• শুক্রবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১০ আশ্বিন ১৪২৭  |   ২৮ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

সবুজে ঘেরা গফরগাঁও সরকারি কলেজ 

  ফিচার ডেস্ক

০৯ মে ২০২০, ২০:০৫
গফরগাঁও সরকারি কলেজ
গফরগাঁও সরকারি কলেজ

ময়মনসিংহের গফরগাঁও উপজেলার পাশ দিয়ে পুরাতন ব্রহ্মপুত্র বয়ে গেছে। এই নদীর তীরেই অবস্থিত গফরগাঁও সরকারি কলেজ। প্রাচীন এই কলেজে রয়ে শতাধিক প্রজাতির গাছপালা। বিশাল মাঠের চারপাশে গাছগুলো গ্রীষ্মের রোদে ছায়া দিচ্ছে অবিরাম। সবুজে ঘেরা এই বিদ্যাপীঠের প্রাণ-প্রকৃতি যে কারও মনে এনে দেবে প্রশান্তির পরশ।

গফরগাঁও সরকারি কলেজের বৃক্ষ, লতা ও গুল্মগুলোর মধ্যে রয়েছে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ ও বিপন্ন প্রজাতি। সেগুলো হচ্ছে কুম্ভি, নাগলিংগম, মুচকুন্দ, লোহাকাঠ, তমাল, মহুয়া, চামফল, নাগেশ্বর, পলাশ, ছাতিম, গোলাপজাম, দেশি আমড়া, কাঠ বাদাম, শরিফা, আতা, বিলিম্বি, অরবরই, আমলকি, ডেউয়া, চালতা, নারিকেল, তাল, সুপারি, ডালিম, লুকলুকি, পেয়ারা, জাম, জামরুল, কাঁঠাল, ডুমুর, যজ্ঞডুমুর, আঁশফল, লিচু, সফেদা, বকুল, তেঁতুল, অর্জুন, নিশিন্দা, মেন্দা, কদম, কনকচূড়া, কলকে, কামিনী, কেয়া, কৃষ্ণচূড়া, করমচা, গগন শিরীষ, জারুল, জয়তী, মনকাঁটা, বট ইত্যাদি।

গফরগাঁও কলেজের একসময় শিক্ষকতা করেছেন লেখক ও প্রাবন্ধিক অনুপ সাদি। ইংরেজি বিভাগের শিক্ষক হলেও তিনি একজন প্রকৃতিপ্রেমী। পরিবেশ ও প্রকৃতি রক্ষা আন্দোলনের সাথে জড়িত এই শিক্ষক কলেজে কর্মরত থাকাকালীন ভিন্ন-ভিন্ন প্রজাতির অনেকগুলো গাছ রোপণ করেন। গাছের পরিচর্যাও করতেন নিজ হাতে। ঋতু বৈচিত্র্যে এসব গাছে এখন ফুল-ফল আসে। পাখিদের কলকাকলীতে মুখরিত হয় কলেজ প্রাঙ্গণ।

লেখক ও প্রাবন্ধিক অনুপ সাদি

স্থানীয় বাসিন্দা ও কলেজের সাবেক ছাত্র আরিফুল আলম রাজিব বলেন, এক দশকের বেশি সময় ধরে এসব গাছ কলেজে রয়েছে। এতে করে কলেজের প্রাকৃতিক পরিবেশ স্বাভাবিক রয়েছে। এতে কলেজের নান্দনিক সৌন্দর্য বর্ধিত হয়েছে। কলেজে প্রতিটি ঋতুতেই কোনো না কোনো গাছে ফুল ফোটে। সড়ক পথ দিয়ে চলা পথচারীরা আসা-যাওয়ার সময় একবার হলেও তাকিয়ে দেখে কলেজের গাছপালার ফুলের দিকে।

গাছগুলো লাগানো সম্পর্কে অনুপ সাদি বলেন, গফরগাঁও কলেজে যেভাবে বাগান করা হয়েছে তাকে বলা হয় অনানুষ্ঠানিক উদ্যান বা ইনফরমাল গার্ডেনিং। এটিতে গাছ লাগানোর সময় বিপন্ন গাছের দিকে যেমন খেয়াল করা হয়েছিল, তেমনি বন্যপ্রাণীদের খাবার ও আশ্রয়স্থলের দিকেও মনোযোগ দেয়া হয়েছিল। আর এই কাজে আমাকে যথেষ্ট সহায়তা করেছিলেন শিক্ষক মনজুরুল হক।

গফরগাঁও সরকারি কলেজ (ছবি : সংগৃহীত)

অনুপ সাদি আরও জানান, কলেজটি গফরগাঁওয়ের সবচেয়ে বড় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। এখানে এতো প্রজাতির গাছ থাকা মানে ছাত্রছাত্রীরা সহজেই গাছ সম্পর্কে ধারণা পাবে। জীববিজ্ঞানের ছাত্রছাত্রীসহ সকলের জন্যই উদ্ভিদ ও প্রকৃতি সম্পর্কে জ্ঞান থাকা দরকার। বর্তমান করোনা ভাইরাসের মহামারীর সময় প্রকৃতির উপকারী দিক সম্পর্কে মানুষ আগ্রহী হয়েছে। এমন এক ক্রান্তিকালীন সময়ে উদ্ভিদের প্রয়োজনীয়তা বলে শেষ করার মতো নয়। আর বিপন্ন প্রজাতির উদ্ভিদ (রোপণ) মানেই হচ্ছে সেগুলো পৃথিবীতে টিকে থাকার সম্ভাবনা বাড়িয়ে দেয়া। কলেজের স্বল্পবয়সী গাছগুলোর সবগুলোই ২০০৭-০৮ সালের বর্ষাকালে লাগানো।

jachai
niet
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
niet

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: 02-9110584, +8801907484800

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড