• মঙ্গলবার, ২০ আগস্ট ২০১৯, ৫ ভাদ্র ১৪২৬  |   ৩২ °সে
  • বেটা ভার্সন

স্বর্গ থেকে নেমে আসা নদী ‘কানো ক্রিস্টেলস’

২০ জুন ২০১৯, ১৫:২১
কানো ক্রিস্টেলস
কানো ক্রিস্টেলস নদী; (ছবি- ইন্টারনেট)

কলম্বিয়ার একটি নদীর নাম ‘কানো ক্রিস্টেলস’। তবে সাধারণ নদীর চেয়ে এটি একদমই ভিন্ন। এই নদীটিকে বলা হয় ‘স্বর্গ থেকে নেমে আসা নদী’। এটি পৃথিবীর সবচেয়ে রঙিন নদী হিসেবেও পরিচিত। অবশ্য এমন খ্যাতির কারণও রয়েছে। সাধারণ নদীর জলের সাথে এর কোনো মিল নেই। এই নদীর পানি দেখলে প্রথমেই আপনার মনে পড়বে রঙধনুর কথা। যেন রঙধনুর সব রং কানোর জলে মেশানো। 

এই নদীটিতে যেন বসেছে রঙের মেলা। তাই একে রঙের স্বর্গ বলা হয়। প্রকৃতির গুপ্তধনে সমৃদ্ধ এই নদী। পাঁচটি রঙের উপস্থিতি দেখা যায় কানো ক্রিস্টেলসে। পুরো নদীটিই জীববৈচিত্র আর সৌন্দর্যে ভরপুর। সৃষ্টিকর্তা যেন তার নিপুণ হাতে বাহারি রঙে সাজিয়েছেন নদীটিকে। 

কানো

কানো ক্রিস্টেলস এর সৌন্দর্য; (ছবি- ইন্টারনেট) 

পাহাড় থেকে উৎপন্ন হয়ে নদীটি প্রায় ১০০ কিলোমিটার বয়ে গেছে। বছরের বেশিরভাগ সময়ই এর পানি স্বাভাবিক থাকে। তবে শুষ্ক মৌসুম শেষে, বর্ষা আসলেই পাল্টে যায় এর রূপ। তখন পাঁচটি রঙে রঙিন হয়ে ওঠে এটি। 

বর্ষার সময় নদীর তলদেশে থাকা লাল রঙা লতা-গুল্মের মতো তরল পদার্থ নদীর স্রোতে দুলতে থাকে। এর সঙ্গে পাথরের গায়ে জমা সবুজ শ্যাওলার আবরণ, কালচে পাথরের রং, হলুদ বালু আর ঝিলমিল স্বচ্ছ পানির নীলাভ আভা— সবকিছু মিলিয়ে সৃষ্টি হয় এক স্বর্গীয় সৌন্দর্য। 

নদীর যেখানে স্রোত বেশি থাকে সেখানে লাল রঙের গুল্ম জাতীয় পদার্থটি পাথরের গায়ে সবচেয়ে বেশি দেখা যায়। নদী তলদেশে আর পাথরের গায়ে জন্মানো শ্যাওলাগুলো হয় সবুজ রঙের। আর এখানকার পানি এতটাই স্বচ্ছ যে দেখলে নীলচে মনে হয়। এই নদীর বালুগুলো হলুদ রঙের। আর সঙ্গে রয়েছে ১২০০ মিলিয়ন (১.২ বিলিয়ন) বছরের পুরনো পাথর যা ধূসর রং ছেড়ে কালচে রং ধারণ করেছে। 

কানো

কানো ক্রিস্টেলস এর সৌন্দর্য; (ছবি- ইন্টারনেট) 

নদীটির পাশে থাকা জলাশয় আর গুহা এর সৌন্দর্য বাড়িয়ে দিয়েছে কয়েকগুণ। সে সঙ্গে নদীটিকে করেছে রহস্যময়ী। অবাক করা ব্যাপার হচ্ছে, এই নদীটিতে কোনো মাছ বা অন্যান্য জলজ প্রাণী নেই। আর তাই এখানে দর্শনার্থীরা নির্বিঘ্নে সাঁতার কাটা ও গোসল করার মতো কাজ করতে পারেন। 

আরেকটি রহস্যময় দিক হলো, এটি কলম্বিয়ার এমন একটি দুর্গম স্থানে অবস্থিত, যেখানে রাস্তা দিয়ে যাওয়ার কোনো উপায় নেই। এক সময় তাই এখানে পৌঁছানো সহজগম্য ছিল না। তারপরও দুঃসাহসিক ভ্রমণপিপাসু মানুষেরা নানা ঝক্কি ঝামেলা পেরিয়ে সেখানে গিয়েছে, উপভোগ করেছে কানো ক্রিসটেলসের স্বর্গীয় সৌন্দর্য। 

কানো

কানো ক্রিস্টেলস এর সৌন্দর্য; (ছবি- ইন্টারনেট) 

তবে বর্তমানে ক্রিসটেলস নদী, এর জন্মদানকারী পাহাড় ও এই অঞ্চলটিকে সংরক্ষিত এলাকাভুক্ত করা হয়েছে। নদীর পাশেই রয়েছে রাত কাটানোর সুযোগ। কেউ চাইলে পরিবার পরিজন নিয়ে গিয়ে বন-বাদাড়ে রান্নাবান্না করে খাওয়ার সুব্যবস্থাও রয়েছে। 

চাইলে আপনিও যেতে পারেন কলম্বিয়ায় আর দেখে আসতে পারেন স্বর্গীয় এ নদীর সৌন্দর্য। 

ওডি/এনএম 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মোঃ তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮-২০১৯

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড