিকশা বা প্যাডেল রিকশা। মূলত লোকলজ্জার ভয়েই আমদানি করা হয়নি হাতে টানা রিকশা। কেননা, একজন মানুষের ঘাড়ে চেপে আরেকজন মানুষ ভ্রমণ করবে- এটি তখনো সমাজে গ্রহণযোগ্য ছিল না। 

সেই থেকেই শুরু। ধীরে ধীরে বাড়তে থাকে রিকশার পরিমাণ। একসময় ঢাকা নগরীর রাজপথ পুরোটাই চলে যায় রিকশার দখলে। এই রিকশার পরিমাণ এতই বেড়ে যায় যে ঢাকার যানজটের দায়ভার পুরোটাই যায় তার কাঁধে। আর এভাবেই জাপানের যানটি হয়ে যায় আমাদের অতি পরিচিত। 

তথ্যসূত্র- উইকিপিডিয়া।

ওডি/এনএম
 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মোঃ তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮-২০১৯

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড