• বুধবার, ০১ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১৮ মাঘ ১৪২৯  |   ২০ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

পৃথিবীর সাথে অমানুষরা বদলে যাক

  মোশারফ হোসাইন

২৪ এপ্রিল ২০২০, ২২:৪১
লুনা আহমেদ এবং সাঈদা জান্নাত
লুনা আহমেদ এবং সাঈদা জান্নাত

পৃথিবীর দৃশ্যপট বদলে গেলেও বদলায়নি কিছু মানুষের স্বভাব, নৈতিক শিক্ষার অভাবে নিজেরা যেমন পিছিয়ে থাকবে তেমনি দেশকেও পিছিয়ে রাখবে তারা, এমনটিই বলছিলেন এসময়কার একজন জনপ্রিয় লেখক সুলতানা খানম লুনা যিনি লুনা আহমেদ নামেই বেশ পরিচিত। করোনা ভাইরাস পরিস্থিতির আতঙ্কে থাকলেও কোয়ারেন্টাইনে পরিবারের সঙ্গে ভালোই সময় কাটছে তার, পাঠকদের জন্য নতুন একটি বই লেখার চেষ্টা করে যাচ্ছেন তরুণ লেখিকা লুনা আহমেদ, বইপড়া ও ছবি আকাঁর মধ্যে দিয়ে সময়টাকে ভালোভাবে উপভোগ কারার চেষ্টা করছেন মাদারীপুরের এই বাসিন্দা, লেখালেখি ভালোলাগা ও ভালোবাসার জায়গাতে থাকলেও কর্মজীবনে তিনি মাদারীপুর ডি ডাব্লিউ এফ নার্সিং কলেজের অধ্যাপক। তিনি বলেন আমার পরিচিত অনেক মানুষ আছে যারা করোনা পরিস্থিতি নিয়ে একদমই সচেতন নয় বরং তারা মনে করে করোনা পরিস্থিতি সরকারের একটি প্রচারণা, আর এমন চিন্তাধারা যদি মানুষের মধ্যে থাকে তাহলে তো তাদের মাঝে কোন সচেতনতা থাকবে না, তাদের ধারণা পৃথিবী স্বাভাবিক আছে যেহেতু চারপাশ স্বাভাবিক, এর ফলে করোনা পরিস্থিতির মধ্যেও চলছে খুন ধর্ষণের মতো অপরাধ মূলক কাজ আর এমন কাজগুলো যারা করেন তারা মোটেও মানসিকভাবে সুস্থ নয়, মানসিকভাবে অসুস্থ। করোনা পরিস্থিতিতে অশিক্ষিত মানুষগুলোই যে অপরাধের সাথে জড়াচ্ছে এমনটি নয়, শিক্ষিত মানুষদের দ্বারাও অপরাধ সংঘটিত হচ্ছে, যার মূল কারণ মনুষ্যত্ব ও নৈতিক শিক্ষার অভাব। দেশের বিচার ব্যবস্থা খারাপ হওয়ার ফলে ধর্ষক ও খুনিরা ছাড়া পেয়ে যাচ্ছে সেজন্য বাড়ছে অপরাধ, ধর্ষক ও খুনিদের যদি ফাসির আওতায় আনা যেতো ভয়ে অপরাধীদের অপরাধ প্রবণতা কমে আসতো বলে মনে করেন লুনা আহমেদ। রাজধানীর ব্যস্ত শহরে থেমে গেছে পা, খুব সকালে বেড় হতে হয়না বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্দেশ্যে, বাসায় ফেরা হয়না ক্লান্ত বিকেল বেলাও, করোনার ভয়ানক থাবাতে ব্যস্ত শহরের ব্যস্ততা শহরকে বিদায় জানালেও বাসায় ব্যস্ত সময় পাড় করছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাস্থ্য ও অর্থনীতি বিভাগের ২য় বর্ষের শিক্ষার্থী সাঈদা জান্নাত। গৃহবন্দীর এই সময়ে নতুন নতুন কিছু বিষয়ে জানার সুযোগ পেয়েছেন, যেসব কাজ অবসরের অভাবে করতে পারেনি সেসব কাজ করে পুষিয়ে নিচ্ছেন। তিনি বলেন, করোনা ভাইরাসে আমাদের নিজেদের সচেতনতার পাশাপাশি সবাইকে সচেতন রাখাটাও জরুরী, সর্দি কাশিকে হালকা ভাবে না নিয়ে প্রথম থেকেই রোগীর লক্ষণ পর্যবেক্ষণ করতে হবে। সাঈদা জান্নাত আরও বলেন, সময় পেলেই আমি ছবি আকঁতে বসি, সবার মতো আমারও শখের মাধ্যমেই ছবি আকাঁর যাত্রা শুরু, ছবি আকাঁ নিয়ে অনেক জানার আছে শেখার আছে, সব শিল্পীরা চায় তাদের ছবি মানুষ মূল্যায়ন করুক আর আমিও চাই নিজেকে তেমন একটা জায়গার জন্য প্রস্তুত করতে। ছবির একটি ভাষা আছে, সেই ভাষায় একজন শিল্পী তার মনের অভিব্যক্তি প্রকাশ করতে পারেন, নারীর প্রতি সহিংসতা যেমন হতে পারে একজন শিল্পীর আকাঁর বিষয়বস্তু, তেমনি নারীর প্রতি সহিংসতা রোধে তারা নিজেদের অঙ্গনে কাজ করে যেতে পারে, তবে নৈতিক ভিত্তি মানুষে মানুষের প্রার্থক্য গড়ে তোলে; মানুষের মাঝে নৈতিক ভিত্তিটা মজবুত করতে পারলে সামাজিক সমস্যার সমাধান অনেক আংশে হয়ে যাবে, চিত্রকর্ম বা শিল্পকর্ম নিঃসন্দেহে এ ক্ষেত্রে মনস্তাত্তিক পরিবর্তনে ভূমিকা রাখতে পারে বলে মনে করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মেধাবী এই শিক্ষার্থী।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড